ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কোন ধর্মভিত্তিক রাজনীতি চলবে না: সঞ্জিত


Dhaka
Published: 2020-09-28 00:42:08 BdST | Updated: 2020-10-21 01:42:38 BdST

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস বলেন, “দেশনেত্রী শেখ হাসিনা যখন উন্নয়নের মাধ্যমে, নারীর ক্ষমতায়নের মাধ্যমে দেশকে সামনের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন, ঠিক তখন দেখছি ধর্ষণের এই মেগা সিরিয়াল। আমি হতবাক, যখন একটি ধর্ষণের বিচার হবে, তখন পর পর কীভাবে এত ধর্ষণের ঘঠনা ঘটছে। আমার তো মনে হয় নুরুরা নিজেরা বাঁচার তাগিদে পরিকল্পিতভাবে বিভিন্ন জায়গায় ধর্ষণের ঘটনা ঘটিয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে দায়ী করতে চায়।”

'ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীকে ধর্ষণ, নিপীড়ন ও ভয়ভীতি প্রদর্শনের সঙ্গে সম্পৃক্ত অপরাধীদের এবং সিলেটের এমসি কলেজ, খাগড়াছড়ি ও সাভারে ধর্ষণের সঙ্গে জড়িত সবার গ্রেপ্তার ও বিচার নিশ্চিতের দাবিতে' এক বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। আজ রোববার দুপুরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ এই কর্মসূচির আয়োজন করে।

ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নূরকে উদ্দেশ করে সনজিত বলেন, “আপনি আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছেন। আপনি বিভিন্ন জায়গায় বলে বেড়াচ্ছেন, আমি নাকি এই ঘটনার সাথে লিপ্ত। আপনি একটা পাগল, আপনি মানসিক বিকারগ্রস্ত। আপনার মানসিক চিকিৎসা প্রয়োজন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন ছাত্রীর ধর্ষণের বিচারের জন্য যদি আমি মামলা করতে পারতাম, আমি নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করতাম।”

সনজিত চন্দ্র দাস বলেন, কোন ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক সংগঠন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় রাজনীতি করতে পারবে না। যদি তারা রাজনীতি করতে চাই, তাহলে আমাদেরকে মোকাবেলা করে রাজনীতি করতে হবে। আমি তাদেরকে বলে দিতে চাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন। সুতরাং এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কোন ধর্মভিত্তিক রাজনীতি চলবে না।

তিনি আরও বলেন, ছাত্রলীগের একজন কর্মী হিসাবে এসব ধর্মভিত্তিক রাজনৈতিক সংগঠনের প্রবেশ মেনে নিতে পারছি না। আমি তাদের ও তাদের পৃষ্টপোষকদের এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করছি। তাদেরকে যেখানেই দেখবেন, সেখানেই প্রতিরোধ গড়ে তোলার আহবান রইল।