জমে উঠেছে গণ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ নির্বাচন


মোহাম্মদ রনি খাঁ
Published: 2018-02-14 12:48:19 BdST | Updated: 2018-10-16 15:08:42 BdST

জাতীয় নেতৃত্বে শূন্যতা সৃষ্টি হওয়ার প্রধান কারণ ছাত্র সংসদ নির্বাচন না থাকা । ভালো জাতীয় নেতৃত্ব তৈরির জন্য প্রয়োজন ভালো ছাত্র নেতৃত্ব । আর এই মেধাবী ছাত্র নেতৃত্ব তৈরির লক্ষ্যে সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে আগামীকাল ১৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের তৃতীয় কার্যনির্বাহী কমিটির নির্বাচন।

প্রার্থীরা নিজেদের ভোটের পাল্লা ভারী করতে শিক্ষার্থীদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। ফলে বিশ্ববিদ্যালয়ের আশপাশের এলাকা নির্বাচনী ইমেজে সরগরম হয়ে উঠেছে। সেই সাথে চলছে শেষ মূহুর্তের প্রচার-প্রচারণা।

নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, আগে দুটি পদে নির্বাচন হলেও এবার প্রথম ৬টি পদে নির্বাচন অনু্ষ্ঠিত হবে। ৬টি পদের বিপরীতে এবার ২৩ জন প্রার্থী চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকায় স্থান পেয়েছেন। পদগুলো হলো সহ-সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক, কোষাধ্যক্ষ, ক্রিয়া সম্পাদক, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক, প্রচার ও সমাজসেবা সম্পাদক।

নির্বাচন সামনে রেখে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। শিক্ষার্থীরা নিজেদের পছন্দের প্রার্থীর জন্য ভোট চাইছেন। শিক্ষার্থীদের দাবী সৎ, যোগ্য, শিক্ষা বান্ধব ও শিক্ষার্থীদের কল্যাণে কাজ করবে এমন প্রার্থীকেই তারা এবার নির্বাচিত করবেন।

সহ-সভাপতি (ভিপি) পদের জন্য ৩ জন প্রার্থী শেষ সময়ের প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন জুয়ের রানা ( ভাষা-যোগাযোগ ও সংস্কৃতি বিভাগ), মোঃ সুজন রানা ( রাজনীতি ও প্রশাসন বিভাগ ) ও মোঃ জহিরুল ইসলাম ( রাজনীতি ও প্রশাসন বিভাগ ) । এর মধ্যে দুই জন প্রার্থী ভিপি পদে সাধারণ শিক্ষার্থীদের মতে, প্রচারণায় এগিয়ে আছেন জুয়ের রানা ( ভাষা-যোগাযোগ ও সংস্কৃতি বিভাগ), মোঃ সুজন রানা ( রাজনীতি ও প্রশাসন বিভাগ )।

সহ-সভাপতি (ভিপি) প্রার্থী ভাষা যোগাযোগ ও সংস্কৃতি বিভাগের স্নাতকোত্তর এর শিক্ষার্থী জুয়েল রানা তার নির্বাচনী ইশতেহারে শিক্ষার্থীদের পাশে থেকে ক্যাম্পাসের সুনাম বজায় রেখে ক্যাম্পাসের উনন্নয়ন, প্রশাসনিক জটিলতা (থাকলে) দূর, লাইব্রেরি সমৃদ্ধ, ক্যান্টিনের মান উন্নয়ন ,ক্যাম্পাসের অন্য যে সকল সংগঠন রয়েছে তার আধুনিকরণ ও উন্নয়ন করবে বলে উল্লেখ করেন ।

জুয়েল রানা আরও জানান, আমি নির্বাচিত হলে ছাত্র সংসদের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের কল্যাণে ছাত্র কল্যাণ ফান্ড থেকে শুরু করে খেলাধোলা সহ প্রতিটি ছাত্র কল্যাণমূলক কাজে শিক্ষার্থীদের সাথে নিয়ে কাজ করে যাবো। ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের মাঝে আন্তরিকতা ও ভালোবাসার বন্ধন সৃষ্টি করবো। ডিবেটিং ক্লাব, চলচিত্র সংসদ চালু, ল্যাম্প পোস্টের ব্যবস্হা করা। গণতান্ত্রিক ধারায় শিক্ষার্থীদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের লক্ষে সর্বাত্মক চেষ্টা অব্যাহত রাখবো। এজন্য সকল শিক্ষার্থীকে পাশে চান ও সমর্থন আশা করেন।

অপর সহ-সভাপতি (ভিপি) প্রার্থী রাজনীতি ও প্রশাসন বিভাগের মোঃ সুজন রানা তার নির্বাচনী ইশতেহারে ছাত্র ছাত্রীদের সকল কাজে পাশে থাকার কথা জানিয়েছেন। এছাড়াও শিক্ষার্থীদের সকল সুযোগ সুবিধা প্রদান। যার মাধ্যমে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় একটি আধুনিক বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে উঠতে পারে। ছাত্র ছাত্রীদের বিভিন্ন বিষয়ে জরিমানা (বৈধ) কমানোর কথা বিশেষভাবে উল্লেখ করেন তিনি। শিক্ষার সুষ্ঠ পরিবেশ নিশ্চিত করা।

সাধারণ শিক্ষার্থীদের মাঝে আসন্ন ছাত্র সংসদ নির্বাচন নিয়ে চলছে বাড়তি উত্তেজনা । সরেজমিনে ক্যাম্পাস ঘুরে জানা যায়, তারা যোগ্য প্রার্থীকেই ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবে । তবে কারও কারও মুখে, গত নির্বাচনে প্রতিশ্রুতি দিয়ে রাখেনি অনেকেই এমন মন্তব্য শোনা গেছে। এবার তারা সেই ভুল আর করবে না, যোগ্য ও সৎ ব্যাক্তিকেই ভিপি নির্বাচিত করবে বলে জানান ।

তবে সকল প্রার্থী সুষ্ঠ নির্বাচন হবে এই আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এবং সকল প্রার্থী সুষ্ঠ নির্বাচনের জন্য একযোগে কাজ করবেন বলে জানান।

প্রধান নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম জানান, গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নির্বাচন-২০১৮ তে কোনো ধরনের প্রতীক বা ব্যালট নাম্বার দেওয়া হচ্ছে না, চূড়ান্ত প্রার্থীর নামের উপর ভিত্তি করে ব্যালট পেপার তৈরি করা হবে।

ছাত্র সংসদ উপদেষ্টা মীর মুর্ত্তজা আলী বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম গতিশীল করা, অরাজনৈতিক ছাত্র নেতৃত্ব সৃষ্টি করা এ নির্বাচনের লক্ষ্য।প্রতি বছর নির্বাচন আয়োজন করা সম্ভবপর না হওয়ায় ছাত্র সংসদের মেয়াদকাল ১ বছর থেকে বাড়িয়ে ২ বছর করা হয়েছে।

উল্লেখ্য; বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে একমাত্র গণ বিশ্ববিদ্যালয়ে রয়েছে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ। এটি হচ্ছে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় ছাত্রসংসদ নির্বাচন ।

টিআই/ ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।