বহিরাগত যানবাহন চল‍াচলে ঢাবিতে শিক্ষার পরিবেশ বিঘ্নিত


টাইমস প্রতিবেদক
Published: 2017-07-26 23:02:44 BdST | Updated: 2018-06-22 05:41:51 BdST

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের রাস্তায় অবাধে চলছে বহিরাগত যানবাহন। যানবাহনের নিয়ন্ত্রণহীন চলাচলে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস যেন পরিণত হয়েছে শহর এলাকার নিয়মিত রুটে।

ক্যাম্পাসের মধ্য দিয়ে যানবাহানের অবাধ চলাচলে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। তারা ভাষ্য, বিশ্ববিদ্যালয় শুধু পড়ার জায়গা নয়, চিন্তা করার জায়গাও। এরজন্য দরকার একটি ভালো ও সুস্থ পরিবেশের। কিন্তু বহিরাগত যানবাহনের অবাধ চলাচলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সে পরিবেশ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এতে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব স্বকীয়তায়ও বিনষ্ট হচ্ছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ তানজীমউদ্দিন খান বলেছেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব গাড়ির সংখ্যা বাড়ছে। এরমধ্যে বহিরাগত যানবাহনের অবাধ চলাচলের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের চরিত্র হারিয়ে যাচ্ছে।’

আরবী বিভাগের শিক্ষার্থী ওয়াসিফ বলেছেন, ‘মাঝে মাঝে মনে হয় এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস না, গুলিস্তানের কোনো সড়ক। অবাধ যানচলাচলের কারণে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসেও যানজটের কবলে পড়তে হয়। এমন কোনো দিন নেই, নীলক্ষেত মোড়ের জ্যাম এফ রহমান হল পর্যন্ত আসে না।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে বহিরাগত যান চলাচলের বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাবির প্রক্টর অধ্যাপক ড. এ এম আমজাদ আলী বলেন, বহিরাগত বড় গাড়ি যেন প্রবেশ না করে সেজন্য পুলিশকে বলা আছে। তবে মাঝে মাঝে কিছু হয়তো ঢুকে যায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, টিএসসি’র মোড় থেকে এস এম হলের সামনে দিয়ে প্রায় সময়ই বড় যানবাহন চলাচল করছে। যার ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে যানবাহনের চাপ বাড়ছে। যানজটে পড়ছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বড় যান চলাচল রোধে সমাধান কী জানতে চাইলে ঢাবি প্রক্টর অধ্যাপক আমজাদ আলী বলেছেন, ‘বড় গাড়ি যাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে প্রবেশ করতে না পারে সেজন্য উচ্চতামাফিক স্ট্যান্ড বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে।’

যত্রতত্র পার্কিংয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক বলেছেন, ‘এটা নিয়ে রিপোর্ট করো, যাতে সবাই সচেতন হয়।’ কিন্তু এ সমস্যার সমাধান কি, জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেছেন, ‘এটাই এখন সমাধান। যাতে সবাই সচেতন হয়। ভবিষ্যতে ভবন করতে হলে পরিকল্পনামাফিক করতে হবে।’

শুধু ক্যাম্পাসই নয়, অনেক হলের মাঠেও বহিরাগত গাড়ি পার্কিং করা হচ্ছে নিয়মিত। বিভিন্ন হলের সামনে দেখা যায়, খেলার মাঠ দখল করে রয়েছে বেশ কিছু প্রাইভেট কার, ভ্যান, ঠেলা গাড়ি। সাথে অস্থায়ী দোকানও রয়েছে।

শুধু পার্কিং নয়, সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বিভিন্ন রাজনৈতিক সমাবেশের কারণেও বন্ধ হয়ে যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের রাস্তা। এতে ভোগান্তিতে পড়তে হয় শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। রাজনৈতিক সমাবেশের দিন টিএসসিসহ আশপাশের পাশের রাস্তা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় গাড়ি পার্কিং করা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে। এতে দুর্ভোগে পড়তে হয় বাইরে থেকে ক্লাস করতে আসা শিক্ষার্থীদের।

রাজনৈতিক সমাবেশের সময় গাড়ি রাখার অনুমতি নেওয়া হয় কিনা, জানতে চাইলে ঢাবি প্রক্টর আমজাদ আলী বলেছেন, ‘ফোনে অনুমতি নেওয়া হয়। তবে হয়তো কেউ গাড়ি এদিক সেদিক করে রাখে।’

মার সংবাদ/এসজে/২৬ জুলাই ২০১৭

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।