সনি হত্যার পর বুয়েট অ্যালামনাই কোথায় ছিল? প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্নোত্তর


Dhaka//Prothomalo
Published: 2019-10-14 13:24:22 BdST | Updated: 2019-11-18 00:51:21 BdST

২০০২ সালের ৪ জুন বুয়েটে ছাত্রদলের দুই গ্রুপের গোলাগুলিতে নিহত হন কেমিকৌশল বিভাগের ছাত্রী সাবেকুন নাহার সনি। এরপর ২০ জুলাই একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় ওই আইন কার্যকর করার সিদ্ধান্ত হয়। এতে বলা হয়, ক্যাম্পাসে সভা-সমাবেশ ও মিছিলে অংশগ্রহণ বা কর্মসূচি নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হলো।

২০০২ সালে একাডেমিক কাউন্সিলের সভা শেষে ঘোষিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছিল, বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যাদেশ অনুসারে বুয়েট শিক্ষার্থীরা কোনো রাজনৈতিক দলের অঙ্গসংগঠনের সদস্য হতে বা তার কার্যক্রমে অংশ নিতে পারেন না। এই শৃঙ্খলাবিধি তাঁদের যথাযথভাবে পালন করতে হবে এবং তা অমান্য করলে যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সনি হত্যার ১৭ বছর পরে গতকাল রোববার রাতে ওই আইন ও সিদ্ধান্ত অকার্যকর থাকার জন্য রাজনৈতিক দলগুলোকে দায়ী করেছেন একজন প্রবীণ শিক্ষাবিদ। তিনি বুয়েট শিক্ষক সমিতির সভাপতি ও ডিএসডব্লিউর দায়িত্বেও ছিলেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে গত রাতে তিনি বলেন, রাজনৈতিক দলগুলো প্রশ্রয় দিয়েছে। বিভিন্ন সময়ে তারা তাদের ছাত্র শাখা কমিটি ঘোষণা করেছে। আর তাতে ইন্ধন জুগিয়েছে শিক্ষকদের একটি ছোট গ্রুপ। এসব কারণে ছাত্রসংগঠন নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করা সম্ভব হয়নি।

জাতীয় অধ্যাপক জামিলুর রেজা চৌধুরী গত রাতে বলেন, বুয়েট আইন তো মানতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যদিও প্রশ্ন তুলেছেন যে সনি হত্যার পরে বুয়েট অ্যালামনাই কোথায় ছিল। কিন্তু বুয়েট অ্যালামনাই প্রতিষ্ঠিত হয় ২০০৭ সালের পরে। সনি হত্যার পরের সিদ্ধান্তগুলো এবং অধ্যাদেশ অকার্যকর থাকা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর উচ্চপর্যায়ের সদিচ্ছা দরকার। বুয়েটকে বাঁচাতে হলে, বিশেষ করে ক্ষমতাসীন দলকে অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে। দলগুলো যদিও দাবি করে ছাত্রসংগঠনগুলো তাদের অঙ্গ নয়, কিন্তু কার্যত তারা দলগুলোরই অংশ। ৯০ শতাংশ ছাত্রই ভয়ে দলগুলোর চাপের কাছে আত্মসমর্পণ করে।