উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি: ঢাবিতে আনন্দ উৎসব


ঢাবি টাইমস
Published: 2018-03-22 13:12:33 BdST | Updated: 2018-12-15 11:57:11 BdST

জাতিসংঘের বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি দেয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে আনন্দ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘স্মৃতি চিরন্তন’ প্রাঙ্গণে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় এ আনন্দ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। আনন্দ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আখতারুজ্জামান।

জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মধ্য দিয়ে আনন্দ সমাবেশ শুরু হয়। এরপর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বেলুন ও ফেস্টুন উড়িয়ে আনন্দ সমাবেশের উদ্বোধন করেন। সমাবেশে সঙ্গীত বিভাগের উদ্যোগে দেশাত্মবোধক গান পরিবেশন করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবরেটরি স্কুল ও কলেজ হতে চারুকলা পর্যন্ত রাস্তার দু’পাশে, বিভিন্ন হল, বিভাগ, ইনস্টিটিউটের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা ফুলের ডালা নিয়ে অবস্থান করেন।

আনন্দ সমাবেশে ‘উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ, শেখ হাসিনা সরকারের অর্জন’ শীর্ষক শ্লোগান সম্বলিত ব্যানার প্রদর্শন করা হয়।

সভাপতির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, বাংলাদেশের এ ঐতিহাসিক অর্জনের জন্য শেখ হাসিনাসহ তার সরকারের মধ্যে যারা অবদান রেখেছেন, তাদের সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি।

আখতারুজ্জামান বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ উৎসব পালন করার পেছনে তিনটি কারণ রয়েছে। আর তা হলো: ১.উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার জন্য দেশের পার ক্যাপিটাল ১২৩০ ডলার হতে হয়। বাংলাদেশের বর্তমানে এটা আছে ১৬১০ ডলার। ২. উন্নয়নশীল দেশ হওয়ার জন্য দেশের মানবসম্পদের উন্নয়নের হার ৬৬% হতে হয়। বাংলাদেশের এটা আছে ৭২.৮%। ৩.অর্থনীতির অঙ্কুরতার হার দরকার হয় ৩২%। বাংলাদেশের এখন এটা আছে ৩৬.৮%।

উপাচার্য বলেন, এ তিনটি সূচকে বাংলাদেশ অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এ আনন্দ সমাবেশের আয়োজন করেছে।

উপাচার্য আরো বলেন, চূড়ান্ত স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য আমাদেরকে আরো ৩ বছর অর্থাৎ ২০২১ সাল পর্যন্ত পর্যবেক্ষণে রাখবে। সবকিছু ঠিক থাকলে ২০২৪ সালে বাংলাদেশ চূড়ান্তভাবে এ স্বীকৃতি লাভ করবে। আর এ স্বীকৃতি চূড়ান্তভাবে পাওয়ার জন্য আমাদের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে দেশের উন্নয়নে কাজ করা উচিত।

উৎসব 

ঢাবির উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরিন আহমেদ বলেন, এ স্বীকৃতির আগে বাংলাদেশের কত অপবাদ ছিল- বাংলাদেশকে দিয়ে নাকি কিচ্ছু হবে না, আজ সব মিথ্যা প্রমাণিত হয়ে এ দেশ উন্নয়নশীল দেশের স্বীকৃতি পেয়েছে।

অধ্যাপক নাসরিন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই আজ বাংলাদেশ এ স্বীকৃতি পেয়েছে। শেখ হাসিনা দেখিয়ে দিয়েছেন, আমরা যদি কোনো কাজ করতে চাই তাহলে আমরাও তা করতে পারি। তার নেতৃত্বেই বাংলাদেশ আরো এগিয়ে যাবে।

আনন্দ সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক শিবলি রুবাইয়াত প্রমুখ। এছাড়া ও বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী, সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক সাদেকা হালিম, কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক দেলোয়ার হোসেন, বিভিন্ন হলের প্রাধ্যক্ষ, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ আনন্দ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন।

আনন্দ সমাবেশ উদযাপন উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস ও অফিসসমূহ সকাল ১০:৪৫টা থেকে ১১:৪৫টা পর্যন্ত বন্ধ ছিল।

বিদিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।