রুয়েটে ছাত্রলীগ নেতাকে মারধর

দলীয় কর্মীকে শিবির সন্দেহে পুলিশে দিল ছাত্রলীগ


টাইমস প্রতিবেদক
Published: 2017-08-18 10:20:00 BdST | Updated: 2017-12-12 16:30:41 BdST

ব্যক্তিগত দ্বন্দ্বের জের ধরে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট) শাখা ছাত্রলীগের উপ-গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক নির্ঝর আহমেদকে মারধর করেছে সেখানকারই ছাত্রলীগেরই কয়েকজন নেতাকর্মী। পরে তাঁকে উদ্ধার করতে গিয়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের এক কর্মীকে শিবির সন্দেহে পুলিশে দিয়েছেন রুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী মাহফুজুর রহমান তপু।

বৃহস্পতিবার (১৭ আগস্ট) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে রুয়েটের বঙ্গবন্ধু হলে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, রুয়েট শাখা ছাত্রলীগের উপ-গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক নির্ঝর আহমেদকে পূর্বশত্রুতার জের ধরে সন্ধ্যা ৬টার দিকে বঙ্গবন্ধু হলে মারধর করেন সাধারণ সম্পাদক তপুর অনুসারী কয়েকজন। এ সময় নির্ঝর রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের কয়েকজনকে ডেকে পাঠান। তাঁরা আসার পর তপুর অনুসারীদের সঙ্গে কথাকাটাকাটি হয়। পরে তপুর অনুসারীরা তাদের ধাওয়া দেয়। এ সময় রাবি ছাত্রলীগকর্মী মনোবিজ্ঞান বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আমিনুল ইসলাম হীরাকে আটক করে ইসলামী ছাত্রশিবিরের কর্মী সন্দেহে পুলিশে দেন রুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক তপু। গুরুতর আহত হওয়ায় নির্ঝরকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে রুয়েটে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

এ বিষয়ে রুয়েট ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী মাহফুজুর রহমান তপু বলেন, ‘নিজেদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি থেকেই রুয়েটে একটু সমস্যা হয়েছিল। আমি আর সভাপতি সেই সমস্যা সমাধানে ক্যাম্পাসে আসার সময় বহিরাগত কয়েকজন আমাদের চাকু নিয়ে ধাওয়া দেয়। আমরাও পাল্টা ধাওয়া দেই। একপর্যায়ে তারা মোটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে গেলেও একজনকে ধরে আমরা পুলিশে দিয়েছি।’

রাবি ছাত্রলীগের কর্মীকে শিবির বানানো প্রসঙ্গে মাহফুজুর রহমান তপু বলেন, ‘ছাত্রলীগ কর্মী হলে আরেকজন ছাত্রলীগকর্মীর ওপর চাকু নিয়ে হামলা করতে আসত না। তাই তাকে শিবিরকর্মী হিসেবেই পুলিশে দেওয়া হয়েছে।’ ক্যাম্পাসের সমস্যা সমাধানে তাঁরা প্রশাসনের সঙ্গে বসেছেন বলে জানান।

এ বিষয়ে রাবি শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘এমন কিছু ঘটেছে আমি জানতাম না। আমি এখনি খোঁজ নিচ্ছি। যদি এমন কিছু ঘটে তবে অবশ্যই সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

নগরীর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মেহেদী হাসান বলেন, ‘একজনকে শিবির সন্দেহে পুলিশে দিয়েছে রুয়েট ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করলেও এখন পরিস্থিতি শান্ত আছে।’

এমএন/ ১৮ আগস্ট ২০১৭

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।