এক মিনিটের জন্যও বুয়েট ক্যাম্পাসে দেখা যায়নি ভিসি, ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা


Dhaka
Published: 2019-10-08 15:43:09 BdST | Updated: 2019-10-15 06:04:07 BdST

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার ঘটনার ৪৮ ঘণ্টা পেরোতে চললেও উপাচার্য অধ্যাপক সাইফুল ইসলামকে প্রকাশ্যে দেখা যায়নি। এ নিয়ে ক্ষোভ জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। আজ মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটার মধ্যে তিনি সশরীরে এসে এ বিষয়ে জবাবদিহি না করলে কঠোর কর্মসূচির হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তাঁরা।

গতকাল সোমবার উপাচার্য তাঁর কার্যালয়ে গিয়েছিলেন বলে জানা গেছে। সেখানে তিনি শিক্ষকদের সঙ্গে একটি সভায়ও অংশ নেন। তবে যেখানে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে, সেই শের-ই-বাংলা হলে তাঁকে দেখা যায়নি। এমনকি প্রকাশ্যে কোথাও দেখা যায়নি তাঁকে। তাঁর প্রকাশ্যে না আসার বিষয়টি নিয়ে শিক্ষার্থীরা ক্ষুব্ধ। বুয়েট শহীদ মিনারে জড়ো হয়ে শিক্ষার্থীরা আজ সকালে উপাচার্যকে এ বিষয়ে জবাবদিহি করার আহ্বান জানান।

গত রোববার দিবাগত রাত তিনটার দিকে বুয়েটের শের-ই-বাংলা হলের একতলা থেকে দোতলায় ওঠার সিঁড়ির মাঝ থেকে আবরারের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। জানা যায়, ওই রাতেই হলটির ২০১১ নম্বর কক্ষে আবরারকে পেটান বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতা। ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক জানিয়েছেন, তাঁর মরদেহে অসংখ্য আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। আবরার বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭ তম ব্যাচ) শিক্ষার্থী ছিলেন। এই ঘটনায় পুলিশ ইতিমধ্যে ৯ জনকে গ্রেপ্তার করেছে, ছাত্রলীগ ১১ জনকে বহিষ্কার করেছে আর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন তদন্ত কমিটি গঠন করেছে।

আবরার হত্যায় জড়িতদের সর্বোচ্চ শাস্তিসহ ৭ দফা দাবিতে আজ সকাল থেকেই ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করছেন বুয়েট শিক্ষার্থীরা। হত্যার ঘটনায় বিক্ষুব্ধ ও মর্মাহত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে ছাত্ররাজনীতি বন্ধের দাবি জানিয়েছেন। শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সংহতি জানিয়েছেন বুয়েট শিক্ষক সমিতি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক মিজানুর রহমান।

সকালে বুয়েটের শহীদ মিনারে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশকালে বুয়েট শিক্ষক সমিতির সভাপতি এ কে এম মাসুদ বলেন, ‘ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সম্পূর্ণরূপে ব্যর্থ হয়েছে। আমরা শিক্ষার্থীদের সব দাবির সঙ্গে একমত।’