ঢাবির আইনের ছাত্রীকে শ্বাসরোধে হত্যা, স্বামীর যাবজ্জীবন


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2018-04-26 01:26:11 BdST | Updated: 2018-05-22 02:31:14 BdST

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্রী মাশহুদা সুলতানা হত্যা মামলায় তার স্বামী একই বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র আবদুল কুদ্দুসকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে সাতক্ষীরার একটি আদালত।

বুধবার সাতক্ষীরা জেলা ও দায়রা জজ বিচারক মো. আশরাফুল ইসলাম আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন।

যাবজ্জীবনের পাশাপাশি কুদ্দুসকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও ৬ মাস কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে বলে পিপি ওসমান গনি জানান।

কুদ্দুস (২৫) খুলনার পাইকগাছা উপজেলার শ্রীকণ্ঠপুর গ্রামের মো. মহিউদ্দিনের ছেলে।

মামলার নথির বরাত দিয়ে পিপি জানান, ২০১২ সালের প্রথম দিকে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার খানপুর গ্রামের মো. এলাহি বক্সের মেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্রী মাশহুদা সুলতানা ও একই বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র আব্দুল কুদ্দুসকে বিয়ে করেন।বিয়ের কিছুদিন যেতে না যেতেই কুদ্দুস অন্য কটি মেয়ের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। স্বামীর এ কর্মকাণ্ডে বাধা দিতেন মাশহুদা।

২০১২ সালের ২২ জুন কুদ্দুস শ্বশুর বাড়ি সাতক্ষীরার খানপুর গ্রামে বেড়াতে আসেন। রাতে স্ত্রী মাশহুদাকে কলার সঙ্গে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে অচেতন করে রশি ও গামছা পেঁচিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করেন।

তিনি বলেন, ভোরে ফজরের নামাজ পড়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে যান। পরে সাতক্ষীরা থানায় আত্মসমর্পণ করে স্ত্রীকে হত্যার কথা জানান।

“স্ত্রী হত্যার বিষয়টি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হলেও বয়স বিবেচনায় কুদ্দুসকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে বলে আদালত রায়ে উল্লেখ করেছে।”

বিদিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।