এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে পুনর্বিবেচনার আহ্বান জাপার


টাইমস ডেস্ক
Published: 2020-10-10 17:48:09 BdST | Updated: 2020-10-23 17:03:14 BdST

দেশ, জাতি ও মেধাবীদের স্বার্থে এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে সরকার আবারো বিবেচনা করতে পারে। যেখানে সব কিছুই খুলে দেয়া হয়েছে, সেখানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা হতে পারে বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জিএম কাদের।

শনিবার (১০ অক্টোবর) জাপার বনানী কার্যালয়ে কুষ্টিয়া জেলা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সভায় এমন মন্তব্য করেন তিনি।

জিএম কাদের আরও বলেন, জেএসসি ও এসএসসির ফল বিবেচনায় সবার জন্য এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল নির্ধারণ করা হতে পারে। কিন্তু যারা পরীক্ষায় অংশ নিতে চায়, তাদের জন্য এইচএসসি পরীক্ষার ব্যবস্থা করতে পারে সরকার।

তিনি আরও বলেন, দেশ থেকে ধর্ষণ বিদায় করতে বিদ্যমান আইন সংশোধন করে মৃত্যুদণ্ডের বিধান নিশ্চিত করতে হবে। ধর্ষণের বিচার করতে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল গঠন করে স্বল্প সময়ের মধ্যে বিচার নিশ্চিত করতে হবে। দ্রুততার সঙ্গে বিচারের রায় কার্যকর করলেই দেশ থেকে ধর্ষণের মতো সামাজিক ব্যাধি দূর করা সম্ভব হবে। এতে সাধারণ মানুষের মাঝে আস্থা ফিরে আসে এবং অপরাধীরা অপরাধ করতে সাহস পাবে না।

দেশে ধর্ষণ, নারী নির্যাতন এবং নারীর প্রতি সহিংসতা লজ্জাজনক অবস্থায় পৌঁছেছে। হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ অ্যাসিড সন্ত্রাস রোধ করতে মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে আইন করেছিলেন। তখন দ্রুত বিচার সম্পন্ন করে বিচারের রায় কার্যকর করায় দেশ থেকে অ্যাসিড সন্ত্রাস দূর হয়েছিল। তাই বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তোরণের জন্য ধর্ষণের সাজা মৃত্যুদণ্ড নিশ্চিত করলেই লজ্জাজনক এই পরিস্থিতি থেকে রেহাই মিলবে।

বৈশ্বিক মহামারিকালে হতদরিদ্র মানুষদের জীবিকার কথা বিবেচনায় রাখতে হবে। কোনো কারণেই যেন খেটে খাওয়া মানুষগুলো পেশা না হারায় সেজন্য সরকারকে সচেতন থাকতে হবে। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের জীবিকার প্রশ্নে যেন বাড়াবাড়ি না হয় সেজন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান জাপা চেয়ারম্যান।

জাতীয় পার্টি মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু বলেন, যখন বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারি চলছে, তখন বাংলাদেশে যোগ হয়েছে ধর্ষণের মহামারি। প্রকাশ্য দিবালোকে নারী তার সম্মান হারাচ্ছে, এটা সভ্য সমাজে মেনে নেয়া যায় না। দেশের মানুষ পরিবর্তন চায়, দেশের মানুষ শান্তি, স্বস্তি ও নিরাপত্তা চায়। শুধু উন্নয়ন দিয়ে মানুষের শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা যায় না।’