জাবিতে ক্ষমতার দ্বন্দ্বে বিভক্ত আওয়ামীপন্থি শিক্ষকরা


জোবায়ের কামাল
Published: 2018-02-19 10:38:11 BdST | Updated: 2018-09-23 05:37:12 BdST

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) উপাচার্য প্যানেল নির্বাচনের জেরে আওয়ামীপন্থি শিক্ষকদের মধ্যে বিভক্ত তৈরী হয়েছে। এতে উপাচার্যপন্থি ছয় শিক্ষককে শোকজ করেছে আওয়ামী লীগপন্থি শিক্ষকদের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’। এই সংগঠনটির নেতৃত্বে থাকা ব্যক্তিদের প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করে সংবাদ সম্মেলন করেছে উপাচার্যপন্থি শিক্ষকরা। রোববার (১৮ ফেব্রুয়ারি) বিকাল সাড়ে ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাফেটেরিয়ার শিক্ষক লাউঞ্জে এ সংবাদ সম্মেলন করেন তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে অধ্যাপক মো. নূরুল আলম বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্যের দায়িত্বে থেকেও সভাপতি ও সম্পাদক দায়িত্ব পালন করছে অধ্যাপক মো. আবুল হোসেন ও অধ্যাপক মো. আমির হোসেন। যা দলটির সংবিধান বহির্ভূত।

ক্ষমতার দাপটে অগণতান্ত্রিকভাবে দলের নেতৃত্ব কুক্ষিগত করে রেখে তাদের ব্যক্তিগত স্বার্থে ত্যাগী নেতাকর্মীদের বিভিন্ন পন্থায় দল থেকে সরিয়ে দেয়ার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। যা কোনভাবেই কাম্য হতে পারে না। বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজের কোন সদস্যকে শোকজের মাধ্যমে ভয় প্রদর্শন করে কোন নির্যাতনকারী এই দলের নেতৃত্বে থাকার যোগ্যতা রাখে না। তাই অবিলম্বে ক্ষমতার লিপ্সা ত্যাগ করে একাধিক দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে ক্ষমতা প্রয়োগের রাজনীতি থেকে বের হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে অধ্যাপক রাশেদা আখতার, অধ্যাপক বশির আহমেদ, সহযোগী অধ্যাপক আশরাফুল আলম, সহকারী অধ্যাপক তাপস কুমার দাস প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে উপাচার্য প্যানেল নির্বাচনের প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে আগামীকাল বেলা ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত উপাচার্য কার্যালয় ভবন অবরোধ করবে শিক্ষক সমাজের একাংশ। যার নেতৃত্ব দিচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আবুল হোসেন ও অধ্যাপক আমির হোসেন।

এমন ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে সহযোগী অধ্যাপক জুলকারনাইন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাদেশ অনুযায়ী উপাচার্যকে পুনঃনিয়োগ দেন। এর বিরুদ্ধে যারা আন্দোলন করবে তারা অযৌক্তক দাবি নিয়ে আন্দোলন করেন।

এ বিষয়ে উপ-উপাচার্য ও শিক্ষক সমাজের সভাপতি অধ্যাপক আবুল হোসেন বলেন, তাদেরকে দলের সিদ্ধান্তানুযায়ী শো’কজ করা হয়েছে।

এ বিষয়ে উপ-উপাচার্য ও শিক্ষক সমাজের সম্পাদক অধ্যাপক আমির হোসেন বলেন, আমার দলে থেকে অনির্বাচিত উপাচার্য রক্ষার জন্য ভূমিকা পালন করবে এটাতো ঠিক না। তাই দলীয় সিদ্ধান্তের আলোকে তাদের শো’কজ করা হয়।

জেএস/ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।