রাবি ছাত্রলীগের পাঁচ কর্মীকে পুলিশে দিলেন নেতারা


রাবি টাইমস
Published: 2018-01-29 22:49:14 BdST | Updated: 2018-02-20 05:53:33 BdST

নিজেদের মধ্যে মারামারি করা ও দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের কারণে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের পাঁচ কর্মীকে পুলিশে দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। সোমবার (২৯ জানুয়ারি) বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ হবিবুর রহমান হলে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশে দেওয়া পাঁচ কর্মী হলেন নিতাই, শাহাদাত, ফয়সাল, শাকিব ও সৌরভ। এদের মধ্যে শাকিব বঙ্গবন্ধু হল, সৌরভ শের-ই-বাংলা হল ও বাকিরা হবিবুর রহমান হল শাখা ছাত্রলীগের কর্মী।

জানা যায়, তুচ্ছ বিষয় নিয়ে রোববার সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনের সামনে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজনের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। এসময় হবিবুর হল শাখা ছাত্রলীগ কর্মী শাহাদাত ও নিতাইয়ের সঙ্গে রাবি ছাত্রলীগের মানবসম্পদ উন্নয়ন সম্পাদক ফেরদৌস মাহমুদ শ্রাবণের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এতে শ্রাবণ ও নিতাই আহত হয়। এসময় সেখানে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোস্তাকিম বিল্লাহ পাভেল, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদি হাসান মিশু উপস্থিত ছিলেন।

বিষয়টি জানতে পেরে রাবি ছাত্রলীগ সভাপতি গোলাম কিবরিয়া পরে মীমাংসা করা হবে বলে সবাইকে চলে যেতে বললে সবাই চলে যায়। এরপর দুপুরে বিষয়টি নিয়ে পুনরায় হবিবুর রহমান হলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। এসময় আবারো হাতাহাতি হয় বলে হলের শিক্ষার্থীরা জানান। বিষয়টি শুনে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু হবিবুর রহমান হলে যান এবং সবার সঙ্গে বিকেল পর্যন্ত দীর্ঘক্ষণ বৈঠক করেন।

এসময় ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় নিতাই, শাহাদাত, শাকিব, সৌরভ ও ফয়সালকে মারধর করে পুলিশের কাছে তুলে দেন রাবি ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।

জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া বলেন, ‘ঘটনাটি মীমাংসা করতে সম্পাদকসহ হবিবুর হলে এসে সবার সঙ্গে কথা বলেছি। ভুল বোঝাবুঝির জায়গা থেকে এই ঘটনা ঘটলেও আমরা চেয়েছি ছাত্রলীগের প্রত্যেক কর্মীর কাছে একটি বার্তা পৌঁছে দিতে যে- সংগঠনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টিকারীদের কোনো জায়গা নেই।’

হবিবুর হলে বিষয়টি নিয়ে দিনভর উত্তেজনা চললেও বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে এবং সকল ছাত্রলীগ কর্মীকে হুঁশিয়ারি জানানো হয়েছে বলেও জানান গোলাম কিবরিয়া।

নগরীর মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী হাসান বলেন, ‘ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা তাদের কয়েকজন পুলিশে দিয়েছে। হবিবুর হলে উত্তেজনা বিরাজ করায় পরিস্থিতি শান্ত করতে তাদের থানায় আনা হয়েছে। পরে হয়ত তাদের নিয়ে যাবে ছাত্রলীগ।’

টিআর/ ২৯ জানুয়ারি ২০১৮

Loading...

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।