কোটা সংস্কার কেন প্রয়োজন?


মুহাম্মদ হামেদুর রহমান 
Published: 2018-02-24 12:09:44 BdST | Updated: 2018-06-21 16:05:20 BdST

পৃথিবীতে শুধুই আমরা করছি না কোটা সংস্কারের জন্য আন্দোলন,অনেক দেশে কোটার বিরুদ্ধে লিগ্যাল স্যূট পর্যন্ত হয়েছে।আমেরিকার মিসিগান,ক্যালিফোর্নিয়া, ফ্লোরিডা,নেব্রাস্কা,অ্যারিজোনা, ওয়াশিংটন, ওকলাহোমা,নিউ হ্যাম্পশায়ার,জর্জিয়া, টেক্সাসে রেসিয়াল কোটা নিষিদ্ধ পর্যন্ত করেছে।অামেরিকায় কোটাধারীরাও কোটার বিরুদ্ধে দাঁড়ায়ছিল কারণ তাদের অভিযোগ কোটায় ভর্তি হওয়ায় তাদেরকে সবাই ভিন্ন ভাবে দেখে, এইরকম বহু ছাত্র ছাত্রী কোটা সুবিধা বাতিলের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করেছিল উল্লেখ্য আমেরিকায় কোটা সিস্টেম Affirmative action নামে পরিচিত।

এই হল ইতিহাস আর আমরা বাঙালিরা মানুষের দয়ায় বাঁচতে অভ্যস্ত।ভারতেও কোটা আছে। ভারতের ইতিহাসে বেশ কয়েকবার সংবিধান সংশোধন করা হয়েছে।২০১১ সালে এলাহাদাবাদ আদালত গোটা ভারতীয় সাংবিধানিক কোটা প্রথাকে চ্যালেন্জ করে এবং অসাংবিধানিক ঘোষণা করে। উল্লেখ্য ভারতীয় কোটা প্রথাকে Reservation system বলে।

২০ তম থেকে ৩৩তম পর্যন্ত কোটার প্রয়োগটা ছিল এক রকম কিন্তু ৩৪ তম বিসিএস থেকে ভিন্ন আঙ্গিকে কোটার প্রয়োগ হয়।পূর্বে প্রিলি,লিখিত,মৌখিক পরীক্ষার পর চূড়ান্ত ভাবে কোটা প্রয়োগ করা হত কিন্ত ৩৪তম বিসিএস থেকে প্রিলিমিনারীতে কোটা প্রয়োগ করা শুরু হয়।দেখা গেল ১০০ নম্বরের পরীক্ষায় কেউ কেউ ৭৫-৮০ পেয়েও ক্যাডার কপালে জুটে নাই অন্যদিকে কেউ কেউ ৪০-৫০ পেয়েও ক্যাডারের স্বাদ গলাধকরণ করল।একজন সিরিয়ালে ২০০ তম হয়েও নরকে অন্যদিকে কেউ সিরিয়ালে ৫০০০ তম হয়েও স্বর্গে যাওয়ার টিকেট নিশ্চিত করতে পারলো।

দেশে মোট নিবন্ধিত মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা ১লাখ ৬৮ হাজার যা মোট জনসংখ্যার ০.২% ও না তাদের জম্য ৩০% কোটা আর দেশের লাখ লাখ ছাত্রের জন্য ৪৫%।৩৭ তম বিসিএসে পরীক্ষার্থী ছিল ২ লাখ ৪৪ হাজার, ৩৮ তম তে২০২৪ টি আসনের বিপরীতে ৩ লাখ ৮৯ হাজার যা প্রতি আসনে ১৭১ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে।দিন প্রতিযোগীর সংখ্যা জ্যামিতিক হারে বাড়ছে।দেশের জন্য যারা জীবন দিয়েছেন তাদের সমান কেউ হতে পারে না।প্রথমে কোটা সুবিধায় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি তারপর আবার কোটায় চাকরিটাও দিয়ে দিলেন।কেন?বিশ্ববিদ্যালয়ে যখন ভর্তি হলো কোটা সুবিধায় তখন কি রাষ্ট্র প্রাপ্য সম্মান দেখায় নাই?হাজার হাজার ছাত্র যে দেশে চাকরির অভাবে হন্য হয়ে আজ পথে পথে সেই দেশে ৫৬% কোটা।এতো অভিশাপ।বিশ্ববিদ্যালয় গুলি বন্ধ করে,রাষ্ট্রের মেধাবিদের বিষ খাওয়াই দিলেইতো হয়। সর্বশেষ আমেরিকার প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিন্টনের একটা বাক্য মনে পড়ে গেল,Affirmative action has been good for america and urged the nation to "mend it not end it".তিনি আরও বলেছিলেন কোটা মানেই একজন মেধাবিকে বাদ দিয়ে নয়। কোটা বাতিলের দাবি নিয়ে আসিনি, সংস্কারের দাবি নিয়ে এসেছি।

লেখকঃ মুহাম্মদ হামেদুর রহমান 
শিক্ষার্থী, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

মুক্তমতের জন্যক্যাম্পাসটাইমস কোনভাবে দায়ী থাকিবে না

বিডিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।