ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক চার ছাত্র রিমান্ডে


ঢাবি টাইমস
Published: 2018-03-20 21:53:11 BdST | Updated: 2018-07-17 15:55:34 BdST

উপপরিদর্শক (এসআই) নিয়োগে অন্যের হয়ে পরীক্ষা দিতে এসে গতকাল সোমবার রাজধানীর তেজগাঁও কলেজ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক চার ছাত্র গ্রেপ্তার হন। আজ মঙ্গলবার ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালত তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এক দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন।

সাবেক এই চার ছাত্র হলেন হাবিবুর রহমান, শাহাদাত হোসেন, হাবিবুর রহমান (এক) ও জাহান কাজী। এঁদের মধ্যে জাহান কাজী ও শাহাদাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর করেছেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শেরেবাংলা নগর থানার এসআই মো. সুজানুর ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, গ্রেপ্তার চারজন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র। তাঁরা এসআই পরীক্ষায় ভুয়া পরীক্ষার্থী হিসেবে পরীক্ষা দিতে আসার পর গ্রেপ্তার হন।

চারজনের বিরুদ্ধে তেজগাঁও থানা-পুলিশ বাদী হয়ে পাবলিক পরীক্ষা আইনে আজ মঙ্গলবার মামলা করে। আর তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয় গতকাল। অন্যদিকে আসল পরীক্ষার্থী মাদারীপুরের হাসান মাতব্বর, আবদুল হামিদ, শেখ মিঠুন ও রুবেল রানা পলাতক রয়েছেন।

মামলায় বলা হয়েছে, আসল পরীক্ষার্থীদের প্রবেশপত্রের ছবির জায়গায় নিজেদের ছবি লাগিয়ে পরীক্ষা দিতে আসেন এই চারজন। পরীক্ষা চলাকালীন সময় প্রবেশপত্রের সত্যতা যাচাই করার সময় তাঁরা ভুয়া পরীক্ষার্থী হিসেবে চিহ্নিত হন।

আসামিদের কাছ থেকে ভুয়া প্রবেশপত্র, লিখিত পরীক্ষার খাতা, তাঁদের মোবাইল ফোন মামলার আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়েছে।

মামলার বাদী পুলিশ পরিদর্শক ফয়সাল আহমেদ বলেন, এসব ভুয়া পরীক্ষার্থী বুঝতেই পারেননি যে পুলিশের কাছে আসল পরীক্ষার্থীদের সব ধরনের তথ্য সংগ্রহ করেছিল। পরীক্ষা চলাকালীন কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত পুলিশ কর্মকর্তারা প্রবেশপত্রের সঙ্গে ছবি মিলিয়ে দেখার পর হাতেনাতে তাঁরা গ্রেপ্তার হন।

কত টাকার বিনিময়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এই চার ছাত্র পরীক্ষা দিতে আসেন, সে ব্যাপারে তাঁরা মুখ খোলেননি বলে জানান তদন্ত কর্মকর্তা সুজানুর ইসলাম। তিনি বলেন, চারজন আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ করে ঘটনার রহস্য উদ্‌ঘাটন করা হবে। কত টাকা নিয়ে তাঁরা পরীক্ষা দিতে আসেন, তা বের করা হবে। আর পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তার করে বিচারের মুখোমুখি করবেন।

বিদিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।