জাবিতে উপাচার্য ভবন অবরোধ আওয়ামীপন্থি শিক্ষকদের


জাবি প্রতিনিধি
Published: 2018-02-19 18:12:19 BdST | Updated: 2018-12-10 09:25:11 BdST

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) কয়েকজন শিক্ষককে উপচার্য ও তার অনুসারী শিক্ষক কর্তৃক ভয়ভীতি প্রদর্শন ও হুমকির প্রতিবাদে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন অবরোধ কর্মসূচী পালন করছে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকরা। এসময় তারা এবং উপাচার্য প্যানেল নির্বাচন ও সিনেটের তলবি সভা আহব্বানের দাবি জানায়।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’র ব্যানারে বেলা ১১টা থেকে ১টা পর্যন্ত এ কর্মসূচী পালন করা হয়।

অবরোধ শেষে সংগঠনটির সম্পাদক ও উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আমির হোসেন বলেন, উপাচার্যের অনুসারী শিক্ষকরা আমাদের গ্রুপের জুনিয়র শিক্ষক থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও বিজনেস স্টাডিজের ডিনকে আমাদের সঙ্গ ত্যাগ করার জন্য হুমকি দিয়েছে। এছাড়া শিক্ষকদেরকে পদ-পদবির প্রলোভন দেখিয়ে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন। আমরা উপাচার্যকে এসব হুমকির বিষয়ে জানানোর পরও তিনি কোন পদক্ষেপ নেয়নি। তাই এর প্রতিবাদে আজকের (গতকাল) এই অবরোধ কর্মসূচী।

উপাচার্য নির্বাচন সম্পর্কে তিনি বলেন, অধ্যাদেশ অনুযায়ী একজন উপাচার্য দু’মেয়াদে নির্বাচন করার যোগ্যতা রাখেন। কিন্তু এই প্রক্রিয়াটা হচ্ছে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে। আট বছর ভিসি থাকতে পারবে তবে প্রতি চার বছর অন্তর নির্বাচনের মাধ্যমে তাকে আসতে হবে।

অবরোধ কর্মসূচীতে সাবেক উপাচার্য ও সিনেট সদস্য অধ্যাপক শরীফ এনামুল কবিরের নেতৃত্বে শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ফরিদ আহমদ, সাধারণ সম্পাদক ফরিদ আহমেদ, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক অসিত বরণ পাল, গাণিতিক ও পদার্থ বিষয়ক অনুষদের ডীন অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার, জীব বিজ্ঞান অনুষদের ডীন অধ্যাপক আব্দুল জব্বার হাওলাদার, সিনেট সদস্য ও পরিসংখ্যান বিভাগের অধ্যাপক মোহাম্মদ আলমগীর কবির, বেগম সুফিয়া কামাল হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক এস এম বদিয়ার রহমান, মীর মোশাররফ হোসেন হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক শফি মোহাম্মদ তারেক, শহীদ সালাম-বরকত হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক কবিরুল বাশার, বেগম খালেদা জিয়া হলের প্রাধ্যক্ষ হোসনে আরাসহ বিভিন্ন বিভাগের প্রায় ৫০ জন শিক্ষক অবরোধ কর্মসূচিতে অংশ নেন।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার উপাচার্যে পক্ষ নেওয়ার জেরে ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’র ছয় শিক্ষককে শোকজ করেছে সংগঠনটি। এমন ঘটনায় এই সংগঠনটির নেতৃত্বে থাকা ব্যক্তিদের প্রতি অনাস্থা প্রকাশ করে গত রবিবার সংবাদ সম্মেলন করেছে সংগঠনটির সাবেক সভাপতি ও বর্তমান সাংগঠনিক সম্পাদকসহ ৬ জন শিক্ষক। এসময় উপাচার্য ভবন অবরোধের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে সহযোগী অধ্যাপক জুলকারনাইন সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আচার্য বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাদেশ অনুযায়ী উপাচার্যকে পুনঃনিয়োগ দেন। এর বিরুদ্ধে যারা আন্দোলন করবে তারা অযৌক্তক দাবি নিয়ে আন্দোলন করেন। তবে শোকজের বিষয়ে ‘শিক্ষক সমাজ’র সম্পাদক অধ্যাপক আমির হোসেন বলেন, আমার দলে থেকে অনির্বাচিত উপাচার্য রক্ষার জন্য ভূমিকা পালন করবে এটাতো ঠিক না। তাই দলীয় সিদ্ধান্তের আলোকে তাদের শো’কজ করা হয়।

এসএম/ ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।