চাকরির বয়স ৩৫ করার দাবিতে টিএসসিতে সমাবেশ


Dhaka
Published: 2019-09-07 19:12:36 BdST | Updated: 2019-12-08 11:23:50 BdST

সরকারি চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ বছর করার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) সমাবেশ করেছেন চাকরি প্রত্যাশীরা। দশম জাতীয় সংসদের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সরকারের স্থায়ী কমিটি পরপর তিনবার চাকরিতে আবেদনের বয়সসীমা ৩৫ বাস্তবায়নের সুপারিশ এবং বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারের অঙ্গীকারসহ চাকরিতে আবেদনের বয়স বৃদ্ধি দ্রুত বাস্তবায়নের দাবিতে সমাবেশ ও অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন তারা।

শনিবার (০৭ সেপ্টেম্বর) সকাল ১১টা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাস বিরোধী রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে অবস্থান নেন চাকরি প্রত্যাশী শিক্ষার্থীরা।

দেশের বিভিন্ন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের চাকরি প্রত্যাশী শিক্ষার্থীদের সংগঠন বাংলাদেশে সাধারণ ছাত্র পরিষদ, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র কল্যাণ পরিষদ, বাংলাদেশ ছাত্র পরিষদ, বাংলাদেশ ছাত্র সংগ্রাম পরিষদসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মী এ আন্দোলনে অংশ নেন।

সমাবেশে সাধারণ ছাত্র পরিষদের মুখপাত্র ইমতিয়াজ হোসেন বলেন, ‘সংসদে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটি পরপর তিনবার সুপারিশের পরও কেন উপেক্ষা করেছেন? সরকার (বর্তমান) ৭০ বছরের প্রধান একটি রাজনৈতিক দলের যারা সবসময় জনগণের পক্ষেই কাজ করেন তাহলে বর্তমানে এই ২৮ লাখ তরুণের দাবি কেন অবহেলা করছেন? আমরা বলতে চাই, আমাদের এই সাতবছর ধরে চলা দাবি মেনে নেন এবং ৩৫ বাস্তবায়ন করেন।’

বাংলাদেশে সাধারণ ছাত্র পরিষদের নেতা এম এ আলী বলেন, ‘সরকারি চাকরিতে বয়সের সময়সীমা যতক্ষণ না পর্যন্ত ৩৫ বাস্তবায়ন হবে, আমাদের দাবি যতক্ষণ পর্যন্ত আদায় না হবে আমরা রাজপথ ছাড়ব না। আমরা রাজপথে দিন কাটাব, রাত কাটাব তবুও রাজপথ ছাড়ব না। দেখি সরকারের বোধোদয় হয় কি না?’

বর্তমান সরকারকে উদ্দেশে করে তিনি বলেন, ‘সরকার আমাদের সঙ্গে চরম অন্যায় করছে। আমরা সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩০ থেকে ৩৫ করার জন্য শান্তিপূর্ণভাবে আন্দোলন করে আসছি। আজ যদি আমাদের জনসমর্থন না থাকত তাহলে ৬৪ জেলাতে মানববন্ধন হতো না, সমাবেশ হতো না।’

সাধারণ ছাত্র পরিষদের নেতা এম এ আলী আরও বলেন, ‘আমাদের দাবি বাস্তবায়ন না হলে ৬৪ জেলাতে আমরা দুর্বার আন্দোলন গড়ে তুলব। শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানে ধর্মঘট পালন করব। যদি বাংলার ছাত্রসমাজ রাস্তায় নেমে যায়, পুরো দেশে যদি ধর্মঘট পালন হয় তাহলে এ রাষ্ট্রের অবস্থা কী হতে পারে সেটি আপনারা বারবার দেখেছেন।’

বাংলাদেশ ছাত্র পরিষদের পক্ষে আলামিন রাজু বলেন, ‘আওয়ামী লীগের নির্বাচনী ইশতেহারে ৩৩ পৃষ্ঠায় বয়স বৃদ্ধির ঘোষণা ছিল। কিন্তু জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক ফরহাদ হোসেনের কথায় আমরা বেকার যুব ছাত্রসমাজ হতাশাগ্রস্ত।’

সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন সংগঠনগুলোর বিভিন্নপর্যায়ের প্রতিনিধি হারুন-অর-রশিদ, ইউসুফ জামিল, রফিকুল ইসলাম কিরণ, মহাদেব সরকার, নাছির হোসেন, কামাল হোসেন, জসিম উদ্দিন, নাসরিন সুমি, অরুণিমা, নাহিদা আক্তারসহ অন্যরা।

এর আগে বিভিন্ন সময় চাকরিতে প্রবেশের বয়স ৩৫ বছর করার দাবিতে আন্দোলন করেছেন চাকরিপ্রত্যাশীরা। কিন্তু এখনও কোনো সমাধান হয়নি।