সীমিত পরিসরে শেকৃবির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন


Dhaka
Published: 2020-07-16 15:27:21 BdST | Updated: 2020-08-07 15:05:13 BdST

করোনাভাইরাসের কারণে সীমিত পরিসরে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে। বুধবার (১৫ জুলাই) ছিল বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী।

এদিন বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবনের সামনে রাধাচূড়া গাছের চারা রোপণের মাধ্যমে উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ দিবসটির উদযাপন শুরু করেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে রবৃক্ষরোপণ কর্মসূচি ২০২০ এর উদ্বোধন করা হয়।

বৃক্ষরোপণ কর্মসূচির প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে ‘প্রধানমন্ত্রীর আহ্বান মুজিববর্ষে তিনটি করে গাছ লাগান’। ফলদ, বনজ ও ঔষধি প্রজাতির বৃক্ষসহ সৌন্দর্যবর্ধক বিভিন্ন প্রকার গাছের চারা রোপণ করা হবে এই কর্মসূচিতে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদ, মেডিকেল চত্বর, অফিসার্স ক্লাব চত্বর, পুকুরপাড়, আবাসিক এলাকাসহ সব হলের সামনে বৃক্ষ রোপণ করা হবে, যা মাসব্যাপী চলমান থাকবে। এ বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সহস্রাধিক বৃক্ষ রোপণ করা হবে।

দিবসটি উপলক্ষে উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী শিক্ষার্থী, এলমনাইসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে শুভেচ্ছা জানান।

বৃক্ষরোপণের সময় উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. সেকেন্দার আলী, ট্রেজারার অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ারুল হক বেগ, ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. মিজানুর রহমান, প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. ফরহাদ হোসেনসহ শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন আহাম্মদ বলেন, জাতির পিতা আমাদের একটি দেশ দিয়ে গেছেন। এই দেশটিকে সবার জন্য বাসযোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে। বৃক্ষরোপণ একটি মহৎ কাজ। মুজিববর্ষে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে সহস্রাধিক বৃক্ষরোপণের এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

গাছের চারা রোপণ এবং পরিচর্যার বিষয়ে সবাইকে আরও যত্নবান হবার আহ্বান জানান উপাচার্য।

উপাচার্য আরও বলেন, আমরা ক্যাম্পাসে বনজ, ফলদ, ঔষধিসহ বিভিন্ন ধরনের গাছের সমন্বয়ে দেশের দ্বিতীয় বলধা গার্ডেন তৈরি করব। যেখানে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের গবেষণারও সুযোগ থাকবে। এ বিশ্ববিদ্যালয়কে আরও দৃষ্টিনন্দন করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে জীববৈচিত্র সংরক্ষণ, সৌন্দর্য বর্ধন ও ল্যান্ডস্কেপিংয়ের জন্য ৫০ লাখ টাকার বাজেট রয়েছে।

বৃক্ষরোপণের মাধ্যমেই সীমিত পরিসরে এবার বিশ্ববিদ্যালয়টির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হলো।