খুলে গেলো টিএসসির বন্ধ চায়ের দোকান, জমেছে আড্ডা


ঢাবি টাইমস
Published: 2019-02-07 19:36:32 BdST | Updated: 2019-04-20 09:12:27 BdST

৩১ জানুয়ারি থেকে বন্ধ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) এলাকার দোকানগুলো খুলে দিয়েছে  ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা। যদিও অন্যান্য বছর ফেব্রুয়ারি মাসজুড়ে বইমেলার নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে বন্ধ রাখা হয় এসব দোকান-পাট। 

বৃহস্পতিবার বিকাল ৪টায় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতাদের উপস্থিতিতে এই দোকানগুলো খুলে দেয়া হয়। যদিও এসব দোকান বন্ধের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানিয়েছিল বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন। কারও কথায় কাজ না হলেও ছাত্রলীগের তত্ত্বাবধানে খুলে দেয়া হয়েছে দোকান পাট। 

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক গোলাম রব্বানি বলেন, দোকানীদের মানবিক বিষয়ে বিবেচনা করে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনুমতি নিয়ে খুলে দেয়া হয়েছে।

এর আগে বইমেলায় নিরাপত্তা জনিত কারণে ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) এলাকার সব দোকানপাট বন্ধের নির্দেশ দিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন। বইমেলার শেষপর্যন্ত দোকানগুলো বন্ধ রাখার নির্দেশনা ছিল।

গোলাম রব্বানি বলেন, এখানে যারা চায়ের দোকান করেন তাদের একমাত্র আয়ের উৎস এই দোকানগুলো। তাদের মানবিক দিক বিবেচনা করে দোকানগুলো খুলে দেয়া হয়। তিনি বলেন, তাদের মধ্যে একজন কনা। কনা এই দোকান করে এইচএসসি পাশ করেছে। এটি জানার পর গোলাম রব্বানি ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে তাকে একমাসের মধ্যে চাকরি পেতে সহায়তা করার ঘোষণা দেয়। এদিকে, কনা টিএসএসসিতে চায়ের দোকান করে তার মায়ের ক্যান্সারের চিকিৎসা করার খরচ চালায়। অন্যজন হলো আবদুল জলিল (স্বপন মামা)। তিনি ১৯৮৪ সাল থেকে টিএসসিতে দোকান করছেন।

তিনি বলেন, এর আগে প্রধানমন্ত্রীর বইমেলা উদ্বোধনে আসলে নিরাপত্তা জনিত কারণে এই দোকানগুলো তুলে দেয়া হয়। অনেক শিক্ষার্থী এখানে আড্ডা দেয়, তাদের কিছু খাওয়ার জন্যও এখানের চায়ের দোকান প্রয়োজন।

ঢাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদাম হোসেন বলেন, নিরাপত্তার কাঁচি দিয়ে ক্যাম্পাসের স্বাধীনতা কেড়ে নেয়া যাবে না। উন্মুক্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উন্মুক্তই থাকবে। টিএসসির চায়ের দোকানগুলোর উপর বাধা-নিষেধ তুলে নিতে হবে।

সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস বলেন, ছাত্রলীগের উদ্যোগে টিএসএসির দোকানগুলো খুলে দেয়া হয়। শিক্ষার্থী ও দোকানদারের মানবিক দিক বিবেচনা করে এই উদ্যোগ নেয়া হয়।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।