পর্যটন কেন্দ্র খুলে দেয়ার দাবিতে সাইকেল র‌্যালি অনুষ্ঠিত


Dhaka
Published: 2020-09-18 19:55:07 BdST | Updated: 2020-10-21 01:59:02 BdST

ঢাবিতে পর্যটকদের সুবিধার্থে দর্শনীয় স্থান গুলোতে (স্বাস্থ্যবিধি, সামাজিক দূরত্ব মেনে) ঝুঁকিমুক্ত, পরিক্ষিত, পর্যায়ক্রমে খোলা ও বিনোদন স্থান গুলো সচেতনতা বৃদ্ধি নিশ্চিতসহ সাইকেল পার্কিং করার জোরদার দাবিতে সাইকেল ও স্কেটিং র‌্যালি অনুষ্ঠিত হয়।

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০, সকাল ৯টা,৩০মিনিট, শুক্রবার, শাহবাগস্থ জাতীয় জাদুঘরের মেইন গেটের সম্মুখে অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনের সভাপতি আমিনুল ইসলাম টুব্বুস এর সভাপতিত্বে উদ্বোধন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইক্লিং ক্লাবের সভাপতি ও সদ্য সাবেক ডাকসু সদস্য মাহমুদুল হাসান।

সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির চেয়ারম্যান মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা,  ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাইকেলিং ক্লাবের সভাপতি ও ডাকসু সদ্য সাবেক সদস্য মাহমুদুল হাসান, স্বপনীলের মঞ্জুর আলম টিপু, কেরানীগঞ্জ সাইক্লিং সদস্য সচিব, রফিকুল ইসলাম রফিক। সার্চ স্পোর্টিং ক্লাবের চেয়ারম্যান আরশাদ।

জ্যাসফা প্রধান স¤œয়ক মনিরুল ইসলাম মনির, ঢাকাইয়া ঐক্যের আসাদুল রহমান রিপন, এপেক্স পলিমার গ্রুপের সিনিয়র এক্সিকিউটিভ মার্কেটিং আহম্মেদ ইমতিয়াজ, আমির হোসেন মাসুদ, রবিউল ইসলাম রবি, ঢাকা ইউথ ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সোহাগ মাহজন। ঢাকাইয়া ঐক্য,এম,ডি,সুমন, বিডি ক্লিক এর অর্থ সচিব, আফ্রিদি আশরাফ, সহ প্রমুখ।

এতে বক্তারা বলেন , শান্তির পতাকাবাহী শিল্পের নাম পর্যটন। এখানে অশান্তির কোন সুযোগ নেই। অতিথি আপ্যায়ন ও আত্মীয়তাএবং দেশ থেকে আরেক দেশে আসা-যাওয়ায় ভ্রমণে যে মেলবন্ধনে শিল্প ও সাহিত্য সংস্কৃতির ঐতিহ্যের নিরাপদ বন্ধুত্বের সুসম্পর্ক গড়ে তোলার সহজ একটি পদ ও দেশপ্রেমের একটি পতাকার প্রতিক হিসেবে ট্যুরিজম বিকাশের দ্বার
বিশ্বে আজ উদীয়মান পর্যটন শিল্প। পর্যটন উন্নয়ন পরিকল্পনায় সাইক্লিং সম্পৃক্ত করণে বাংলাদেশের পর্যটনের মহাপরিকল্পনা প্রণয়নে সহায়তা লাভবান হবে, সাইকেল একটি পরিবেশবান্ধব বাহন। পৃথিবীর বহু দেশেই নতুন করে সাইকেলের ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে।কাতারে বিশ্বের দীর্ঘতম সাইকেল লেন তৈরি করে গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ড গড়েছে যায়
দৈর্ঘ্য: ৩৩ কিলোমিটার প্রায় প্রস্ত: ৭ মিঃ। সড়কটি অত্যান্ত সুন্দর ও দৃষ্টিনন্দন। ইউরোপ এবং আমেরিকার কোনো কোনো শহরের নির্দিষ্ট কিছু সড়কে সপ্তাহের নির্দিষ্ট দিনে সাইকেল ছাড়া অনান্য সমস্ত বাহন চলাচল বন্ধ থাকে।অর্থাৎ সাইকেলের গুরুত্ব ক্রমেই অনুধাবন করছে বর্হিশ্বিবাসী। আমরা চাই আমাদের দেশেও পর্যটন শিল্প বিকাশ ও তরুণদের উদ্বুদ্ধ

করণ এবং কর্মসংস্থান সম্ভাব্য তৈরির লক্ষ্যে বহিবিশ্বে পর্যটকদের আকৃষ্ট করার জন্য পর্যটকদের সুবিধার্থে পর্যটন স্থান গুলো হোক নিরাপদ যাতায়াত ও যানজট মুক্ত পরিবেশ গড়ে তুলতে পর্যটন স্হান সমূহ হোক সুন্দর এবং দৃষ্টিনন্দন। ২৭সেপ্টেম্বর২০২০ বিশ্ব পর্যটন দিবস এই দিবসকে সামনে রেখে সার্বিক বিশ্ব পরিস্থিতি বিবেচনায় করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে

রুখে দাঁড়াতে..দেশের পর্যটন শিল্প বিকাশ ও পর্যটকদের সুবিধার্থে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দূরত্ব বজায় রেখে দর্শনীয় স্থান গুলো খোলা এবং থানা ও জেলা ভিত্তিক হোটেল গুলোতে মেডিকেল ট্যুরিজম সচেতনতা সেবা চালু সহ যাতায়াত সহজে দর্শনীয় স্থান গুলোতে সাইকেলের পার্কিংও সাইকেল লেন তৈরি করার দাবীতে সাইকেল ও স্কেটিং র‌্যালির আহবান।

দাবির সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকেন। বাংলাদেশ সাইকেল লেন বাস্তবায়ন পরিষদ।। বাংলাদেশ টুরিস্ট সাইক্লিং।। ঢাকা ইয়ূথ ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল।জাতীয় তরুণ সংঘ ও প্রগতি সংঘ।

পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন মঞ্চ।। কেরানীগঞ্জ সাইক্লিং। ঢাকা ইউনিভার্সিটি সাইক্লিং ক্লাব। সাউথ ঢাকা সাইক্লিস্টস। ইস্ট ঢাকা সাইক্লিস্টস। সার্চ স্কের্টিং ক্লাব স্বপ্নীল। ঢাকাইয়া ঐক্য। বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার সমিতি, নিরুপমা ফাউন্ডেশন উক্ত দাবির সাথে একমত পোষন করেন।

নেতৃবৃন্দ বক্তব্যে আরো দাবি জানান
করোনা ভাইরাসের কারণে বহুদিন দর্শনীয় স্থান গুলো বন্ধ থাকায় পর্যটকরা দর্শনীয় স্থান গুলোতে যেতে পারছে না,সবই যেহেতু দেশে খুলে দেয়া হয়েছে, দর্শনীয় স্থান গুলোও স্বাস্থ্যবিধি মেনে ও দূরত্ব বজায় রেখে পরিক্ষিত সু প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে পর্যটন কেন্দ্রগুলো পর্যায়ক্রমে ঝুঁকি মুক্ত করে পর্যটকদের জন্য সচেতনতা জোরদার বৃদ্ধি, খুলে দেয়া সহ পর্যটকদের সুবিধার্থে দর্শনীয় স্থান গুলোতে সাইকেলের পার্কিং সহ সাইকেল লেন বাস্তবায়নে জোরদার দাবি জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ জীবিকার প্রয়োজনে যান্ত্রিক বাহনে করে বিভিন্ন স্থানে যাতায়াত করে। কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় এমনকি অফিসে যাতায়াতের জন্য সাইকেলের ব্যবহার অনেকাংশে বাড়ছে। বর্তমানে অনলাইন সার্ভিসের কার্যক্রম বৃদ্ধির কারনে সাইকেলের ব্যবহার আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। এই যানজটের নগরে তরুণরা সাইকেল চালিয়ে দলবেঁধে ছুটির দিনগুলোতে বিভিন্ন পর্যটন স্থানগুলোতে ভ্রমণে আনন্দ উপভোগ করে থাকে এবং সাইকেল রাখার

জায়গা না থাকায় অনেক বিলম্ব ও দেশি-বিদেশি পর্যটকরা ভ্রমণে নিরুৎসাহিত হয়ে থাকেন । পর্যটন শিল্প বিকাশ ও উন্নয়নের লক্ষ্যে এটি কেবল আন্দোলন নয় এটাকে রীতিমত বিপ্লব করে ফেলা সম্ভব এবং পরিবেশবান্ধব সড়ক যদি আমরা নির্মাণ করতে পারি। রাস্তার পাশে ছোট সীমিত জায়গায় সাইকেলের লেন করে দেয়া যায়। ঢাকার যে বিশাল ট্রাফিক জ্যাম সেটা দুর করে সময় বাচাঁনোএর থেকে সহজ ও পরীক্ষিত অন্য কোন বাহন নাই। বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রীও পর্যটন শিল্পের সংশ্লিষ্টদের কাছে আমাদের দাবি বিভিন্ন পর্যটন দর্শনীয় স্থান গুলোতে পর্যটকদের জন্য হোটেলে গুলোতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দূরত্ব বজায় রেখে ঝুঁকিমুক্ত করে মেডিকেল ট্যুরিজম সেবা চালুর পাশাপাশি যাতায়াত সহায়তা ও পরিবেশবান্ধব সাইকেল এর ব্যবহার বৃদ্ধি ও উৎসাহিত করে পর্যটকদের সুবিধার্থে দর্শনীয় স্থান গুলোতে সাইকেলের পার্কিং তৈরি করা জরুরী। প্রয়োজনীয় অবকাঠামো এবং সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত হলে

পর্যটকদের নিরাপদ যাতায়াত সুবিধায় সড়ক দূর্ঘটনা ও যানজট রোধ করা সম্ভব, বায়ুদূষণ হ্রাসসহ জনস্বাস্থ্য রক্ষা ও পরিবেশ বান্ধব পর্যটন শিল্প ও নগরী।