জমি বিক্রি করে সাড়ে পাঁচ কিলোমিটারের জার্মানির পতাকা তৈরি


টাইমস ডেস্ক
Published: 2018-06-06 14:08:52 BdST | Updated: 2018-06-18 17:44:42 BdST

মাগুরায় সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের জামার্নির পতাকা বানিয়েছেন আমজাদ হোসেন। জার্মানির ফুটবল দলের একনিষ্ট এই ভক্তের দাবি, ‘এটিই বিশ্বের সবচাইতে বড় জার্মানির পতাকা।’

আমজাদ হোসেন জানান, ২০১৪ সালে সাড়ে তিন কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের জার্মানির পতাকা বানাই। তখন ৩০ শতক জমি বিক্রি করতে হয়। আর এবার আরো দুই কিলোমিটার যুক্ত করা হয়েছে। এ জন্য ১০ শতাংশ জমি বিক্রি করতে হয়েছে। সব মিলিয়ে সাড়ে পাঁচ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের এই পতাকাটি তৈরি করতে লেগেছে পাঁচ লাখ টাকা।

মঙ্গলবার (০৫ জুন) দুপুরে মাগুরা সদর উপজেলার নিশ্চিন্তপুর স্কুল মাঠে পতাকাটি প্রদর্শন করা হয়। সহযোগিতায় ছিল জার্মান ফ্যান ক্লাব।

আর এই পতাকা দেখতে মাগুরায় গিয়েছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জার্মান দূতাবাসের প্রশাসনিক কর্মকর্তা কারেন উইজোরা এবং সংস্কৃতি ও শিক্ষা কর্মকর্তা তারানা কবির।

এ সময় মাগুরার ফুটবল ‘পাগল’ খ্যাত আমজাদ হোসেন কূটনীতিকদের দেখে রাশিয়ায় অনুষ্ঠিতব্য বিশ্বকাপ ফুটবলে জার্মানির খেলা সরাসরি দেখার আবদার করে বসেন।

আমজাদ হোসেন বলেন, ‘আমার তো খুব ভালো লাগছে। যেহেতু আমার এই স্বপ্নটা। স্বপ্নের মাধ্যমে আমি এত কিছু করলাম। তারা যে আমার এই জায়গায় আসছে, আমাকে দেখার জন্যি এবং আমার এই ফিলাগ (পতাকা) দেখার জন্যি। তাঁরা না আইলে আমি তো আর যেতে পারব না। এখন ম্যাডামরা আসছে, যদি আমাকে একটা টিকেট করে দেয়, আমি বিশ্বকাপটা সরাসরি দেখতে যাব। জার্মান দেশটা ঘুরে দেখব।’

অনুষ্ঠানে কারেন উইজোরা বলেন,‘অনেক অনেক ভালো লাগছে, বাংলাদেশের মাগুরায় জামার্নির সবচাইতে বড় পতাকা দেখে। আমি আশা করি, বাংলাদেশের মানুষের সাপোর্ট নিয়ে জামার্নির দল এবারও চ্যাম্পিয়ন হবে। আর আমরা আমজাদ হোসেনকে ধন্যবাদ জানাই তাঁর অবদানের জন্য, জামার্নির পতাকা তৈরিতে এত কষ্ট করার জন্য।’

তারানা কবির বলেন, ‘আমরা আনন্দে উদ্বেলিত যে, মাগুরায় পৃথিবীর সবচেয়ে বড় জার্মানির পতাকা দেখতে এসেছি। এ রকম কিছু ঘটবে, আমরা কখনো চিন্তাও করিনি। আপনারা তাঁকে নিয়ে গর্ব করতে পারেন যে তিনি আপনাদের বিখ্যাত করেছে। আমাদেরও বিখ্যাত করেছে। তাঁকে ধন্যবাদ।’

টিঅাই/ ০৬ জুন ২০১৮

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।