বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য দেশের স্বাধীনতা ও ইতিহাসের অংশ: অরেফিন সিদ্দিক


Dhaka
Published: 2020-11-16 08:23:56 BdST | Updated: 2020-11-27 20:11:22 BdST

ঢাকার ধোলাইপাড়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একটি ভাস্কর্যকে ‘মূর্তি’ আখ্যা দিয়ে তা অপসারণের দাবি করছে কিছু ইসলামিক গোষ্ঠী৷তাদের এ দাবিকে ‘কট্টর’ আখ্যা দিয়ে সরকারের মন্ত্রী এবং বুদ্ধিজীবীরা বলেছেন, ‘‘মৌলবাদীদের এই আস্ফালনকে কোনোভাবেই মেনে নেয়া হবে না৷''

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেন, ‘‘বঙ্গবন্ধুরভাস্কর্য দেশের স্বাধীনতা ও ইতিহাসের অংশ৷ এই প্রজন্ম ভাস্কর্য দেখে শিখবে৷ ইতিহাস জানবে৷ এটা মূর্তি কেন হবে? এখানে তো কেউ পূজা করতে যাবে না৷''

তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনার দেশ৷ মৌলবাদী-সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে কোনোভাবে আশকারা দেওয়া ঠিক হবে না৷''

অন্তত দুইজন রাজনীতিক-মাওলানা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য অপসারণের দাবি জানিয়ে সমাবেশে জোরালো বক্তব্য রেখেছেন৷ তাদের একজন হলেন চরমোনাই'র পীর ও ইসলামী আন্দোলন-এর সিনিয়র নায়েবে আমির মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ ফয়জুল করীম৷ তিনি শুক্রবার ভাস্কর্য নির্মাণের স্থল ঢাকার ধোলাইপাড় এলাকায় এক সমাবেশে বলেছেন, ‘‘ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপনের চক্রান্ত তৌহিদি জনতা রুখে দেবে৷ রাষ্ট্রের টাকা খরচ করে মূর্তি স্থাপনের অপরিণামদর্শী সিদ্ধান্ত থেকে সরকারকে ফিরে আসতে হবে৷''

তিনি আরো বলেন, ‘‘মূর্তি স্থাপনের সিদ্ধান্ত বাতিল না হওয়া পর্যন্ত তৌহিদি জনতার আন্দোলন চলবে৷ সরকার যদি ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপন থেকে সরে না আসে, তাহলে কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হব৷''

একই দিনে, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব ও হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওলানা মামুনুল হক ঢাকার বিএমএ মিলনায়তনে খেলাফত যুব মজলিস ঢাকা মহানগরীর এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘‘বঙ্গবন্ধুর মূর্তি স্থাপন বঙ্গবন্ধুর আত্মার সঙ্গে গাদ্দারি করার শামিল৷ যারা বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যের নামে মূর্তি স্থাপন করে তারা বঙ্গবন্ধুর সু-সন্তান হতে পারে না৷ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একজন মুসলিম হিসেবে পৃথিবী থেকে বিদায় নিয়েছেন৷ তাঁর মূর্তি তৈরি করে রাস্তার মোড়ে মোড়ে স্থাপন করা হলে তা হবে বঙ্গবন্ধুর আত্মার সঙ্গে বেইমানি৷''

এই দুই ইসলামী নেতার বক্তব্যের ব্যাপারে সরকার এখনও কোনো আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া না দেখালেও মন্ত্রীরা এরইমধ্যে এ নিয়ে কথা বলেছেন কেউ কেউ৷ শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেছেন, ‘‘যতটুকু বলেছেন ক্ষমা চেয়ে সাবধান হয়ে যান, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ট করলে ঘাড় মটকে দেবো৷''

আর মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ. ম. রেজাউল করিম ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি৷ যারা এই ভাস্কর্য পছন্দ করেন না, তারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সংবিধান এবং আইনের বিরুদ্ধে কথা বলছেন৷ বাংলাদেশ কোনো মৌলবাদী গোষ্ঠীর আস্ফালনের জায়গা নয়৷''

আর নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘‘ওদের তো এই শিক্ষা নেই৷ ওরা কী বলল তাই তা নিয়ে মন্তব্য করতে চাই না৷''

তবে ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের প্রধান মুফতি সৈয়দ মোহাম্মদ ফয়জুল করীমের পক্ষে সংগঠনের যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা গাজী আতাউর রহমান বলেন, ‘‘ভাস্কর্য আর মূর্তি একই৷ ইসলামে মূর্তি স্থাপন হারাম৷ তারপরও সরকার যদি বঙ্গবন্ধুর মূর্তি স্থাপন করে তবে তৌহিদি জনতা তা মেনে নেবে না৷''

কিন্তু ওলামা লীগের মহাসচিব মাওলানা আবুল হাসান শাহ শরিয়তপুরী বলেন, ‘‘বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে ইসলামে কোনো সমস্যা নাই৷ এটা সবাই দেখবে সেই জন্য বানানো হচ্ছে৷ হেফাজত ও জামাত শিবির এর বিরোধিতা করছে৷ তারা অশান্তি সৃষ্টি করতে চায়৷ বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য বানানো হচ্ছে, সেটা হোক৷ কোরানের আয়াত দিয়েও অন্য জায়গায় বানানো যাবে৷ এটা নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি করার কোনো দরকার নাই৷''

সরকারের প্রশ্রয়ে কট্টরপন্থীরা এমন সুযোগ পাচ্ছে কিনা জানতে চাইলে খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ‘‘বিষয়টি ঠিক নয়৷ মৌলবাদী কোনো গোষ্ঠীকেই সরকার সুযোগ দেবে না৷'' আর শ. ম. রেজাউল করিম বলেন, ‘‘ধর্মের নামে কোনো উসকানি এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্টের যে কোনো চেষ্টা রুখে দেবে সরকার৷''

সংবাদটি ডয়চে ভেলে থেকে ঈষৎ সম্পাদিত