সাবেক অর্থমন্ত্রীকে জড়িয়ে অপপ্রচারের বিরুদ্ধে পরিবারের প্রতিবাদ


Dhaka
Published: 2020-06-26 09:23:38 BdST | Updated: 2020-07-12 15:40:25 BdST

সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ও তার ছেলে সাহেদ মুহিত সম্পর্কে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যা অপপ্রচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছে পরিবার।

সম্প্রতি অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী এক ব্যক্তি ফেসবুকে সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ও তার ছেলে সাহেদ মুহিতকে জড়িয়ে একটি পোস্ট দিয়েছেন। পোস্টে তিনি বলেছেন সাবেক এ মন্ত্রীকে তার নিজের বাড়িতে উঠতে দিতে চাইছিলেন না ছেলে সাহেদ মুহিত। ইতিমধ্যেই এ পোস্টটি ভাইরাল হয়েছে।

এ বিষয়ে সাহেদ মুহিত তার পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিত একটি প্রতিবাদ পাঠিয়েছেন। প্রতিবাদে বলা হয়েছে সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সাবেক অর্থমন্ত্রী এবং সিলেট-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আবুল মাল আব্দুল মুহিত এবং তার পরিবারের ব্যাপারে একটি তথাকথিত সংবাদ প্রচার করা হয়েছে যেটি সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও মিথ্যা।

প্রতিবাদে বলা হয়, জাতীয় দুর্যোগের এ কঠিন সময়ে অসৎ উদ্দেশ্যে এক বা একাধিক স্বার্থান্বেষী এবং কুরুচিপূর্ণ মহল মুহিতের মতো একজন অত্যন্ত সম্মাণীয় ব্যক্তি ও তার পরিবারের সুনাম নষ্ট করার অপচেষ্টায় কেন লিপ্ত হয়েছে, তা আমাদের বোধগম্য নয়।

ছেলে ও ছেলের বৌ

মুহিত একাধারে একজন মুক্তিযোদ্ধা, একজন রাজনীতিবিদ এবং একজন স্বনামধন্য বুদ্ধিজীবী, যিনি তার সমগ্র জীবন দেশ এবং দেশের মানুষের কল্যাণে উৎসর্গ করেছেন। তার ছেলে, সাহেদ মুহিত এবং তার পরিবারও দেশের প্রতি আত্মনিবেদনের একই শিক্ষায় উদ্বুদ্ধ। সিলেট ও গোটা বাংলাদেশে তাদের যথেষ্ট সুনাম রয়েছে।

বিগত দুই দশক ধরে মুহিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় পর্যায়ের এবং সিলেটের অতি বিশিষ্ট ও বিদগ্ধ নেতা হিসেবে সর্বজন পরিচিত। তিনি বাংলাদেশের অন্যতম সফল দীর্ঘকালীন অর্থমন্ত্রী, বাংলাদেশের ঈর্ষণীয় ও দেশ-বিদেশে প্রশংসিত অর্থনৈতিক উন্নয়নে যার উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে। গত ২০০১ সাল থেকে সাহেদ মুহিত সর্বতভাবে তার বাবা মুহিতের পাশেই রয়েছেন এবং তাকে পারিবারিক, রাজনৈতিক এবং অন্যান্য সব ব্যাপারে সহায়তা করেছেন। এছাড়া বাবার নির্বাচনী এলাকা সিলেট-১ এর এলাকাবাসিদের পাশে সাহেদ মুহিত সবসময় ছিলেন, আছেন ও থাকবেন।

প্রতিবাদে আরও বলা হয়, সর্বজন শ্রদ্ধেয় জননেতা মুহিত ও তার পরিবারবর্গের ব্যাপারে প্রকাশিত এই নির্লজ্জ মিথ্যাচারের বিরুদ্ধে কঠোর প্রতিবাদ ও নিন্দা জ্ঞাপন করা হচ্ছে।