বাংলাদেশে করোনায় নতুন আক্রান্ত ১৮ জন, মোট ৮৮


টাইমস প্রতিবেদক
Published: 2020-04-05 14:34:27 BdST | Updated: 2020-05-30 09:11:08 BdST

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৮ জন আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮৮ জনে। আর আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় একজন মারা গেছেন। ফলে দেশে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা ৯ জন।

রোববার (৫ এপ্রিল) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত অনলাইন ব্রিফিংয়ে যুক্ত হয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ তথ্য জানান। এতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ, রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) পরিচালক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা, স্বাস্থ্য অধিদফতরের এমআইএস শাখার পরিচালক ডা. মো. হাবিবুর রহমান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

তিনি জানান, নতুন করে দেশে ১৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৮৮ জন। নতুন আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় একজন মারা গেছেন। দেশে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা ৯ জন।

মন্ত্রী আরও বলেন, বিএনপি আমাদের সমালোচনা করছে আমরা নাকি কোন কাজ করছি না। বিএনপিকে বলব আপনারা কি মানুষের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। আমরা তো দেখিনি। আপনাররা এগিয়ে আসেন মানুষের সাহায্যে।

ম্যালেরিয়ার ক্লোরোকুইন ওষুধ দিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সেবা দেওয়া হবে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, অনেক উন্নত দেশে এ ওষুধ ব্যবহার করা হচ্ছে। আমরাও করব। আমরা পর্যাপ্ত ওষুধ মজুদ রেখেছি। ম্যালেরিয়ার ক্লোরোকুইন ওষুধ দিয়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর সেবা দেওয়া হবে। জনগণকে বলব আপনারা ঘরে থাকবেন। সামাজিক দূরত্ব বজায়ে রাখবেন। বাহির থেকে এসে হাত সাবান দিয়ে ধুয়ে ফেলবেন। এছাড়া বাহিরে গেলে মাস্ক পরে যাবেন। নামাজ ঘরে আদায় করবেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা.জাহিদ মালিক বলেন, দুঃখের সঙ্গে লক্ষ্য করা যাচ্ছে মানুষ জন আগের মতো বাজারে যাচ্ছেন৷ এটি করবেন না, জরুরি কাজ ছাড়া বাহিরে যাবেন না ঘর থেকে। যারা রিলিফ দিচ্ছেন তাদের ধন্যবাদ। কিন্তু আপনার রিলিফ বাড়িতে পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করেন। তাহলে মানুষের জটলা হবে না।

পিপিই প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, আমাদের পিপিই'র সংকট নেই। আমাদের টেস্টিং কার্যক্রম বেড়ে যাচ্ছে। ১৪-১৫টি জায়গায় টেস্টিং হচ্ছে। উপজেলা পর্যায়ে টেস্টিং কার্যক্রম আমরা নিয়ে যাচ্ছি। গতকাল সারা দেশে ৫০০ ওপরে টেস্টিং হয়েছে। এই সংখ্যাটি আমরা ১ হাজারে নিয়ে যেতে যাচ্ছি।

বেসরকারি হাসপাতালের চিকিৎসকদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা নিজের দায়িত্ব থেকে দূরে থাকবে না। আপনাদের কোনো সমস্যা থাকলে আমাদের বলেন। আপনারা যদি দায়িত্ব থেকে দূরে থাকেন তাহলে মানুষের প্রতি অন্যায় করা হবে।

চীনের উহান থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে বিশ্বের ২০৫টি দেশ ও অঞ্চলে এখন পর্যন্ত ১২ লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে মারা গেছেন প্রায় পৌনে ৬৫ হাজার জন। তবে সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ২ লাখ ৪৬ হাজারের বেশি মানুষ।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্ত হয়েছে গত ৮ মার্চ। এরপর দিনে দিনে সংক্রমণ বেড়েছে। সবশেষ হিসাবে করোনায় বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৮ জন। মারা গেছেন ৮ জন। এছাড়া সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ৩০ জন। করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে প্রথমে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। পরে এই ছুটি ১১ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়।

ছুটির সময়ে অফিস-আদালত থেকে গণপরিবহন, সব বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। কাঁচাবাজার, খাবার, ওষুধের দোকান, হাসপাতাল, জরুরি সেবা এই বন্ধের বাইরে থাকছে। জনগণকে ঘরে রাখার জন্য মোতায়েন রয়েছে সশস্ত্র বাহিনীও।

জেডএইচ/ ০৫ এপ্রিল ২০২০