চারুকলায় বর্ষবরণে মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রস্তুতি


টাইমস প্রতিবেদক
Published: 2018-04-13 12:16:51 BdST | Updated: 2018-04-24 16:42:44 BdST

বাংলা নতুন বছরকে বরণের অপরিহার্য অংশ মঙ্গল শোভাযাত্রা। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদে চলছে এর শেষ সময়ের প্রস্তুতি। এবারের শোভাযাত্রার প্রতিপাদ্য-‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’। এবারের শোভাযাত্রার শিল্পকাঠামোতে প্রথমবারের মতো যোগ হচ্ছে টেপা পুতুলের ছেলে ফর্ম।

রঙ তুলির আচড়ে কেউ তৈরি করছে মুখোশ, কেউ ব্যস্ত সরাচিত্র আঁকায়, কোথাও ঝুলে আছে রঙ বেরঙের কাগজের পাখি, কেউ বা ব্যস্ত বাঁশ বেত দিয়ে শিল্পকাঠামো তৈরিতে। যেখানে ফুটে উঠছে আবহমান বাংলার নানা ঐতিহ্য। আর এভাবেই বর্ষবরণে মঙ্গল শোভাযাত্রার শেষভাগের প্রস্তুতি চলছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদে।

এ বছর মঙ্গল শোভাযাত্রা আয়োজনে নেতৃত্ব দিচ্ছে চারুকলা অনুষদের বিশতম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। সবার মধ্যে মানবতাবোধ জাগিয়ে তুলতে মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রতিপাদ্য- ‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’ নেয়া হয়েছে লালন সাঁইজির গান থেকে।

শোভাযাত্রার পুরোভাগে থাকা পাখি ও ছানা, হাতি, মাছ ও বক, জাল ও জেলে, মা ও শিশু এবং গরুর আটটি ফর্ম ছাড়াও যোগ হয়েছে টেপা পুতুলের ছেলে ফর্ম ও মহিষ।

শিক্ষার্থীদের তৈরি এসব শিল্পকর্ম দেখতে আসছেন গুনী ব্যক্তিবর্গরাও।

৩ দশক ধরে আয়োজিত এই মঙ্গল শোভাযাত্রা ইউনেস্কোর ইনট্যানজিবেল কালচারাল হ্যারিটেজ হিসেবে স্বীকৃতি অর্জন করে ২০১৬ সালে।

এ বছর মঙ্গল শোভাযাত্রা আয়োজনে নেতৃত্ব দিচ্ছে চারুকলা অনুষদের বিশতম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা। সবার মধ্যে মানবতাবোধ জাগিয়ে তুলতে মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রতিপাদ্য- ‘মানুষ ভজলে সোনার মানুষ হবি’ নেয়া হয়েছে লালন সাঁইজির গান থেকে।

শোভাযাত্রার পুরোভাগে থাকা পাখি ও ছানা, হাতি, মাছ ও বক, জাল ও জেলে, মা ও শিশু এবং গরুর আটটি ফর্ম ছাড়াও যোগ হয়েছে টেপা পুতুলের ছেলে ফর্ম ও মহিষ।

শিক্ষার্থীদের তৈরি এসব শিল্পকর্ম দেখতে আসছেন গুনী ব্যক্তিবর্গরাও।

৩ দশক ধরে আয়োজিত এই মঙ্গল শোভাযাত্রা ইউনেস্কোর ইনট্যানজিবেল কালচারাল হ্যারিটেজ হিসেবে স্বীকৃতি অর্জন করে ২০১৬ সালে।

টিআই/ ১৩ এপ্রিল ২০১৮

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।