অধ্যাপক নিগ্রহ কাণ্ডে সাসপেন্ড অভিযুক্ত টিএমসিপি নেতা গৌরব


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2018-03-01 15:16:54 BdST | Updated: 2018-12-16 04:02:23 BdST

অধ্যাপক নিগ্রহে যুক্ত তৃণমূল ছাত্র পরিষদ নেতাকে সাসপেন্ড করছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। গত ৬ ফেব্রুয়ারি রাজাবাজার সায়েন্স কলেজ ক্যাম্পাসে ভাস্কর দাস নামে এক অধ্যাপক ওই নেতার হাতে নিগৃহীত হন। অভিযুক্তের নাম গৌরব দত্ত মুস্তাফি। বুধবার বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত নিয়ামক সিন্ডিকেট ওই ছাত্রকে ‘শো-কজ’ করেছে।

উপাচার্য সোনালি চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছেন, অভিযুক্তকে ১৫ দিনের মধ্যে জানাতে হবে কেন তাঁকে সাসপেন্ড করা হবে না। প্রসঙ্গত, তৃণমূল ছাত্র পরিষদের ওই নেতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে স্প্যানিশে সার্টিফিকেট কোর্সে পড়েন। নিগৃহীত ভাস্করবাবু ওই ছাত্রর বহিষ্কার চেয়ে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করেছিলেন। অভিযুক্তকে যাতে কয়েক বছর কোনও ক্যাম্পাসে ঢুকতে না দেওয়া হয় সেই আরজিও জানিয়েছেন অধ্যাপক। তবে এই বিষয়ে এদিন সিন্ডিকেটে আলোচনা হয়নি বলে জানিয়েছেন উপাচার্য।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি হলেন শিক্ষক মারে অভিযুক্ত গৌরব!

আমহার্স্ট স্ট্রিট থানাতেও অভিযুক্তের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের হয়েছে। নিগৃহীত অধ্যাপকের কাছে আগেই শিক্ষামন্ত্রী জানতে চেয়েছিলেন তিনি অভিযুক্ত ছাত্রের কী শাস্তি চান। ভাস্করবাবু বলেছিলেন, কড়া শাস্তি না হলে ফের এই ঘটনা ঘটবে। অভিযুক্ত ছাত্র যাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও ক্যাম্পাসে অন্তত দু’বছর না ঢুকতে পারে তা নিশ্চিত করার আরজি জানিয়েছিলেন অধ্যাপক। একইসঙ্গে দু’বছরে যাতে কোনও কোর্সেও ওই ছাত্রকে ভর্তি না নেওয়া হয় সেই আরজিও জানান।

 গৌরবের নিগ্রহের শিকার শিক্ষক 

এই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের এক আধিকারিক জানিয়েছেন, সরাসরি কাউকে বহিষ্কার করা যায় না। আগে শো-কজ এবং পরে সাসপেন্ড করা যায়। কর্তৃপক্ষ এদিনের সিদ্ধান্ত সেই ইঙ্গিতই দিচ্ছে। রাজাবাজার সায়েন্স কলেজ ক্যাম্পাসে ঢুকে অধ্যাপককে মারধর করে ওই ছাত্র। একইসঙ্গে অধ্যাপকের চাকরি খেয়ে নেওয়ার হুমকিও দেওয়া হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য তাঁর সঙ্গে দেখা করে পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন।

বিডিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।