হলের ক্যান্টিনে মানসম্মত খাবার পাচ্ছে না ঢাবি শিক্ষার্থীরা


ঢাবি টাইমস
Published: 2018-05-22 12:15:48 BdST | Updated: 2018-10-24 01:29:52 BdST

ঢাকা বিশ্বিবিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী রবিউল বাশার। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম বর্ষে এসে রমজান মাসে সেহেরি খেয়েছেন হলের ক্যান্টিনে। এসময় তাকে খাবার নিয়ে বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে। তাই পরের বছর থেকেই তিনি সেহরির জন্য হলের মেস (শিক্ষকদের তত্ত্বাবধানে ছাত্রদের দ্বারা পরিচালিত) বেছে নিয়েছেন। 

কারণ মেসের তুলনায় ক্যান্টিনের খাবারে উচ্চমূল্য, খাবারের মান, নির্দিষ্ট সময়ের পরে খাবার না পাওয়া, পরিবেশন ব্যবস্থাপনা ও নানাবিধ কারণে শুধু রবিউলিই নন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনেক শিক্ষার্থী সেহেরির জন্য হলের মেসই পছন্দ করেন।

মেসে অন্য সময়ে নিয়মিত খাবারের জন্য শিক্ষার্থী কম থাকলেও রমজানে তা বেড়ে যায়। যদিও বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত শিক্ষার্থীদের একটি অংশ রমজানে ছুটিতে থাকেন। তবে সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষা ও চাকরিপ্রত্যাশীদের অনেককেই এসময় হলে থাকেন। তাই রমজানে সেহরির খাবার নিয়ে তাদের কিছুটি ভাবতে হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ছাত্রদের হলেই ক্যান্টিনের পাশাপাশি মেস রয়েছে। যেখানে শিক্ষার্থীরা মাসের শুরুতে টাকা জমা দিয়ে মেসের পরিচালক ঠিক করেন। পরিচালক সবার চাহিদা অনুযায়ী খাবারের মেন্যু নির্ধারণ করেন। পর্যায়ক্রমে সবজি, ডিম, মাছ, মাংস ও ডাল থাকে খাবারের মেন্যুতে। কোনো কোনো হলের মেসে একই বাজেটে খাবারের পর দুধ ও কলা দেওয়া হয়।

ফার্সি বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী চিশতী হোসাইন চৌধুরী বলেন, রমজানে সেহরির বিষয়ে অবশ্যই ভাবতে হয়। কারণ অনেক সময় দেখা যায়, ক্যান্টিনে প্লেট থাকে না, লোকজন বেশি হওয়ায় সিট খালি থাকে না। প্রায়ই নির্ধারিত সময়ের আগে সেহরি খাওয়া শুরু করতে হয়। তাই রমজানে ক্যান্টিনের তুলনায় মেস বেশ সুবিধাজনক।

মেসে সেহরি খেতে খরচ হয় ৬৫ টাকা। অপর দিকে একই দাম দিলেও ক্যান্টিনে মেসের মতো আইটেমগুলো পাওয়া যায় না। সেখানে খাবারের মানেও থাকে বিস্তর তফাৎ।

এ বিষয়ে জসীম উদ্দীন হলের দর্শন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মো. আল আমিন বলেন, ক্যান্টিনের খাবার সব সময় একই রকম। রমজানের জন্য আলাদা কোনো মেন্যু থাকে না। তবে রমজানে মেসের খাবারের বিষয়টি বাড়তি যত্ন দিয়ে দেখা হয়। তাই সেখানে খাবারের স্বাদ বজায় থাকে।

এদিকে, মেস নির্ভরতার পাশাপাশি কিছু শিক্ষার্থী তাদের সামর্থ অনুযায়ী ক্যাম্পাসের আশপাশের বিভিন্ন হোটেল ও রেস্টুরেন্টেও সেহরি খান। অনেকে আবার নিজে রান্না করে খান। তাদের রান্নায় কখনো বন্ধুরাও অংশ নেন। বিশ্ব ধর্ম ও সংস্কৃতি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের এক ছাত্র বলেন, হলের ক্যান্টিনের চেয়ে মেসের রান্না তুলনামূলক ভালো হলেও নিজে রান্না করলে বাসায় সেহরি খাওয়ার মতো তৃপ্তি পাওয়া যায়।

বিদিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।