শিশু বলাৎকারের অভিযোগে মাদরাসা শিক্ষক গ্রেফতার


Chattagram
Published: 2020-10-20 23:58:03 BdST | Updated: 2020-11-29 02:13:52 BdST

চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগে নাছির উদ্দিন নামে এক কওমি মাদরাসা শিক্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

জানা যায়, একেকদিন একেক শিশুকে ডেকে পাঠাতেন নিজ কক্ষে। দিনের পর দিন শিশুদের ওপর এভাবে যৌন নির্যাতন চালিয়েছেন চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ার আহমদিয়া আজিজুল উলুম মাদরাসার শিক্ষক নাছির উদ্দিন। তবে শেষ রক্ষা হয়নি। ধরা পড়েছেন পুলিশের হাতে। সব অপকর্মের কথা স্বীকার করে আদালতে দিয়েছেন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি।

রাঙ্গুনিয়া সার্কেলের এএসপি আনোয়ার হোসেন জানান, ছোট শিশুদের প্রতি প্রবলভাবে যৌনাসক্ত মাদরাসা শিক্ষক নাছির। বিকৃত এই যৌন কামনা চরিতার্থ করতে প্রতি রাতে একেক শিশুকে কক্ষে ডেকে নিতেন। শিক্ষকতার আড়ালে দীর্ঘদিন ধরে বলাৎকার করে আসছেন মাদরাসার আবাসিক শিক্ষার্থীদের।

মঙ্গলবার বিকেলে চট্টগ্রামের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শিপলু কুমার দে’র আদালতে দেওয়া মোহাম্মদ নাছির উদ্দিনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতেও অকপটে প্রকাশ করেছেন তার কুকীর্তি। বলাৎকারের শিকার ৪ শিশু আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে তাদের ওপর নাছিরের চালানো বিকৃত যৌন নির্যাতনের বর্ণনা দিয়েছে।

রাঙ্গুনিয়া থানা পুলিশকে ওই শিশুরা জানিয়েছেন, শিক্ষক নাছির উদ্দিন কোন রাতে কোন শিশুকে তার কক্ষে যেতে হবে, তা রীতিমতো রুটিনের মতো করে দিয়েছিলেন। কোনো ছাত্র রাজি না হলে তার ওপর নেমে আসতো নির্যাতনের খড়গ। ফলে বাধ্য হয়েই তার শয্যাসঙ্গী হতো কোমলমতি শিশুরা।

স্থানীয়রা জানান, কক্সবাজারের চকরিয়ার বেউলা নিবাসী নুরুল ইসলামের ছেলে নাছির বছর দুয়েক আগে রাঙ্গুনিয়ার ওই মাদরাসায় আবাসিক শিক্ষক হিসেবে যোগ দেন। গত ১৯ অক্টোবর সোমবার সন্ধ্যায় বেশ কয়েকজন অভিভাবক তাদের শিশু সন্তানকে বলাৎকার করার বিষয়ে রাঙ্গুনিয়া মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ তৎপর হয়। রাতেই চট্টগ্রাম জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল) আনোয়ার হোসেন শামীমের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে নাছিরকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এএসপি আনোয়ার হোসেন জানান, ধর্ষণ করার জন্য মূলত দশ বছরের নিচের ছেলে শিশুদেরকেই টার্গেট করতেন নাছির। যেহেতু মাদরাসাটির বেশিরভাগ শিশুই এতিম/দরিদ্র পরিবার থেকে আসা, ফলে তাদের কোনো উপায় থাকতো না। নাছিরের ছেলেশিশু আসক্তি এমন পর্যায়ে উন্নীত হয়েছিলো যে, বিষয়টি টের পেয়ে তার স্ত্রী তিন বছরের সন্তানকে নিয়ে তাকে ছেড়ে চলে গেছেন।