সৌদি প্রবাসীদের টিকেট দাবির আন্দোলনের নেতৃত্বেও নুরদের লোক


Dhaka
Published: 2020-09-24 14:56:03 BdST | Updated: 2020-10-21 03:08:12 BdST

ফ্লাইটের টিকিট না পেয়ে বিক্ষুব্ধ সৌদিপ্রবাসীদের সড়ক অবরোধ ও মন্ত্রণালয় ঘেরাওয়ের নেপথ্যে তৃতীয় পক্ষের উসকানি ছিল বলে আশঙ্কা করছে সরকার। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন গতকাল বুধবার দুপুরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে এ ধরনের ইঙ্গিত দেন। সন্ধ্যায় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলমের ফেসবুক বার্তায়ও এমন ইঙ্গিত রয়েছে।

তবে বাংলাদেশের জাতীয় দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারে প্রকাশিত একটি ছবিতেও এমনটিই দেখা গিয়েছে এবং বিষয়টি ফেসবুক স্ট্যাটাসের মাধ্যমে নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক আতাউল্লাহ।

মোহাম্মদ নাজমুল করিম রিটু নামে ছাত্র অধিকার পরিষদ এর এক নেতা প্রবাসীদের পক্ষে বিভিন্ন দাবি জানিয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ কয়েকটি মন্ত্রণালয় আবেদন জমা দেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, ‘রেমিট্যান্স-যোদ্ধাদের পক্ষে যিনি দরখাস্ত দিয়েছেন তিনি কিন্তু প্রবাসী না। তিনি এ দেশের লোক। রাজনীতি করেন। তিনি এটা দিয়েছেন। আমি তাই প্রবাসীদের বলব, কোনো তৃতীয় পক্ষের প্ররোচনায় এ ধরনের কাজ করলে আপনাদেরই ক্ষতি হবে।’

অন্যদিকে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী গতকাল সন্ধ্যায় তাঁর ভেরিফায়েড ফেসবুকে এক পোস্টে সৌদিপ্রবাসীদের সমস্যা নিয়ে অগ্রগতির খবর জানানোর পাশাপাশি ‘ছাত্র অধিকার আন্দোলনের’ নাম উল্লেখ করেছেন। তিনি লিখেছেন, ‘সৌদি আরবে চার দিন বর্ধিত ছুটি ছিল, আজকেই খুলেছে।

সৌদি আরবের যারা খোঁজ রাখেন তাদের এটা জানা উচিত (কোনো ‘ছাত্র অধিকার আন্দোলন’ এটা জানার কথা নয়)।’

আন্দোলনে নেতৃত্বে ছাত্র অধিকারের নেতা রিটু 

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আরো লিখেছেন, ‘সৌদি আরব সরকার আমাদের অনুরোধের প্রেক্ষিতে নিচের সিদ্ধান্তগুলো নিয়েছে, ১. আকামার মেয়াদ আরবি সফর মাসের শেষ দিন পর্যন্ত (মানে আজ থেকে আরো ২৪ দিন) বর্ধিত করা হয়েছে। ২. বাংলাদেশ বিমানকে রিয়াদ এবং জেদ্দায় সপ্তাহে মোট চারটি ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। ৩. ঢাকাস্থ সৌদি আরব দূতাবাসের ভিসা অফিস রবিবার থেকে খোলা থাকবে, যেখানে কভিড-১৯ সংক্রান্ত নতুন নিয়মাবলি মেনে কনস্যুলার সেবা প্রদান করা হবে।’

কয়েক মাস আগে ভিয়েতনামে বাংলাদেশ দূতাবাসের সামনে আটকে পড়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের অবস্থান কর্মসূচি, দূতাবাসে জোরপূর্বক প্রবেশের চেষ্টা এবং বিশ্বব্যাপী বাংলাদেশ দূতাবাস আক্রমণ করার হুমকির সঙ্গে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর ও তাঁর সংগঠন বাংলাদেশ প্রবাসী অধিকার পরিষদের উসকানির অভিযোগ করেছিলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তবে সাবেক ভিপি নুর গতকাল রাতে বলেন, ‘পররাষ্ট্রমন্ত্রী আগেও বাইরের ইন্ধনের কথা বলেছিলেন। এটি ভিত্তিহীন।’

দালালচক্রের প্রতারণার শিকার হয়ে প্রবাসীরা যখন ভিয়েতনামে সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশ দূতাবাসে গিয়েছিলেন, তখনও পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন যে এটি ভিপি নুরের বা প্রবাসী অধিকার পরিষদের উসকানিতে আন্দোলন। জানতে চাইলে নুর বলেন, ‘আমার যে সংগঠন আছে প্রবাসী অধিকার পরিষদ, এটি এখনো কোনো আন্দোলন-সংগ্রাম করেনি। বিভিন্ন সময় উদ্বেগ জানিয়ে সরকারের দায়িত্বশীলদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।’

নুর বলেন, সৌদিপ্রবাসীরাও আমার, আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিল। আমি তাদের বলেছিলাম, আপনারা সরকারের দায়িত্বশীলদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। আমরা সব বিষয়ে কথা বললে এটা আমাদের জন্য সমস্যা।