বিএনপি কোটা আন্দোলনের ওপর ভর করছে


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2018-07-09 17:09:25 BdST | Updated: 2018-09-24 20:28:08 BdST

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মানুষ এখন নির্বাচনের দিকে ঝুঁকে গেছে। এ সময়ে খালেদা জিয়াকে নিয়ে বা তাঁর মুক্তি নিয়ে কারও মাথাব্যথা আছে বলে মনে হয় না। তিনি আরও বলেন, বিএনপি এখন কোটা সংস্কার আন্দোলনের ওপর ভর করছে।

রাজধানীর বনানীতে সেতু ভবনে আজ সোমবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের এ মন্তব্য করেন।

সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, `আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়া যদি বেরিয়ে আসেন, তাহলে তো মুক্ত হচ্ছেন। আইনি প্রক্রিয়ার বাইরে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার অন্য কোনো পথ আমাদের জানা নেই।' তিনি বলেন, `এখন বিএনপি বলছে তারা আন্দোলন করে তাঁকে মুক্ত করবে...দেখা যাক।'

সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, আন্দোলন করার মতো জনসমর্থন বিএনপির নেই। তাই তারা কোটা সংস্কার আন্দোলনের ওপর ভর করেছে; এখান থেকে যদি আন্দোলনের কোনো ইস্যু করা যায়—এটাই তাদের দুরভিসন্ধি। তিনি আরও বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানও কোটা সংস্কারের আন্দোলনে জড়িয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষককে ফোন দিয়েছিলেন, এটা সবারই জানা।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি বাংলাদেশের মানুষ পুড়িয়ে মারার আন্দোলন করে ব্যর্থ হয়েছে। বাংলাদেশের মানুষ এ ধরনের আন্দোলনকে প্রত্যাখ্যান করেছে। জনগণকে সম্পৃক্ত করে যে আন্দোলন, সেই আন্দোলন করতে গিয়ে তারা বারবার ডাক দিয়েছে। কিন্তু জনগণ সাড়া দেয়নি।

কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে বিএনপি নেতাদের বক্তব্যের জবাবে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাদের বলেন, সরকারের যেকোনো কথা, যেকোনো আশ্বাস বিএনপির কোনো দিনই পছন্দের নয়। সরকার যা-ই করে, তাতে বিএনপির কোনো আস্থা নেই। এ ব্যাপারে তাদের কোনো সায় নেই।

কোটা সংস্কার বিষয়ে সেতুমন্ত্রী বলেন, মন্ত্রণালয়ের সচিবদের দিয়ে প্রধানমন্ত্রী একটি কমিটি করে দিয়েছেন। সেই কমিটি তাদের কার্যক্রমের প্রথম মিটিং করেছে। কিছু তথ্য-উপাত্তের জন্য দেশে, বিদেশে খোঁজখবর করবে। বিষয়টি জটিল। কাজেই এ বিষয়টি হুট করে সমাধান করা যাবে না। সরকারের আন্তরিকতা, সদিচ্ছার সামান্যতমও কমতি নেই।

আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত সবাইকে ধৈর্য ধরার আহ্বান জানিয়ে সেতুমন্ত্রী কাদের বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেখানে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, একটি শক্তিশালী কমিটি করে দিয়েছেন। কমিটিও তাদের তৎপরতা শুরু করে দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে কমিটির কাজ এগিয়ে চলছে। এই কর্মকাণ্ডের ওপর আস্থা রেখে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধৈর্য ধরে কিছুটা সময় অপেক্ষা করার জন্য অনুরোধ করছি। প্রধানমন্ত্রী যা বলেন, তা করেন। তিনি কথা দিলে কথা রাখেন।

বিএনপিকে ভারত কিছুতেই ভরসা করবে না, দিল্লিতে এইচ টি ইমামের এমন বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, এইচ টি ইমাম সম্পর্কে গণমাধ্যমে যে খবর এসেছে, সেটি তিনি তাঁর (এইচ টি ইমাম) সঙ্গে আলাপ করে চেক করার সুযোগ পাননি। কারণ তিনি নয়াদিল্লি থেকে বেলজিয়ামের ব্রাসেলসে ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের একটি অনুষ্ঠানে গেছেন। বিষয়টি তাঁর কাছে চেক না করে কোনো মন্তব্য করা উচিত হবে না। তিনি আরও বলেন, ‘এরপরও আমি একটি বিষয় সাধারণভাবে বলতে পারি, ভারত একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশ। ভারত অন্য কোনো দেশের সরকারি, বেসরকারি, রাজনৈতিকসহ অন্য কোনো দেশের লোককে পাত্তা দিল কি দিল না, এটা আমাদের বলার বিষয় নয়। এইচ টি ইমাম যদি ওই মন্তব্য করে থাকেন, তাহলে তিনি সঠিক বলেননি। তিনি বলেছেন কি না, সেটি আমাকে নিশ্চিত হতে হবে।’

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।