কোটা সংস্কার ও মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে তীব্র বিক্ষোভ


আব্দুল্লাহ নোমান
Published: 2018-03-18 09:04:54 BdST | Updated: 2018-12-15 11:58:21 BdST

কোটা সংস্কার এবং আন্দোলন কারীদের উপর পুলিশের করা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে রবিবার সকাল সাড়ে ১০ টায় রাজু ভাষ্কর্য থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে বিক্ষোভকারীরা। এর আগে সকাল সাড়ে ৯ টায় বিক্ষোভকারীরা ঢাবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে সমবেত হতে হয়। 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েরর কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে একত্রিত হয়ে টিএসসি,ভিসি চত্বর, সেডো,কলাভবন এবং ডাকসু সহ ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে মিছিল করেন তারা।এসময় আন্দোলন কারীদেরকে" বঙ্গবন্ধুর বাংলায় বৈষম্যের ঠাঁই নাই",আমাদের দাবি মানতে হবে কোটা সংস্কার করতে হবে" সংস্কারে নাই ছাড়, মামলা করো প্রত্যাহার " সহ মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে বিভিন্ন শ্লোগান দিতে দেখা যায়।

এছাড়াও বিক্ষোভকারীরা নানা রকম প্লেকার্ড, ব্যানার এবং কোটা সংস্কারের দাবির উপর লিখিত পট্টি মাথায় বেঁধে বিক্ষোভ করে। 

এ বিক্ষোভে প্রায় ৫ হাজার শিক্ষার্থী অংশ নেয়। 

এদিকে গতো ১৪ ই মার্চ বুধবার আন্দোলন কারীদের পক্ষ থেকে জনপ্রশাসণ মন্ত্রনালয়ে স্বারকলিপি প্রদানের জন্য গেলে পুলিশ কতৃক বাঁধাগ্রস্থ হয়।তারপর তারা দাবি করেন, স্বারকলিপি জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় পর্যন্ত না পৌঁছালে তারা সেখানেই অবস্থান করবেন।

এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পুলিশ সেদিন বিক্ষোভকারীদের উপর টিয়ারশেল এবং ফাঁকা গুলি ছুঁড়াসহ ৫জনকে গ্রেফতার করে।পরবর্তিতে পুলিশের উপর আক্রমনসহ রাস্তা অবরোধ করে জনদূর্ভোগ তৈরির অভিযোগে গত ১৬ই মার্চ শুক্রবার ৭০০ জনের বিরোদ্ধে অজ্ঞাতনামা মামালও দায়ের করে পুলিশ।

বিক্ষোভে অংশগ্রহন কারীদের অধিকাংশই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলের সাধারণ শিক্ষার্থী।

এদিকে, কোটা সংস্কারের দাবিতে ও আন্দোলনকারী ৭০০-৮০০ জনের নামে পুলিশি মামলার প্রতিবাদে সারাদেশে একযোগে বিক্ষোভ শুরু করে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থী এবং চাকরি প্রত্যাশীরা।

রবিবার সকাল ১০টা থেকে ঢাবি, রাবি, চবি, ইবি, জাবি, জবি, শাবিপ্রবি, পবিপ্রবি, কুবি, হাজী মোহাম্মাদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়, ফেনী, ময়মনসিংহ, নোয়াখালী, কিশোরগঞ্জ, রংপুরসহ দেশের সকল বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলেজে এ বিক্ষোভ হয়।

এসব সমাবেশে শিক্ষার্থীরা মামলা প্রত্যাহার ও কোটা সংস্কারের দাবি জানিয়েছে।

আন্দোলনকারীদের ৫ দফা দাবি হলো :

১. কোটা ব্যবস্থা সংস্কার করে ৫৬ % থেকে ১০% এ নিয়ে আসতে হবে।

২. কোটায় যোগ্য প্রার্থী না পাওয়া গেলে শূন্য পদগুলোতে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দিতে হবে।

৩. চাকরি নিয়োগ পরীক্ষায় কোটা সুবিধা একাধিকবার ব্যবহার করা যাবে না।

৪. কোটায় কোন ধরণের বিশেষ নিয়োগ পরীক্ষা দেয়া যাবে না।

৫. চাকরির ক্ষেত্রে সবার জন্য অভিন্ন কাট মার্কস ও বয়সসীমা করতে হবে।

প্রতিবেদকঃ আব্দুল্লাহ নোমান 

বিদিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।