মানবিক ইতিহাস || সহস্র সুমন


Dhaka
Published: 2020-05-07 04:00:36 BdST | Updated: 2020-06-02 10:23:24 BdST

আজ কিছু নির্দিষ্ট মানুষের কথা হোক,
সেবক সেবিকা বদ্যির কথা হোক,
ব্যাংকারের মুঠো ভর্তি টাকার কথা হোক,
টাকা ভর্তি জীবাণুদের কথা হোক।
আধা বিচারের ও সমন্বয়ের কথা হোক,
পুলিশের কথা হোক।
কৃষক ও কৃষি দপ্তরের কথা হয়ে যাক আজ,
গণ মাধ্যম যেন স্বচ্ছতার কাঁচ,
পরিচ্ছন্ন সংবাদের কথা হোক।
আজ কিছু সত্য অসত্য মিলে আবেগীয় যুদ্ধের গান হোক।

বলছি না পংক্তিমালা শত ভাগ শুদ্ধ,
নয় পুরো কবিতা, নয় পুরো গদ্য।

সেবক - সেবিকা জানে জীবনের মানে,
নিদারুণ পরিশেষ গোরস্থান অথবা শ্মশানে।
সকলের প্রাণ আজ হয়েছে দামী,
নিজেরটা বাঁচাতে গেলে হতে হয় আসামী,
সে হৃদয়ের দ্বন্দ্বের কথা হোক।
সে অন্তরের বিস্তৃতির কথা জানা দরকার,
আমাদের সবার,
যে লাশ শুয়ে আছে পাশে, তার জানা দরকার আছে,
শেষ অবধি, অসহায় বদ্যি চেয়েছে বাঁচা‌তে,
উন্মুক্ত হোক সাদা এপ্রোনের হাহাকার।
ছেড়ে সন্তান, ফুটফুটে শিশু নিজ পরিবার।

আজ কিছু পুলিশের কথা হোক,
উর্দির নিচে পোড়া চামড়া, মাঠে ময়দানে বলো খাটে যারা,
রোদে উত্তাপে শাণিত হৃদ যন্ত্রের কথা হোক।
লাশে ভাসা গন্ধে, খাটিয়া স্কন্ধে,
রেশন চালে ত্রাণের কথা হোক।
বুঝে দেখো আজ, যখন
সব ফেলে কাজ পড়েছি নিরাপদ সাজ, রয়েছি অন্দরে,
যত যাক ঝড়, বাজ মরমর পরুক তাদের ঘাড়ে,
আহারে,
আজ সেই পোড়া পুলিশের কথা হোক।

নির্বাহীর কথা হোক, সেবকের কথা হোক, আধা বিচারের কথা হোক,
প্রশাসন আজ করে না কি কাজ?
ছেড়ে রং সাজ, নারী নির্বাহী ছুটছে সকাল সাঁঝ।
চুন থেকে পান খসে গেলে মান, থাকে না কিছু বাকি,
তবু মুছে আঁখি, দিয়ে এক ঝাকি, ভুলে যায় অভিমান।
সেই মানবীয় হৃদয়ের কথা হোক।
হাভাতের দেশে, প্রতিকূল পরিবেশে করতে সমন্বয়,
সে যে কি জ্বালা, বিজয়ের মালা এতোটা সহজ নয়।
চাল ডাল ত্রাণ, ঘরে লোক আটকান,
সেবকের বেশে, অসহায় দেশে, তারা মহাপ্রাণ।

আসি কৃষি দপ্তরে, ভাতের কপাল যেন শনি চক্করে,
এমনও দিনে হতে পারে ত্রাতা, কৃষকের ভ্রাতা,
না হলে যে ক্ষতি, শেষ পরিণতি, দুর্ভিক্ষের ক্ষপ্পরে।

অর্থের ধরাধাম, ব্যাংক তার নাম,
এক দিন না আসলে এখানে, নিদ্রা হারাম।
তাই বলি ভাই, চাই চাই চাই,
নগদ কিছু পয়সা কড়ির কথা হোক।
ভাইরাস- যুদ্ধ যাই হয় হোক,
টাকা কড়ি বিষয়ে মোর আছে বেশ ঝোক।
ব্যাংকার সুদখোর, ঋণ পুঁজি ঘুষখোর
আজ তবে কেন দাদা, গায় মেখে বালু কাদা,
পায় হেটে দপ্তরে যাচ্ছে যারা, এরা কারা?

সেনা বাহিনীর কথা হোক, এক ধারে অদেখা সৈন্য,
ওধারে লাখো লাখো বাঙ্গালি বইন্য,
কার্তুজ ছাড়া তাদের কোথা থেকে কেন করা ভাড়া?
খুন নয় ভাই, বাঁচাতে যে চাই, উপায় খুজে হইন্য।

আমরা বাঙ্গালি, আমরা মানুষ
কে কি করো, কি পরিচয়, সব ভুলে আজ মানুষের হাত ধরো।
করোনার কাল, মরণের জাল, মহামারী দূর করো।

যে যেথা আছো, গৃহ মাঝে বাঁচো,
ধর্মের গান, সমাজের জান, আইনের মান রাখো।

কুলি মজদুর, পোশাক শ্রমিক, তরকারি বেচা লোক,
তাদেরই তো মুলুক, তাদেরই জমিন, আমরা আগন্তুক।

যে অচেনত, নয় সচেতনত বেহুদা নাগরিক,
শোন না বারণ, তোমারই কারণ পেতে হয় শত ধিক।

এবারে আসল মাত মাতি, কিছুতেই যাবে না দুর্গতি,
প্রয়োজন প্রতিশ্রুতিশীল রাজনীতি,
হে জনগণের প্রতিনিধি হটাও হটাও দুর্নীতি।

এসো এসো সব, ডেকে যাই রব,
যত মাথা এক করি আজ, নিন্দা ভুলে করে যাই কাজ,
ভুলে যাই যত হিংসা উপহাস,
লিখে ফেলি এক মানবিক ইতিহাস।

 সহস্র সুমন আলোচিত কবিতা "এ যাত্রায় বেঁচে গেলে" এর লেখক এবং বাংলাদেশ সরকারের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব