ভালোবাসা দিবস অনেকেরই বাড়তি চিন্তাভাবনার কারণ: ড. পেট্রা


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2018-02-12 19:37:51 BdST | Updated: 2018-05-22 02:20:31 BdST

১৪ ফেব্রুয়ারি ভ্যালেন্টাইন্স ডে উপলক্ষে অনেক মানুষই নিজেদের সঙ্গীর সঙ্গে উপহার বিনিময় কিংবা ঘুরে বেড়ান। অনেকেই আবার ঠিক কী করতে হবে, তা নিয়ে উদ্বিগ্ন থাকেন। সম্প্রতি ড. পেট্রা বয়নটন জানিয়েছেন এ সম্পর্কে একটি বিশ্লেষণ। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে টেলিগ্রাফ।

বছরের একটি নির্দিষ্ট সময়ে বহু মানুষই উদ্বেগের মাঝে পড়েন। এ সময়ে উদ্বেগের মূল কারণ ভ্যালেন্টাইন্স ডে। এ দিনটিকে কিভাবে কাটানো যায় কিংবা কোন উপায়ে তাকে মনের মাঝে স্থান করে দেওয়া যায় তা নিয়ে অনেকেরই চিন্তার শেষ নেই। এ মনোভাব অনেকটা এমন, ‘আমার কিছু একটা করা উচিত কিন্তু আমি ঠিক কী করব তা বুঝতে পারছি না।’

এটি অনেকেরই বাড়তি চিন্তাভাবনার কারণে হতে পারে বলে মনে করছেন ড. বয়নটন। তিনি জানান, যে কোনো বিষয়ে অতিরিক্ত আশাবাদী হয়ে উঠলে এমনটা হতে পারে। আপনি যদি সঙ্গীকে কার্ড কিনে দেন কিংবা একটি রোমান্টিক সন্ধ্যা কাটান তাহলে কি বিষয়টি ভালোভাবে সম্পন্ন হবে?

ভ্যালেন্টাইন্স ডে বর্তমানে অত্যন্ত বাণিজ্যিক হয়ে পড়েছে। আর এখানে ছোটখাট উপহার কিংবা অন্য কোনো সাধারণ উপায়ে দিনটি পালন করা পৃথক কোনো বিষয় নয়। এটি বড় সংস্কৃতির একটি ছোট অংশ বলেই মনে করেন ড. বয়নটন।

আপনার সঙ্গীর প্রতি ভালোবাসা প্রকাশের বহু উপায় রয়েছে। আর এখানে একটি নির্দিষ্ট দিনকে বড় করে পালন করে কোনো বাড়তি লাভ নেই। তার বদলে সঙ্গীর মতামত জেনে নেওয়া অনেক ক্ষেত্রে কার্যকর হতে পারে। সবাই একটি দিনে ভালোবাসা প্রকাশকে ভালো চোখে নাও দেখতে পারে। তাই সবগুলো দিনকেই ভালোবাসা দিবস মনে করা হতে পারে একটি ভালো উপায়।

যে কোনো দুজন ব্যক্তি সম্পর্ক গড়তে চাইলে একে অন্যকে কাছে পাওয়ার জন্য মনের ভাব প্রকাশ অত্যন্ত জরুরি। আর এক্ষেত্রে উভয়ের মতামত অনুযায়ী নানা উপায়ে তা প্রকাশিত হতে পারে। এজন্য নিজের কাছে সৎ থাকতে হবে এবং কৃত্রিম কোনো বিষয়ে নয় বরং নিজের মনের চাহিদা বুঝে নিতে হবে।

বিডিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।