ঢাবি অধ্যাপক ফারুককে হুমকির প্রতিবাদে মানববন্ধন


ঢাকা
Published: 2019-07-15 17:19:45 BdST | Updated: 2019-08-20 05:44:02 BdST

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেডিক্যাল রিসার্চ সেন্টারের সদ্য সাবেক পরিচালক অধ্যাপক আ ব ম ফারুকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকির প্রতিবাদ জানিয়েছে গৌরব ৭১ নামের একটি সংগঠন। আজ সোমবার সকালে রাজধানীর শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে সংগঠনটির পক্ষ থেকে এই প্রতিবাদ জানানো হয় ।

৯ জুলাই অধ্যাপক আ ব ম ফারুকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলে হুমকি দেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা। এর প্রতিবাদে সংগঠনটি আজ বিক্ষোভ করে।

গৌরব ৭১ এর সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন বলেন, ‘জনস্বাস্থ্যের কথা চিন্তা করে ভোগ্য পণ্য নিয়ে অধ্যাপক আ ব ম ফারুক যে গবেষণাটি করেছেন, তার জন্য আমরা তাঁকে সাধুবাদ জানাই। একটি চক্র স্যারকে হুমকি-ধমকি দিয়ে চলেছে। রাষ্ট্রের একজন আমলাও স্যারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকি দিয়েছেন, যা আমাদের বিস্মিত করেছে। এই হুমকি শুধু অধ্যাপক ফারুকের প্রতি নয়, বরং সত্য প্রকাশের বিরুদ্ধে।’ তিনি বলেন, যত দ্রুত সম্ভব তদন্ত কমিটি গঠন করে ওই কর্মকর্তাকে বহিষ্কার করতে হবে। তা না হলে সচেতন নাগরিকদের সঙ্গে নিয়ে দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার ঘোষণা দেন তিনি।

.

মানববন্ধনে সংহতি জানিয়ে কয়েকজন শিক্ষকও বক্তব্য দেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পুষ্টি ও খাদ্যবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের শিক্ষক আবদুল জাহের বলেন, ‘অধ্যাপক আ ব ম ফারুককে গত ৩০ বছর থেকে চিনি। তাঁর সততা, নিষ্ঠা নিয়ে কখনো প্রশ্ন ওঠেনি। ফার্মেসি অনুষদের আন্তর্জাতিক মানের গবেষণাগারে তিনি গবেষণাটি করেছেন। রাষ্ট্রের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার হুমকি দিয়েছেন। আমি বলতে পারি, ওই কর্মকর্তা কোনো গবেষণার সঙ্গে সম্পৃক্ত নন। গবেষণায় ত্রুটি থাকলে তা ক্রস চেক করা যেতে পারে, হুমকি কেন? দেশীয় পণ্যের মান নির্ণায়ক সংস্থা বিএসটিআইয়ের সক্ষমতা নিয়েও প্রশ্ন আছে। ফারুক স্যার একজন দেশপ্রেমিক এবং একজন প্রতিশ্রুতিশীল শিক্ষক ও গবেষক। আমরা তাঁর পাশে আছি।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ সাকিব বাদশা অভিযোগ করে বলেন, ‘করপোরেট সিন্ডিকেটসহ শিক্ষক নামের কিছু “কুলাঙ্গার” অধ্যাপক আ ব ম ফারুকের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। অধ্যাপক ফারুকের মতো দৃঢ়চেতা ও সৎ শিক্ষক কমই আছেন।’

মানববন্ধনে অন্যদের মধ্যে বেসরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজশিক্ষক সমিতির সভাপতি নজরুল ইসলাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হল শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শ্রাবণী ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।