মেসে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে ধর্ষণ, রিমান্ডে রাবি ছাত্র


রাবি
Published: 2020-02-11 14:21:56 BdST | Updated: 2020-09-21 01:44:38 BdST

বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীকে মেসে ডেকে ধর্ষণ করে বন্ধুদের দিয়ে ভিডিও ধারণের ঘটনায় রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মাহফুজুর রহমান ওরফে সারদের (২২) দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

সোমবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে তার দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন রাজশাহী মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক সেলিম রেজা। সারদ রাবি শাখা ছাত্রলীগের কর্মী। এ ঘটনায় করা ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি মামলায় আরও চারজনকে গ্রেফতার করেছে মতিহার থানা পুলিশ।

মতিহার থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাসুদ পারভেজ বলেন, ধর্ষণ ও পর্নোগ্রাফি মামলায় মাহফুজুর রহমানের তিনদিনের রিমান্ড চেয়ে রোববার আদালতে আবেদন করা হয়। সোমবার শুনানি শেষে দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। বিকেলে তাকে থানা হেফাজতে নেয়া হয়।

ওসি এসএম মাসুদ পারভেজ বলেন, বেড়াতে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে গত ২৪ জানুয়ারি রাত সাড়ে ৮টার দিকে মাহফুজুর রহমান রাবি ছাত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয়সংলগ্ন কাজলা সাঁকোপাড়া এলাকার মেসে নিয়ে যান। সেখানে ছাত্রীকে ধর্ষণ করে সে। ওই সময় পূর্বপরিকল্পিতভাবে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে তার বন্ধু বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী প্লাবন সরকার, রাফসান, জয়, জীবন এবং বিশাল।

পরে ছাত্রীর কাছে ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে তারা। তাদের দাবিকৃত টাকা না দিলে ধারণকৃত ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে ওই দিন গভীর রাতে ছাত্রীকে ছেড়ে দেয়।

গত ২৭ জানুয়ারি দুপুরে ধর্ষণের শিকার ছাত্রী মতিহার থানায় মামলা করেন। এরপর অভিযান চালিয়ে মাহফুজুর রহমান ও তার দুই বন্ধু প্লাবন সরকার এবং বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র রাফসানকে গ্রেফতার করে পুলিশ। গ্রেফতারের পর তাদের কাছে থেকে ধর্ষণের ভিডিওসহ মোবাইল জব্দ করা হয়।

রোববার মাহফুজুর রহমানের অপর দুই বন্ধু জীবন ও জয়কে গ্রেফতার করা হয়। এর মধ্যে বিশাল নামে এক বন্ধু পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানান ওসি এসএম মাসুদ পারভেজ।