বিদ্রোহীদের তোপে কাঁদতে কাঁদতে বাসায় ফিরলেন ময়মনসিংহ ছাত্রলীগ সভাপতি


মাইমনসিংহ
Published: 2019-08-01 00:36:15 BdST | Updated: 2019-08-25 13:52:24 BdST

অনুসারীদের নিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা গেটের বাইরে মাটিতে বসে থাকলেন। ভেতরে প্রবেশ করতে গেলেই বাধার মুখে পড়েন বিদ্রোহী নেতা-কর্মীদের। শেষ পর্যন্ত নিজের কলেজের অনুষ্ঠানে যোগ দিতে না পেরে কাঁদলেন। তাতেও মন গলেনি বিদ্রোহীদের। অবশেষে অনুষ্ঠানে যোগ না দিয়েই বাড়ি ফিরে গেছেন ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি রকিবুল ইসলাম রকিব।

বুধবার (৩১ জুলাই) দুপুরে নগরীর আনন্দমোহন কলেজে পাঁচ দিনব্যাপী সাংস্কৃতিক সপ্তাহের সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান ঘিরে এ ঘটনা ঘটে।

এসময় দু’পক্ষের পাল্টাপাল্টি ধাওয়ায় কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী আলী আকবরের মাথা ফেটে গেছে। পরে, তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

স্থানীয় ও আনন্দমোহন কলেজ ছাত্রলীগ সূত্র জানায়, কলেজটির সাংস্কৃতিক সপ্তাহকে কেন্দ্র করে শুরু থেকেই জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রকিবুল ইসলাম রকিব ও আনন্দমোহন কলেজ ছাত্রলীগের আহ্বায়ক মাহমুদুল হাসান সবুজের মধ্যে দ্বন্দ্ব চরম আকার ধারণ করে। কলেজ ছাত্রলীগ রকিবকে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে।

অনুষ্ঠানের দিন বুধবার (৩১ জুলাই) সকাল সোয়া ১১টা থেকে রকিব কলেজের সামনে গেলে কলেজ ছাত্রলীগ তাকে প্রতিহতের ঘোষণা দিয়ে গেটে তালা ঝুলিয়ে দেয়। তবে, হাল ছাড়েননি ‘নাছোড়বান্দা’ ছাত্রলীগ সভাপতি রকিবুল ইসলাম। প্রায় সাড়ে তিন ঘণ্টা গেটের সামনে বসেই কাঁদতে দেখা যায় তাকে।

এসময় দু’পক্ষের পাল্টাপাল্টি স্লোগানে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ক্যাম্পাস। কিন্তু, কলেজ ছাত্রলীগ নিজেদের সিদ্ধান্তে অনড় থাকায় শেষ পর্যন্ত অশ্রুসিক্ত চোখে ফিরে যান জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি।

এবিষয়ে আনন্দমোহন কলেজ ছাত্রলীগের আহবায়ক মাহমুদুল হাসান সবুজ  বলেন, কলেজ ক্যাম্পাস থেকে মাদক নির্মূল ও সাধারণ শিক্ষার্থীদের ওপর দীর্ঘদিনের অত্যাচার-নির্যাতনের প্রতিবাদ জানাতেই রকিবকে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি। সে ক্যাম্পাসে প্রবেশ করলে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা চালাতো।

এ ব্যাপারে ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রকিবুল ইসলাম রকিব বলেন, আমি ২০১৪ সালে সারাদেশে ছাত্রলীগের শ্রেষ্ঠ সংগঠকের পুরস্কার পেয়েছি। আমার নেতৃত্বেই জেলা ও আনন্দমোহন কলেজ ছাত্রলীগ সাংগঠনিকভাবে শক্তিশালী হয়েছে। আমি নিজেও আনন্দমোহন কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ছিলাম। প্রতিমন্ত্রীর অনুষ্ঠানে আমাকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও এখানে এসে লাঞ্ছিত হয়েছি। পুলিশ প্রশাসনও আমাকে কলেজে ঢুকতে দেয়নি।

কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহমুদুল ইসলাম বলেন, রকিব বহিরাগত হওয়ায় কলেজ ছাত্রলীগ তাকে ভেতরে ঢুকতে দেয়নি। পুলিশ তাকে বাঁধা দেয়নি। প্রতিপক্ষের ছুঁড়ে মারা ইটে একজন আহত হয়েছে। তবে, ক্যাম্পাসের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি পুলিশের নিয়ন্ত্রণে ছিল।

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।