বাতাস থেকে বিদ্যুৎ উদ্ভাবনে সফল বিজ্ঞানীরা


Dhaka
Published: 2020-02-20 00:45:59 BdST | Updated: 2020-07-14 16:43:26 BdST

একেবারেই অসম্ভবকে সম্ভব করেছেন ইউনিভার্সিটি অব ম্যাসাচুসেটস আমরহেস্ট এর বিজ্ঞানীরা। তারা এমন একটি ডিভাইস উদ্ভাবন করেছেন যেটি বাতাস থেকে বিদ্যুৎ উৎপন্ন করতে সক্ষম। ভবিষ্যতে নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার, জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলা ও চিকিৎসাসেবায় এই আবিষ্কার নতুন দ্বারের উন্মোচন ঘটাবে। খবর সায়েন্স অ্যালার্ট, ল্যাবরেটরি ইকুইপমেন্ট এর।

নেচারের খবরে বলা হয়, তড়িৎ প্রকৌশলী জুন ইয়াও এবং মাইক্রোবায়োলজিস্ট ডেরেক লাভলি গবেষণাগারে একটি ডিভাইস তৈরি করেছেন যেটিকে তারা ডাকছেন ‘এয়ার-জেন’ নামে। এটি মূলত বায়ুচালিত একটি জেনারেটর, যাতে মাইক্রোব জিওব্যাকটারে উৎপাদিত বিদ্যুৎ পরিবাহী প্রোটিন ন্যানোওয়্যার ব্যবহার করা হয়েছে। ‘এয়ার-জেন’ ডিভাইসটি ইলেকট্রোডগুলোকে এমনভাবে প্রোটিন ন্যানোওয়্যারের সঙ্গে সংযুক্ত করা থাকে, যে পরিপার্শ্বে প্রাকৃতিকভাবেই উপস্থিত বাষ্পকে কাজে লাগিয়ে বিদ্যুৎ উৎপন্ন হয়।

জুন ইয়াও বলেন, আমরা বাতাস থেকেই বিদ্যুৎ উৎপন্ন করছি। এটি সপ্তাহে সাত দিন ও চব্বিশ ঘণ্টা পরিবেশবান্ধব জ্বালানি উৎপাদনে সক্ষম। প্রোটিন ন্যানোওয়ারস এর এটিই সবচেয়ে অসাধারণ প্রয়োগ বলে জানান তিনি।

গবেষকদের দাবি, যেসব এলাকায় আর্দ্রতা খুবই কম, তা সাহারা মরুভূমি হলেও ডিভাইসটি সেখানে নবায়নযোগ্য জ্বালানি উৎপাদনে সক্ষম। ‘এয়ার-জেন’ এর প্রয়োজন হয় না কোনো সূর্যশক্তি কিংবা বাতাসের। এমনকি ঘরের ভেতরও এটি বিদ্যুতের যোগান দিতে পারে।

বর্তমানে এই যন্ত্রটি দিয়ে খুব ছোটখাটো ইলেকট্রনিক্স পণ্য চালানো যাবে। তবে ভবিষ্যতে বাণিজ্যিকভাবে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানান বিজ্ঞানীরা। ‘এয়ার-জেন’ এর প্রযুক্তিগত উন্নতি হলে সনাতন ব্যাটারির ব্যবহার কমে যাবে। মোবাইল চার্জেও আসবে যুগান্তকারী পরিবর্তন।