ছাত্রলীগ-যুবলীগের প্রতিহতের ঘোষণার মধ্যেই হাটহাজারীতে মামুনুল


Chittagong
Published: 2020-11-27 18:16:46 BdST | Updated: 2021-01-28 18:55:35 BdST

ছাত্রলীগ-যুবলীগের প্রতিহতের ঘোষণার মধ্যেই চট্টগ্রামে এসে হাটহাজারীতে অবস্থান করছেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য অপসারণের হুমকিদাতা মামুনুল হক, যিনি হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব পদে আছেন।

হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদী হাটহাজারীতে তার অবস্থানের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

হাটহাজারী উপজেলার পার্বতী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে আল আমিন সংস্থা নামে একটি সংগঠনের আয়োজনে তিনদিনব্যাপী তাফসীরুল কোরআন মাহফিলের সমাপনী দিনে শুক্রবার (২৭ নভেম্বর) প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে মামুনুল হকের। এশার নামাজের পর তার বক্তব্য দেওয়ার কথা প্রচার করেছে সংস্থাটি।

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য অপসারণ ইস্যুতে ছাত্রলীগ-যুবলীগ প্রতিহতের ঘোষণা দেওয়ার পর বৃহস্পতিবার (২৬ নভেম্বর) রাত থেকে মামুনুল হকের চট্টগ্রামে আসা নিয়ে নানাধরনের গুঞ্জন তৈরি হয়। প্রশাসনের পক্ষ থেকেও মামুনুলের অবস্থান নিয়ে সুষ্পষ্ট কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এ পরিস্তিতিতে মামুনুল হকের অবস্থান সম্পর্কে জানতে চাইলে আজিজুল হক ইসলামাবাদী বলেন, ‘উনি (মামুনুল হক) হস্পতিবার রাতে সড়কপথে ঢাকা থেকে হাটহাজারীতে এসে পৌঁছেছেন। উনার গাড়ি সিটি গেইট দিয়ে ঢুকে চট্টগ্রাম শহর হয়ে হাটহাজারীতে আসে। উনি মাহফিলে বক্তব্য রাখবেন।’

হেফাজত সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানিয়েছে, মামুনুল হক বৃহস্পতিবার গভীর রাত ১টার দিকে হাটহাজারীতে পৌঁছান। তিনি বড় মাদরাসা হিসেবে পরিচিত আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদরাসায় রাতযাপন করেন। সেখান থেকেই তিনি সরাসরি তাফসিরুল কোরআন মাহফিলে যাবেন।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমিন বলেন, আয়োজক সংগঠন আল আমিন সংস্থার একাধিক কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেছেন তিনি। মামুনুল হকের হাটহাজারীতে অবস্থানের বিষয়ে কেউ তাকে নিশ্চিত করতে পারেননি। এমনকি সর্বশেষ হেফাজতে ইসলামের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল হক ইসলামাবাদীর সঙ্গেও কথা বলেন। তিনিও মামুনুল হকের অবস্থানের বিষয়ে সুস্পষ্ট কোনো তথ্য দেননি।

হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘মামুনুল হক সাহেব এসেছেন কি না আমাদের জানা নেই। এটি যারা তাকে হাটহাজারীতে আনছেন, তারা জানবেন। তবে হাটহাজারীর পরিস্থিতি এখন শান্ত আছে।’