'পড়াশোনার পাশাপাশি রাজনীতি, রাজনীতির পাশাপাশি পড়াশোনা নয়'


আসিফ তালুকদার
Published: 2019-08-06 09:41:25 BdST | Updated: 2019-12-06 08:44:03 BdST

যে সকল শিক্ষার্থীরা রাজনীতি সচেতন তাদের ভেতর কিছু পরিবর্তন চোখে পড়ার মতন৷ প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় বছর গুলো কাটে স্বপ্নের মতন৷ গ্রাম কিংবা শহরের বদ্ধ ঘরের গন্ডি পেরিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মতন বিশাল বড় একটি পর্যায়ে এসে আমরা অনেক ক্ষেত্রে নিজেদের ধরে রাখতে পারিনা৷ রক্তের টানে গড়া অভিভাবকদের ছেড়ে যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা প্রবেশ করি তখন আমাদের থেকে তুলনামূলক একটু সিনিয়র নিজেদের অজান্তেই আমাদের অভিভাবক হয়ে যায়৷ তাদের কথা গুলো যেন আমাদের কাছে শিরোধার্য হয়ে যায়৷ চোখ বুজে বিশ্বাস করি সব কিছু৷ যেখানে ডাকে সেখানে যাই, যা করতে বলে তাই করি৷ কিন্তু কখনো নিজের সাথে নিজে কথা বলে নিজেকে আবিষ্কারের চেষ্টা করি না৷ আমরা সময় মতো বুঝতে পারিনা বা আমাদের কেউ বুঝিয়ে বলে না আসলে বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীর প্রথম এবং মৌলিক কাজ হলো পড়াশোনা করা৷ পড়াশোনা হলো প্রথম কাজ।

কিন্তু শুধু পড়াশোনা কি যথেষ্ট একটি পূর্ণাঙ্গ জীবনের জন্য ? পড়াশোনার বাইরে আমরা অনেক সহ শিক্ষাক্রমিক কাজ করে থাকি৷ কেউ রাজনীতি করি আবার কেউ বিভিন্ন সামাজিক- সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত থেকে ইতিবাচক কাজের মাধ্যমে নিজেদের সমৃদ্ধ করি৷ লেখাপড়ার পাশাপাশি সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ কিন্তু ঝুঁকির কাজ হলো না বুঝেই অন্ধের মতন রাজনীতির পথে সামিল হওয়া৷

রাজনীতির এই অনিশ্চিত পথে আমরা যারা বিচরণ করি তারা সাধারণত ভাবি যে রাজনীতি মানেই হলো যেকোন উপায়ে একটি পদে অধিষ্ঠিত হওয়া৷ রাজনীতির মোহ এমন মোহ না বুঝে এই মোহে নিজেকে জড়িয়ে ফেললে পড়াশোনা হয়ে যায় চতুর্থ বিষয় আর ধ্যান-জ্ঞান হয়ে যায় একমাত্র রাজনীতি৷ আমরা যখন পড়াশোনা থেকে দূরে গিয়ে রাজনীতিটাকে আঁকড়ে ধরে চলতে থাকি বুক ভরা স্বপ্ন নিয়ে তখন অধিকাংশ ক্ষেত্রে রাজনীতিতে যখন আশানুরূপ ফল না পাই তখনই হতাশা দানা বাঁধে বুকে৷ কারণ পড়াশোনার সাথে অনেক আগেই থেকেই আমাদের আলোকবর্ষ দূরত্ব সৃষ্টি হয়ে যায়৷

সচেতন নাগরিক হিসেবে রাজনীতি সচেতন হতে হবে, সক্রিয়ভাবে রাজনীতির সাথে সংযুক্ত থাকতে হবে কিন্তু পড়াশোনা ঠিক রেখে; এই কথাটা আমাদের বাস্তবিকভাবে ক'জন বলে ? ছেলেটা যোগ্য, তোকে দিয়ে রাজনীতি হবে, তোর মতন ছেলের রাজনীতিতে থাকা উচিৎ এমন কথার সাথে যারা মনে করিয়ে দেয়না যে পড়াশোনা ঠিক রেখে সব কিছু করো আপাতদৃষ্টিতে তাদের যতই আপন মনে হয় জীবনের সব থেকে বড় ক্ষতি তাদের মাধ্যমেই হয়৷ কিন্তু এই ক্ষতির ব্যাস বুঝে ওঠার আগে জীবনের অনেক মূল্যবান সময় অতিবাহিত হয়ে যায় ভুল পথে, কিছু ভুল মানুষের সাথে৷

আমি বলবো, রাজনীতির পথটা খুব আঁকাবাঁকা, খুব পিচ্ছিল। এই আঁকাবাঁকা পিচ্ছিল পথে কেউ পা'য়ে হেঁটে নিজেদের প্রমাণ করে লক্ষ্যে পৌঁছাতে চায় আবার কেউ অলৌকিক ক্ষমতা জোরে নামমাত্র ভূমিকা নিয়ে আকাশপথে উঁড়ে সবার আগে লক্ষ্যে পৌঁছে যায়৷ আর তখন পা'য়ে হেঁটে যোগ্যতা প্রমাণ করে আঁকাবাঁকা পিচ্ছিল পথের পথিকেরা হতাশার গহবরে নিজেদের আবিষ্কার করে৷ হতাশা আরো বেশি আচ্ছাদন করে যখন আমরা আবিষ্কার করি রাজনীতির পথে হাঁটতে গিয়ে অচেনা মোহে পড়ে পড়াশোনার টেবিল থেকে আমরা আমাদের অজান্তেই আলোকবর্ষ দূরে হারিয়ে গিয়েছি৷

এমন একটা মানুষ খুঁজে তার সান্নিধ্যে থাকা উচিৎ যে কিনা এই শিক্ষা দিবে যে পড়াশোনার পাশাপাশি রাজনীতি করো কিন্তু রাজনীতির পাশাপাশি পড়াশোনা করোনা। তাহলে আমাদের রাজনীতি থেকে হতাশা কমে যাবে আর জাতি পাবে একঝাঁক রাজনীতি সচেতন তরুণ- মেধাবী নেতৃত্ব যাদের হাতে বিনির্মাণ হবে আগামীর বাংলাদেশ।

আত্মহত্যা করা একটি মেয়ের টেবিলে একটা সুইসাইড নোট পেয়েছিলাম৷ লেখা ছিল...
"Do or Die, Read or Cry"

লেখকঃ আসিফ তালুকদার,  ডাকসুর সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও সাহিত্য সম্পাদক,  বাংলাদেশ ছাত্রলীগ