নতুন বছরের নতুন পরিকল্পনা


Dhaka
Published: 2020-12-31 11:47:24 BdST | Updated: 2021-01-24 02:30:32 BdST

আর মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরেই শুরু হবে নতুন বছর। সঠিক পরিকল্পনা কিংবা যথার্থ প্রস্তুতির অভাবে অনেকেই হয়তো বিগত বছরে মনের মতো পেশায় যোগ দিতে পারেননি। কারও আবার একটা চাকরির খোঁজ মিললেও নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি সম্পূর্ণরূপে। নিজের বর্তমান পেশায় অপ্রাপ্তি বা অতৃপ্তির কারণে ভাবনায় আসতে পারে নতুন কিছু করার পরিকল্পনা। নতুন কোনো চাকরি বা পেশা বদলের পরিকল্পনা থাকলে বছরের শুরু থেকেই সক্রিয় হতে হবে।

নিজেকে প্রশ্ন করুন, কোন পথে যাবেন
যেকোনো কার্যসিদ্ধির জন্য আগে দরকার কার্যকর সিদ্ধান্ত নেওয়া। মুহূর্তের ভুল সিদ্ধান্ত পেশাগত জীবনে চরম ভোগান্তি সৃষ্টি করতে পারে। আবেগতাড়িত বা অস্থির না হয়ে সুস্থিরভাবে ভেবে ঠিক করুন নতুন বছরের গতিপথ। পরামর্শ নিতে পারেন অভিজ্ঞজনের। পারিবারিক বা পারিপার্শ্বিক প্রত্যাশার চাপ তো থাকবেই। তবে নিজের ইচ্ছেটাকেই প্রাধান্য দিতে হবে সবার আগে। নিজের অন্তর্নিহিত সামর্থ্যকে জাগিয়ে তোলার পাশাপাশি চিহ্নিত করুন নিজের সীমাবদ্ধতাগুলোকে। এরপর সাজিয়ে ফেলুন সারা বছরের পরিকল্পনা। বছরের শুরুতেই একটি ভালো পরিকল্পনা আপনাকে অনেকখানি এগিয়ে রাখবে প্রতিযোগিতার দৌড়ে।

এখনই, এখান থেকেই
সাতপাঁচ ভাবলে পিছিয়ে পড়তে হয়। তাই সময় ক্ষেপণ না করে পরিকল্পনা অনুযায়ী বছরের শুরু থেকেই কাজ শুরু করে দিন। এখনই উপযুক্ত সময়। হাতছাড়া হয়ে গেলে হা-হুতাশ থাকবে পুরো বছর। আপনি যদি কোনো বহুজাতিক প্রতিষ্ঠান, উন্নয়ন সংস্থা ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান কিংবা সরকারি চাকরি পেতে চান, প্রস্তুতি শুরু করতে হবে এখনই। আপনার লক্ষ্য যা-ই হোক না কেন, বছরের শুরুটাকেই কাজে লাগান। প্রয়োজনীয় তথ্য হালনাগাদ করে নতুনভাবে সাজান জীবনবৃত্তান্ত। আপনি যদি অন্য কোনো চাকরিতে কর্মরত থাকেন সেখান থেকেই দৃঢ় দৃষ্টি রাখুন কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যের দিকে।

ঝোঁকের বশে ঝঁুকি নয়
বর্তমান চাকরিতে প্রতিকূল কর্মপরিবেশ, প্রত্যাশার তুলনায় অপ্রতুল বেতন-ভাতা, বসের সঙ্গে বনিবনার অভাবসহ নানা কারণে আপনি পেশা বা কর্মক্ষেত্র পরিবর্তনের ঝঁুকি নিতে পারেন। তবে নতুন কোনো পেশায় যাওয়ার ক্ষেত্রে সতর্ক ও সংযমী হওয়াই বুদ্ধিমানের কাজ। ঝোঁকের বশে ঝুঁকি নেওয়ার সিদ্ধান্ত আত্মঘাতী হতে পারে। পেশা পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে সমাধানের উপায় আছে কি না ভেবে দেখুন। অফিসের ঊর্ধ্বতন কারও সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলোচনার পর সিদ্ধান্ত নিন। কর্মপরিকল্পনা করে ও বাস্তবায়নের সর্বাত্মক প্রচেষ্টা আপনাকে পৌঁছে দিতে পারে সাফল্যের শীের্ষ।

‘যুক্ত করো হে সবার সঙ্গে’
যোগাযোগজালে যুক্ত রাখুন নিজেকে। প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে নিজের যোগাযোগের দক্ষতা বাড়ান। পেশাসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান ও পত্রিকার পাতায় নিয়মিত চোখ রাখলে উপকার আসে। ফেসবুক, লিংকড ইনসহ নানা মাধ্যমকে ব্যবহার করতে পারেন। নিজে থেকেই নিজের জীবনবৃত্তান্ত পাঠিয়ে রাখতে পারেন জব পোর্টালগুলোতে। এগুলোতে চাকরিদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর চাহিদা জানা যায়। এ ছাড়া অভিন্ন লক্ষ্যে গড়ে উঠেছে ফেসবুকভিত্তিক নানা গ্রুপ। এসব গ্রুপে যুক্ত থাকলে বিভিন্নজনের মতামত, আলোচনা থেকে প্রয়োজনীয় তথ্য পাওয়া যায়। যেকোনো পেশা নিয়ে ধারণা স্পষ্ট হয়। নিজের প্রস্তুতিও শাণিত করা যায়। বছরের শুরু থেকেই যোগাযোগের সব মাধ্যমে সরব থাকার জন্যও পরিকল্পিতভাবে অগ্রসর হোন। যেমন নিয়মিত মেইল চেক করা, ফেসবুকে উঁকি দেওয়া, জবসাইটগুলোতে চোখ বোলানো, মাসে অন্তত একবার পরিচিত পেশাজীবীদের সঙ্গে কথা বলা। দেখবেন অচিরেই নিজের একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্ক তৈরি হয়ে গেছে। আপনার শক্তিশালী নেটওয়ার্ক, সুদৃঢ় অবস্থান সহজেই পৌঁছে দেবে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে; সাফল্যের শীর্ষে।

লেখক: নাজমুল হুদা, সহকারী পরিচালক, বাংলাদেশ ব্যাংক