চাঁদপুর নার্সিং ইনস্টিটিউটে ধারণ ক্ষমতার তিনগুণ শিক্ষার্থীর বসবাস


চাঁদপুর টাইমস
Published: 2017-07-30 06:16:18 BdST | Updated: 2019-10-15 03:39:34 BdST

ধারণ ক্ষমতার তিনগুণ শিক্ষার্থী নিয়ে চলছে চাঁদপুর নার্সিং ইনস্টিটিউট। এতে শ্রেণিকক্ষ, আবাসিক সুবিধা, পরিবেশ এবং বিশুদ্ধ পানির সংকট ছাড়াও রয়েছে শিক্ষক স্বল্পতা। শুধু তাই নয়, সংস্কার না করায় ভবনটিও ঝুঁকিপূর্ণ। কর্তৃপক্ষের আশা, সংকট সমাধানে এগিয়ে আসবে সরকার। খবর সময় সংবাদের।

চাঁদপুর শহরের কবি কাজী নজরুল ইসলাম সড়কের পাশে নার্সিং ইন্সটিটিউট। সরকারি প্রতিষ্ঠান হওয়ায় সারাদেশ থেকেই নারী শিক্ষার্থীরা এখানে পড়াশোনা করতে আসেন। চারতলা একটি ভবনেই চলছে প্রতিষ্ঠানটির সকল কার্যক্রম। প্রশাসনিক, শ্রেণীকক্ষ এবং শিক্ষার্থীদের আবাসন এ ভবনেই।

ধারণ ক্ষমতার প্রায় তিনগুণ নিয়ে চলতে থাকায় প্রতিনিয়ত অসুস্থ হচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। শুধু তাই নয়, প্রতিষ্ঠানের পাশে ডাস্টবিন ও ট্রাক স্ট্যান্ড থাকায় দেখা দিয়েছে পরিবেশ বিপর্যয়। এমন কি সংস্কার না করায় ভবনটিও ঝুঁকিপূর্ণ। এই নিয়ে রয়েছে শিক্ষার্থীদের নানা অভিযোগ।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, ‘এক রুমের মধ্যে ৮/১০ জন করে থাকতে হচ্ছে। আর এখানে কোনো ক্যান্টিনও নাই যে আমরা বাহিরের কিছু খাবার খেতে পারবো। তাছাড়া বিশুদ্ধ পানির সঙ্কট ছাড়াও রয়েছে শিক্ষক স্বল্পতা।’

এদিকে দীর্ঘদিন ধরে শিক্ষক স্বল্পতার কারণে শ্রেণির পাঠদান চালাতে হিমসিম খাচ্ছেন শিক্ষকরা।

এখানে ১২ জন শিক্ষকের বিপরীতে আছেন ৭ জন এবং তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির ২০ জন কর্মচারীর মধ্যে দায়িত্ব পালন করছেন মাত্র একজন। এসব সমস্যার কথা স্বীকার করে কর্তৃপক্ষ জানায়, সরকার একটু আন্তরিক হলে এমন পরিস্থিতির উন্নতি ঘটবে।

চাঁদপুর নার্সিং ইন্সটিটিউট ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা স্বরস্বতী অধিকারি বলেন, ‘শিক্ষা, কর্মচারী ও আবাসন থাকার সত্ত্বেও আমরা শিক্ষার কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। আর যদি কর্তৃপক্ষ একটু দৃষ্টি দেন তাহলে আমরা আরও ভালভাবে কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারবো।’

২০১০ সালে প্রতিষ্ঠিত এই নার্সিং ইন্সটিটিউটে তিন বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইন নার্সিং এ ৫০ জন এবং সাইন্স এবং মিডওয়াইফাই ডিপ্লোমা কোর্সে আরো ২৫ জন মিলে ৭৫ জনের ধারণ ক্ষমতা থাকলেও বর্তমানে এতে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২০৩ জন।

টিআই/ ৩০ জুলাই ২০১৭