ড. কামালের বাসায় ঢুকতে না পেরে ফিরে গেলেন বি চৌধুরী-মাহী


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2018-10-13 19:03:53 BdST | Updated: 2018-12-12 01:20:48 BdST

জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার আহ্বায়ক ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেনের বাসা বন্ধ পেয়ে ফিরে গেলেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও বিকল্পধারা বাংলাদেশের সভাপতি অধ্যাপক বদরুদ্দোজা চৌধুরী এবং তার ছেলে ও দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি চৌধুরী। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন মাহী। সন্ধ্যায় দলীয় কার্যালয়ে এক ব্রিফিংয়ে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানাবেন বলেও জানান তিনি।

এ ঘটনায় বৃহত্তর ঐক্য গড়তে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে বিকল্পধারার দূরত্ব স্পষ্ট হলো। এর আগেও জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার একাধিক কর্মসূচিতে বিকল্পধারার অনুপস্থিতিতে প্রশ্ন উঠেছিল। জাতীয় ঐক্যের নেতারা বলছেন, বিএনপিসহ জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সংশ্লিষ্ট দলগুলো নিয়ে বৃহত্তর ঐক্য প্রক্রিয়া গড়ে উঠলেও তাতে বিকল্পধারা থাকছে না।

জানা গেছে, শনিবার (১৩ অক্টোবর) বিকেলে ড. কামালের বাসায় বৃহত্তর ঐক্য প্রক্রিয়া নিয়ে বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল বিকল্পধারা বাংলাদেশের শীর্ষ দুই নেতাকে। সেই বৈঠকে যোগ দিতেই ড. কামালের বাসায় বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে এসেছিলেন অধ্যাপক বি চৌধুরী ও মাহী বি চৌধুরী। কিন্তু তারা বেইলি রোডের বাসাটিতে পৌঁছালে কেউ তাদের অভ্যর্থনা জানাতে আসেননি। বাসাও বন্ধ ছিল।

পরে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করে বিকেল ৩টা ৪৫ মিনিটের দিকে ড. কামালের বাসা থেকে ফিরে যান বি চৌধুরী ও মাহী বি চৌধুরী।

এসময় উপস্থিত সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে মাহী বি চৌধুরী বলেন, আমরা এখন চূড়ান্ত একটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করব এবং তারপর আমরা বারিধারাতে আমাদের অফিসে ব্রিফিং করব। আমরা মনে করি, এই ঐক্যটা না হওয়ার পেছনে কাদের ষড়যন্ত্র আছে, এটা আজ জাতির সামনে পরিষ্কার হয়ে গেল। বি চৌধুরী একজন শীর্ষ নেতা হওয়ার পরও আজ তিনি নিজে ড. কামাল হোসেনের বাসায় এলেন, তাকে আমন্ত্রণ জানানো হলো; অথচ বাড়ির দরজা খোলার মতো কোনো লোক নেই। এটা কোনো রাজনৈতিক শিষ্টাচারের মধ্যে পড়ে না। ভদ্রতার ভেতরে পড়ে না।

কোন ইস্যুতে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার সঙ্গে বিকল্পধারার মতবিরোধ ছিল, জানতে চাইলে মাহী বলেন, ‘আমরা প্রথম থেকে যেগুলোর কথা বলেছি, সেগুলোই আমাদের ইস্যু। আজ ব্রিফিংয়ে আমরা সেগুলো পরিষ্কার করব।’ এখন বিকল্পধারার একটি বৈঠক হবে এবং সেই বৈঠকেই সবকিছু চূড়ান্ত করা হবে বলেও জানান তিনি।

মাহী বলেন, গণফোরামকে নিয়েও অনেকের সমস্যা ছিল। অনেক আলোচনার পর ঐক্যের কথা মাথায় রেখে বৃহত্তর স্বার্থে তাদের সঙ্গে রেখেছি, নাগরিক ঐক্যকেও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। আমরা সবদিক থেকেই ছাড় দেওয়ার চেষ্টা করেছি। আজ জাতির প্রত্যাশা পূরণ করার জন্য ঐক্য প্রক্রিয়াকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য চেষ্টা করছি। কিন্তু কোনো একটি মহল চায় না ঐক্যটা হোক। তারা কারা এবং কেন তারা ঐক্য চায় না, আজ আস্তে আস্তে বোধহয় বিষয়টি পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে। সত্য আসলে চাপা থাকে না। কারা ঐক্য চাচ্ছে না এবং কেন চাচ্ছে না, সেটাও আজ পরিষ্কার হয়ে গেল।

এদিকে, বিকল্পধারার দুই শীর্ষ নেতাকে বাসায় আমন্ত্রণ জানালেও ড. কামাল হোসেন আজ (শনিবার) সকাল থেকেই তার চেম্বারেই অবস্থান করছেন। জানা গেছে, সেখানে দফায় দফায় বৈঠক চলছে। এসব বৈঠকে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর থেকে শুরু করে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জেএসডি) সভাপতি আ স ম আবদুর রব ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাসহ জাতীয় ঐক্যের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত রয়েছেন। এই বৈঠকে বৃহত্তর ঐক্য প্রক্রিয়া এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার রূপরেখাসহ বিকল্পধারার অন্তর্ভুক্তি প্রধান্য পাচ্ছে বলে জানা গেছে।

এর আগে, শনিবার সকালে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ার একাধিক নেতা সারাবাংলাকে বলেন, ব্যারিস্টার মঈনুল ইসলাম ও ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরীসহ একাধিক নেতা এই আন্দোলন প্রক্রিয়ায় বিকল্পধারা সভাপতি বি চৌধুরী ও দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মাহী বি চৌধুরীকে না রাখার পক্ষে মত দিয়েছেন। এই দু’জন ভিন্ন কৌশলে চলছেন বলে মনে করছেন তারা।

সবশেষ জানা গেছে, জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় বিকল্পধারার দুই শীর্ষ নেতা অধ্যাপক বি চৌধুরী ও মাহী বি চৌধুরীকে না রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। এদিকে, বিকল্পধারার সিনিয়র সহসভাপতি শাহ আলম বাদল সারাবাংলাকে জানান, বিকল্পধারা থেকে বেরিয়ে এসে জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।