চাঁদাবাজি মামলায় ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার


Kurigram
Published: 2020-02-20 00:42:34 BdST | Updated: 2020-04-01 15:00:52 BdST

চাঁদাবাজির মামলায় কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামিম মিয়াকে (২৫) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বুধবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) দুপুর আড়াইটার দিকে উপজেলার থানাহাট এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার শামিম মিয়া চিলমারী উপজেলার থানাহাট ইউনিয়নের ডেমনারপাড়া এলাকার মহসিন আলীর ছেলে।

চিলমারী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম জানান, সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে চিলমারী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামিম মিয়াকে দুপুরে গ্রেফতার করা হয়েছে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, চিলমারী নৌবন্দরে অবস্থিত ভাসমান তেল ডিপো যমুনা অয়েল কোম্পানি লিমিটেডের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তফাজ্জল হককে গত ১১ ফেব্রুয়ারি চিলমারী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামিম মিয়া ও তার সঙ্গীরা চাঁদার দাবিতে অপহরণ করেন। তার কাছ থেকে ৩ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। পরে তাকে আটকে রেখে এক লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায় করে ছেড়ে দেয়া হয়। আরও দুই লাখ টাকার জন্য তার ওপর চাপ দিয়ে আসছিলেন শামিম ও তার সঙ্গীরা।

অভিযোগে আরও জানা গেছে, যমুনা ডিপোতে অভ্যন্তরীণ সমস্যরা সুযোগ নিয়ে তার কাছ থেকে বেশ কয়েকবার অর্থ হাতিয়ে নেয় ছাত্রলীগের এই চক্রটি। এরপর মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিতে তাকে তুলে নিয়ে গিয়ে হেনস্তা করা হয়। এছাড়াও ডিপোতে অনৈতিক কার্যক্রমের সঙ্গে জড়িতে থাকার অভিযোগে কোম্পানির অস্থায়ী সিকিউরিটি গার্ড রিফাজুল ইসলাম রিয়াদকে চাকরিচ্যুতির পর ঘাট সংলগ্ন শ্রমিকরা নানাভাবে তফাজ্জল হককে হয়রানি শুরু করেন। এতে ইন্ধন দেন কোম্পানির স্থায়ী জেনারেল ওয়ার্কার আবুল হোসেন ও অস্থায়ী সহকারী লতিফুর রহমান জুয়েল।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ১১ ফেব্রুয়ারি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামিমের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী তাকে তুলে নিয়ে গিয়ে আটকে রাখে। সেখানে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করা হয়। পরে এক লাখ টাকা পেয়ে তাকে ছেড়ে দেয়া হলেও পরবর্তীতে আরও দুই লাখ টাকার দাবিতে চাপ দেয়া হচ্ছিল। বাধ্য হয়ে গত ১৬ ফেব্রুয়ারি চিলমারী মডেল থানায় শামিমসহ অজ্ঞাত চারজনের নামে মামলা করেন তফাজ্জল হক।