বানভাসিদের ঘরে নেই ঈদ আনন্দ


টাইমস ডেস্ক
Published: 2020-08-01 14:53:10 BdST | Updated: 2020-08-05 15:58:22 BdST

ঈদের আনন্দ নেই বন্যাকবলিত ৩১ জেলার বানভাসি মানুষের মাঝে। করোনায় কাজ হারানো এসব মানুষ দীর্ঘ বন্যার সাথে যুদ্ধ করে এখন অসহায়। অনেক পরিবারে জোগার হয়নি সামান্য চিনি সেমাই। কিনতে পারেনি সন্তানদের জন্য নতুন জামা-কাপড়।

দেড় মাস ধরে পানির সাথে যুদ্ধ করে বাড়ি ছাড়তে হয়েছে কয়েক দফা। আশ্রয় নিতে হয়েছে উচু রাস্তা বা আশ্রয় কেন্দ্র। এখনো খেয়ে না খেয়ে মানবেতর ভাবে দিন পার করছে এসব মানুষ।

তিন দফা বন্যায় প্রায় ১০ লাখ পরিবার পানিবন্দি। ক্ষতিগ্রস্ত ৫০ লক্ষাধিক মানুষ। এক মাসেরও অধিক সময় এসব জেলার মানুষ বানের পানিতে ভাসছে। এর ওপর শুরু হয়েছে ভয়াবহ নদীভাঙন। এতে চোখের পলকে নিঃস্ব হয়ে পড়ছে নদীতীরের মানুষ। বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের তথ্য- বানভাসিদের দুর্ভোগে শিগগিরই কমছে না। এ অবস্থায় বানভাসিদের ঈদের আনন্দ দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে। পানিতে ভাসা মানুষের সাধ্য নেই এবারে ঈদে পশু কোরবানি দেওয়ার।

বানভাসিদের মতে, যেখানে জীবনই বাঁচে না, সেখানে কিসের ঈদ। তার তাকিয়ে আছেন সরকারের দিকে। ঈদ উপলক্ষে ভিজিএফসহ বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে ত্রাণ দিয়ে বন্যা ও ভাঙন কবলিত মানুষের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগির কথা জানিয়েছে প্রশাসন।

এদিকে উজানের বৃষ্টিপাতে আবারও বাড়তে শুরু করেছে নদ-নদীর পানি। গেল ২৪ ঘণ্টায় ধরলায় ১২ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎ সীমার ৪৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। অপরদিকে ব্রহ্মপুত্রের চিলমারী পয়েন্টে ১১ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎ সীমার ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে, নুনখাওয়া পয়েন্টে ১৬ সেন্টিমিটার পানি বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমা ছুয়েছে আবার।