বাস ওভারটেককে কেন্দ্র করে মিরপুরে ঢাবি-জবি সংঘর্ষ


ঢাবি টাইমস
Published: 2019-11-21 21:11:52 BdST | Updated: 2019-12-14 02:39:54 BdST

বাসের ওভারটেক-কে কেন্দ্র করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ঢাবির বিশ্ববিদ্যালয়ের দ্বিতীয় বর্ষের এক শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। তবে এখনও তার নাম জানা যায়নি।

বৃহস্পতিবার  সন্ধ্যায় মিরপুরের সনি সিনেমা হলের সামনে এঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী ও চৈতালি বাসের সাধারণ সম্পাদক ঢাবি শিক্ষার্থী মাসুদ রানা জানান, দুটি বাস একত্রে চলছিল। হঠাৎ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে আসলে তারা এমন বাজেভাবে আমাদের বাসকে ওভারটেকিং করে যেটার কারণে আমাদের অনেক শিক্ষার্থী বোন বাসের ভেতর পড়ে যায়। পরে শ্যামলী আসলে আমরা তাদের থামিয়ে জিজ্ঞেস করি যে, এটা কোন ধরনের ওভারটেকিং। তখন বাসের এক স্টাফ আমাদের সাথে দুর্ব্যবহার করে। পরে অবশ্য জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক সিনিয়র ভাই আমাদের বলেন, সরি মিসটেক হয়ে গেছে। আমরা বললাম দোষ করেছে স্টাফ আপনি বড় ভাই সরি বলার কোনো প্রশ্নই আসেনা। পরে অবশ্যই ওই স্টাফ চাপে পড়ে ক্ষমা চেয়েছে। ব্যাপারটা সেখানেই শেষ হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু এর কিছুক্ষণ পরেই আমরা যখন মিরপুর সনি সিনেমার সামনে আসি এবং অনেকে তাদের স্টপেজ এ নেমে যায়। গাড়িতে মাত্র আমাদের ৬-৭ জন ছিল। সেখানে ছাত্রী বোনেরাও ছিল। দুদিক থেকে দুটো বাস আমাদের বাসকে থামিয়ে বলল, তখনতো অনেক লাফালাফি করছ এখন করো দেখি ইত্যাদি। এসব বলার মধ্যেই আমাদের দ্বিতীয় বর্ষের এক শিক্ষার্থীকে তাদের প্রথম বর্ষের এক শিক্ষার্থী থাপ্পড় দেয়। তখন অবস্থা খানিকটা উত্তপ্ত হয়ে পড়ে। পরে জগন্নাথের সিনিয়ররা আসলে সে ছেলেটি পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলে পুলিশও ছিল।

মাসুদ বলেন, আমরা বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা কতেছি । আশা করি সমাধান হয়ে যাবে।

এ ঘটনায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভুক্তভোগী ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিন্যান্স বিভাগের শিক্ষার্থীর অভিভাবক এমএম কায়সার। তিনি বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে আমাদের ছেলে মেয়েদের পড়তে পাঠায়, মাস্তানি করতে নয়। আমার মেয়ে সে গাড়িতে ছিল। সমস্যা বাড়ছে দেখে ভীতিকর পরিস্থিতিতে সেখান থেকে নেমে পড়ে। সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসায় অনিরাপদ পরিস্থিতি দেখে প্রথমে পায়ে হেটে পরে রিকশা করে বাসায় ফিরে সে।

এবিষয়ে ডাকসুর ছাত্রকল্যাণ ও পরিবহন বিষয়ক সম্পাদক শামস ই নোমান বলেন, আমি মাত্র বিষয়টি শুনেছি। এখনও ডিটেইলস জানিনা। জেনে আপনাকে জানাব। তবে সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে সমাধানে পৌঁছানোর ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রাব্বানী বলেন, এক বাসের সাথে আরেক বাসের ধাক্কাধাক্কি থেকে ঘটনার সূত্রপাত হয়েছে। এতে উভয়পক্ষই মুখোমুখি অবস্থানে চলে যায়। এতে একটা ছেলে চোখে আঘাত পেয়েছে। ওর সাথে আমাদের কথা হয়েছে। তিনি বলেন, উভয় পক্ষের মধ্যে আলোচনা চলছে একটা সম্মানজনক সমাধানে পৌঁছাতে। আমাদের কোনো শিক্ষার্থীর গায়ে হাত দেবে এটা মেনে নেওয়া যায় না। যথোপযুক্ত কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।