র‍্যাগিংয়ের দায় স্বীকার: বহিষ্কার মওকুফের দাবি ববির তিন শিক্ষার্থীর


শফিকুল ইসলাম
Published: 2018-04-27 16:59:29 BdST | Updated: 2018-10-24 01:29:48 BdST

গত ২১ এপ্রিল ২০১৮ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালৃয়ের ঢাকাস্থ লিয়াজোঁ অফিসে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটের ৫৪ তম সভায় "উত্যক্ত ও উৎপীড়ণের" অভিযোগে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের কোস্টাল স্টাডিজ ও ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের তিনজন শিক্ষার্থী যথাক্রমে নুসরাত জাহান শিফা, শ্রেনী রোল 17 CDM 005, কল্যান হালদার শ্রেনী রোল 17 CDM 007 এবং মো নাজমুল হাসান শ্রেনী রোল 17 CDM 0010 কে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়।

এর পরিপ্রেক্ষিতে র‍্যাগিংয়ের অভিযোগ স্বীকার করে ক্ষমা প্রার্থনা করেছে অভিযুক্ত তিন শিক্ষার্থী। ২৬ এপ্রিল বৃহস্পতিবার দুপুরে ক্ষমা চেয়ে বহিষ্কার মওকুফের জন্য উপাচার্য বরাবর লিখিত আপিল করেছে বলে জানিয়েছেন বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী নুসরাত জাহান শিফা। তিনি জানান, তদন্ত কমিটি গঠনের পর আমাদের সাথে কোন আলাপ আলোচনা না করেই বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। বহিষ্কার হওয়ার পরেই ব্যাপারটি আমরা জানতে পারি।

কোস্টাল স্টাডিজ ও ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট বিভাগের চেয়ারম্যান সহকারী অধ্যাপক ড. হাফিজ আশরাফ মুঠোফোনে জানান, তদন্তে তাদের বিরুদ্ধে আনিতো অভিযোগ তারা স্বীকার করেছে। র‍্যাগিংকে নিরুউৎসাহিত করতেই মূলত এই ব্যবস্থা নিয়েছে সিন্ডিকেট সভা। আপিল করার পরে বিষয়টি বিবেচনা করবে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

একই বিভাগের জুনিয়র শিক্ষার্থীদের র‍্যাগিংয়ের অভিযোগ সম্পর্কে জানতে চাইলে নুসরাত জাহান শিফা বলেন, কান ধরে উঠ বস করা ও বাউলের মত চুল না কাটা এবং চুল আঁচড়িয়ে না আসার জন্য তাদের মাথায় তেল দেয়ার অভিযোগ আমরা স্বীকার করেছি। শিফা আরও বলেন, আমি মূলত র‍্যাগ দেই নাই। তখন পাশে বসে ছিলাম। আমার বন্ধু কল্যাণ হালদার ও নাজমুল হাসন কাজটি ঘটিয়েছে, কিন্ত এখন দেখছি আমার নামেও অভিযোগ।

কল্যান হালদার ও নাজমুল হাসনের কাছে জানতে চাইলে এ ব্যাপারে তারা বিস্তারিত কোন কথা বলতে রাজি হননি। তবে তাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তা তারা স্বীকার করেছে।

এইচজে/ ২৭ এপ্রিল ২০১৮

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।