করোনা: খাদ্য সামগ্রী নিয়ে অসহায়ের পাশে শুভ


জামালপুর
Published: 2020-03-31 05:47:26 BdST | Updated: 2020-05-27 00:41:58 BdST

করোনাভাইরাসে উদ্ভুত সঙ্কট মোকাবেলায় সাধারণ মানুষের পাশে দাড়িয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের মেধাবী ছাত্র ও আইন অনুষদ ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফুল হাসান শুভ। নিজ উদ্যোগ মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও জনসচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণের পাশাপাশি অসহায়-দুঃস্থদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন তিনি।

সম্প্রতি করোনা আতঙ্কে বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও লকডাউন করা হয়েছে। এতে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন খেটে খাওয়া মানুষ। এ অবস্থায় অসহায় মানুষের জন্য জনপ্রতি আট কেজি চাল, ১/২ কেজি ডাল, এক লিটার তেল, দুই কেজি আলু, বেগুন ও মরিচের সমন্বয়ে ত্রাণসামগ্রী নিয়ে রাতের বেলা বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌঁছে দিয়েছেন শরিফুল হাসান শুভ।

জামালপুরের সদর উপজেলা তুলশীরচর ইউনিয়নের হনুমানের চর গ্রামে জন্ম নেওয়া এই ছাত্রলীগ নেতা নিজ উদ্যাগে এভাবে নিজ এলাকায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন।

শরিফুল হাসান শুভ বলেন, ‘যে গ্রামের আলো বাতাসে বেড়ে উঠা-যেখানে বসবাস করে আমার মা, ভাই-বোন, চাচা-চাচী, কাকা-কাকী, আত্বীয়-স্বজন। আমি জানি আমার পরিবারকে বাঁচাতে হলে গ্রামের সকলকে বাচাতে হবে, সকলকে নিয়ে বাঁচতে হবে। তাই আমার এই ক্ষুদ্র উদ্যোগ।’

এ বিষয়ে কামরুল ইসলাম কর্ণব নামের ওই এলাকার এক যুবক ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে লেখেন, ‘রাজনৈতিক পরিচয় বলতে গেলে তার তেমন কোন বড় পদবী নেই অথবা জন্মসূত্রে তিনি কোন শিল্পপতির ছেলেও নন। তিনি হচ্ছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের ছাত্র এবং বর্তমান আইন অনুষদের ছাত্রলীগের সভাপতি।

ভাই আপনাকে যত দেখি ততই অবাক হই। আপনি দেখিয়ে দিয়েছেন মানুষের পাশে থাকতে বড় পদবীর প্রয়োজন নেই শুধু সত সাহস ও মৃত্যুজয়ী ইচ্ছাই পারে অন্যরকম কিছু করে দেখাতে। এই বিপদে অনেক বড় বড় নেতারা যখন হোম কোয়ারান্টাইনে তখন মানুষের কাছে খাবার নিয়ে ছুটছেন আপনি। সালাম তাকে যে মা আপনাকে জন্ম দিয়েছেন।

এভাবেই কাজ করে যান ভাই এর ফল আল্লাহ একদিন আপনার অজান্তেই আপনাকে দিবে। যদি বেচে থাকি তাহলে আপনার সাথে একত্র হয়ে কাজ করতে চাই ইনশাআল্লাহ।’

করোনা সংক্রামণ রোধে উদ্যোগের বিষয়ে শরিফুল হাসান শুভ বলেন, ‘সারা বিশ্বে আতঙ্কের নাম করোনাভাইরাস, যা ছোঁয়াছে রোগ। যার কোন প্রতিষেধক এখনও আবিষ্কার হয়নি। এ রোগের ফলে প্রতিদিন হাজার হাজার লোক মারা যাচ্ছে। বাংলাদেশে প্রতিদিন রোগ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এ রোগ থেকে বাঁচার একমাত্র পথ হলো সচেতনা এবং পরিষ্কার পরিছন্ন থাকা।’

তিনি বলেন, ‘এর আগে আমি নিজ উদ্যােগে আমাদের গ্রামে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে প্রতিটি পরিবারের জন্য একটি করে হ্যান্ডস্যানিটাইজার, লিফলেট, গ্লাভস প্রদান করেছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের সমাজে যারা জনপ্রতিনিধি, শিল্পপতি ও বিত্তশালী, তারা যদি দেশ ও জাতির ক্রান্তিলগ্নে মুহূর্তে সবাই সাধারণ মানুষের পাশে এগিয়ে আসে তাহলে করোনারভাইরাসে কারনে মানুষের কষ্ট হবে না।’