অমর একুশে গ্রন্থমেলায় সপ্তাহে শীর্ষে কবিতার বই


Dhaka
Published: 2020-02-09 04:09:53 BdST | Updated: 2020-04-04 04:42:59 BdST

শীতের আকাশ বিকেল থেকেই মেঘ করেছিল। আশংকা ছিল বৃষ্টির, হয়নি। তবে হিম বাতাসটা ভুগিয়েছে বেশ। তাতে ছন্দপতন হয়নি আরেক ছুটির দিনের বইমেলার।

এমনিতেই অমর একুশে বইমেলার সপ্তাহ ঘুরেছে। সপ্তম দিনে মেলায় দর্শক পাঠক গেলো দিনের মতো না হলেও কম ছিল না। বিক্রিও ছিল প্রকাশকের প্রত্যাশার সঙ্গে তাল মিলিয়ে। কর্মদিবসের পাঁচটি দিনের পর ছুটির এই দুটি দিনের অপেক্ষাতেই ছিলেন তারা।

সপ্তম দিনে নতুন বই এলো ১৭২টি। আর সাত দিনে ৮১২টি। এর মধ্যে সংখ্যায় এগিয়ে কবিতা ২৩১টি, এরপর উপন্যাস ১৭০টি, গল্প ১০১টি আর প্রবন্ধের বই ৫২টি।

এদিন আসা বইয়ের মধ্যে আবদুল গাফফার চৌধুরীর ‘বঙ্গবন্ধু মধ্যরাতের সূর্যতাপস’ প্রকাশ করেছে আগামী প্রকাশনী। কবি হাবিবুল্লাহ সিরাজীর ‘প্রকৃতি ও প্রেমের কবিতা’ প্রকাশ করেছে বাংলাপ্রকাশ। কথাপ্রকাশ এনেছে সুমন্ত আসলামের ‘প্রধানমন্ত্রী প্রতিদিন চা খেতে আসেন আমাদের বাসায়’। পাঞ্জেরী থেকে প্রকাশিত হয়েছে সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলামের উপন্যাস ত্রয়ী, বদিউর রহমানের দর্শনের সমস্যা ও শাহরিয়ার খানের ‘বেসিক আলী ১২’।

মূলমঞ্চে আলোচনার বিষয় ছিল সপ্তম দিনে বাংলা একাডেমি থেকে প্রকাশিত এম আবদুল আলীমের বই ‘বঙ্গবন্ধু ও ভাষা আন্দোলন’ নিয়ে। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অপরেশ বন্দোপাধ্যায়। সভাপতিত্ব করেন জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম।

চৈতন্য থেকে প্রকাশিত হয়েছে সাদিয়া মাহজাবীন ইমামের ‘বৈদিক পাখির গান’। সন্ধ্যায় লিটল ম্যাগ চত্বরের পাশে চৈতন্যের স্টলের সামনে দাঁড়িয়ে বলছিলেন, ‘বৈদিক পাখির গান’ ব্যক্তিগত নিরীক্ষা ও খেয়ালের বই। প্রকরণ নির্ধারণে আকিকার মতো নামকরণ করতে হয়, তাই বলা হচ্ছে গল্পগ্রন্থ। আসলে এটি গল্প, গদ্য, ভ্রমণ, পাঠ প্রতিক্রিয়া সবমিলিয়ে।

আরও একটু বিস্তারিত জানতে চাইতেই বললেন, য়াসুনারি কাওয়াবাতা ‘থাউজেন্ড ক্রেনস’ উপন্যাসে হাজার সারসে প্রত্যাশার গল্প বলেছিলেন, সেই বই পড়তে গিয়ে মাথায় ঢুকলো, এক বৈদিক পাখির পৌরাণিক মিথ। আর লেখক হিসেবে চাইলাম, সে গান গেয়ে উঠুক নানারকম করে। যেমন নারায়ণ স্যান্যালের বিশ্বাসঘাতকের ‘ক্লাউস ফুকস’ হয়েছে আমার আত্মসাৎ গল্পের একজন। বা রোহিনটন মিস্ত্রির ফাইন ব্যালেন্সের পার্শিয়ান দিনা দালালদের গল্পের অভিঘাত ৪২/১ নম্বর বাড়ি গল্পটি।

সাদিয়া যখন কথা বলছিলেন ওপাশে তখন হাতছানি দিচ্ছিল লিটল ম্যাগ চত্বর। এবারের বাংলা একাডেমির বহেড়া চত্বর থেকে সোহরাওয়ার্দী প্রান্তে স্থানান্তরিত লিটল ম্যাগ চত্বর প্রথম সপ্তাহেই বেশ জমে উঠেছে। লিটল ম্যাগ মারমেইডের সম্পাদক তৌহিদ ইমাম যদিও বলছিলেন, এখনো পরিচিত হয়ে ওঠেনি চত্বরটি। তবু সারাদেশ থেকে দেড় শতাধিক লিটল ম্যাগ অংশ নিচ্ছে এবারের মেলায়। অর্ধশতাধিক এরই মধ্যে প্রকাশ করেছে বইমেলা সংখ্যা।

এদিনও সকালটা ছিল শিশুপ্রহর। সিসিমপুর চত্বরে ছোট ছোট পাঠকদের সঙ্গে আড্ডা দিতে আসেন মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলার। এ সময় তিনি মেলায় বিভিন্ন স্টল ঘুরে দেখেন।

রোববার আবারও মেলা শুরুর সময় বিকেল তিনটায় ফিরবে। চলবে রাত নয়টা পর্যন্ত।