সোমবার, এপ্রিল ২৪, ২০১৭
bodrum escort escort bodrum
UCC-LOGO1

দেখুন সুশান্ত পালের অশ্লীলতা, কালই মামলা (প্রমাণসহ)

ঢাকাঃ এবার সুশান্ত পালের বিরুদ্ধে ফেসবুকে মেয়েদের অশ্লীল মন্তব্য করার প্রমাণ পাওয়া গেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষারথীদের ফেসবুকে সবচেয়ে বড় গ্রুপ ‘ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার’ নামে একতি গ্রুপে এক ছাত্রিকে অশ্লীল মেসেজ করার স্ক্রিনশট প্রকাশ করা হয়েছে।  14708323_1449872345041506_8006100461069114087_nএছাড়াও এই কাস্টমস কর্মকর্তা ১৮ অক্টোবর তার এক ফেসবুক নোটে ঢাবি ছাত্রীদের কুত্তী বলে সম্বধোন করেছেন। যা শিক্ষার্থীদের তীব্র তোপের মুখে পরে রিমুভ করে দিয়ে তিনি ক্ষমা চেয়ছেন।

এক ছাত্রী লিখেছেন, তার ফেসবুক স্ট্যাটসে কোন মেয়ে কমেন্ট করলেই পরে তিনি ওইসব মেয়েদের নক করতেন। এবং অশ্লীল প্রস্তাব দিতেন। আমার সাথেও  এরকম করেছে।

জাবির এক  ছাত্রীর পাঠানো স্ক্রিন শট দেখুন…

rনাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেকেই বলছেন, সুশান্ত ফেসবুকে নারীদের সাথে চ্যাটিং বেশি করে থাকেন। অনেক সময় যাতে যৌনতাও চলে আসে।

মেয়েদেরকে ফেইসবুকে নক করে নাম্বার নিয়ে কু-প্রস্তাব দেয়া ও মেয়েদের জন্মদিনে বাজে প্রস্তাব দিয়ে উইশ করেন বলে অভিযোগ একাধিক শিক্ষার্থীর। অন্য এক ছাত্রী লিখেছেন, ‘সুশান্ত পাল মেয়েঘেঁষা লোক।’

দেখুন আরো চারিত্রিক স্খলন Capture

14681776_1325424314155665_1715615978490619892_n


‘নিজের টাকা দিয়ে প্রোগ্রাম করানো’


দেশের বিভিন্ন ক্যাম্পাসে বিভিন্ন সঙ্গঠনকে নিজের পকেটের টাকা দিয়ে প্রোগ্রাম করিয়ে থাকেন। যাতে নিজেকে মুটিভেশনাল স্পিকার হিসেবে জাহির করা যায়। শিক্ষার্থীরা বলছেন, একজন কাস্টমস অফিসার এত টাকা কই পান। গত বছর তিনি ঢাবিতে প্রোগ্রাম করাতে চাইলেও শিক্ষার্থীদের বাধায় করতে পারেন নি। তার চারত্রিক স্খলন থাকার কারনে শিক্ষার্থীরা তাকে ওই কর্মসূচী করতে দেয়নি।

ক্ষমা প্রার্থনাঃ পরবর্তীতে তিনিও ক্ষমা চাই।  14717222_10207492684539699_6992149874897079558_n

‘মামলার প্রস্তুতি ‘

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে কুরুচিপূর্ণ, মিথ্যা ও বানোয়াট লেখা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করলে শিক্ষার্থীদের তীব্র প্রতিবাদের পর ক্ষমা চেয়েছেন কাস্টমস কর্মকর্তা সুশান্ত পাল। তবে এ নিয়ে শিক্ষার্থীরা দাবি করেছেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে ছোট করতে এবং পরিস্থিতি উত্তপ্ত করতেই সুশান্ত পাল কাজটি পরিকল্পিতভাবে করেছেন। তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

এ দিকে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অনুমতি নিয়ে সুশান্তের বিরুদ্ধে মামলা করবে বলে জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবার, এটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান ও সাবেক শিক্ষার্থীদের ফেসবুক গ্রুপ। গ্রুপের এডমিনদের পক্ষ থেকে তীব্র প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। শনিবার রাতে এক পোস্ট বলা হয়েছে, ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অশালীন ভাষায় মিথ্যে, বানোয়াট, কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য প্রদান করায় আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থী তীব্র নিন্দা এবং প্রতিবাদ জানাচ্ছি।’

‘প্রতিবাদ স্বরুপ আমরা প্রক্টর স্যার-এর অনুমতি নিয়ে তার নামে মানহানির মামলা করব’, বলা হয় সেই পোস্টে।

একই সঙ্গে মামলার পক্ষে সম্মতি জানাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল সাধারণ শিক্ষার্থী, সাংবাদিক, প্রিন্ট মিডিয়া, ইলেক্ট্রনিকস মিডিয়াসহ সবাইকে আগামীকাল ২৩ অক্টোবর রোববার সকাল ১১টায় অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে উপস্থিত হওয়ার আহবান জানানো হয়েছে।

এমএসএল