রাব্বানীর সঙ্গে এপিএম সোহেল, আসল ঘটনা কি?


Dhaka
Published: 2020-10-15 22:28:21 BdST | Updated: 2020-10-23 17:12:40 BdST

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরদের সংগঠন ‘ছাত্র অধিকার পরিষদ’ থেকে বহিষ্কৃতদের নিয়ে ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ নামে নতুন আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ ঘোষণা দেয়া হয়। নতুন আহবায়ক কমিটিতে আহবায়ক হয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী এ পি এম সুহেল।

তবে কোটা আন্দোলনের সময় এই এপিএম সোহেলের বিরুদ্ধে নানান ধরেন নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগ ওঠে এবং বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীদের সাথে খারাপ ব্যবহারের অভিযোগ রয়েছে। তিনি মেয়েদের সঙ্গে প্রেমের বাহানা দিয়ে নানা ধরনের সম্পর্ক গড়ে তুলতেন বলে অভিযোগ করেছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থী।

এদিকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর সঙ্গে এবিএম সোহেল একটি ছবি ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে সে সম্পর্কে সোহেল বলেন, আমার সাথে ছাত্রলীগের কোনো সম্পর্ক নেই। আমি কোটা সংস্কার আন্দোলনের মধ্যদিয়ে ছাত্র অধিকার পরিষদে আসি। রাব্বানী ভাইয়ের সাথে যে ছবিটি আপনারা দেখেছেন সেটা একটি বিয়ে বাড়িতে তোলা ছবি। এটা নিয়ে অপপ্রচার চালানোর কিছু নেই।

জানা গেছে, এ পি এম সুহেল আগে ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি বিভাগে মাস্টার্সে পড়াশোনা করছেন। তার গ্রামের বাড়ি পঞ্চগড়ে।

এ পি এম সুহেল জানান, তিনি কোটা সংস্কার আন্দোলনের আগে কোন রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন। কোটা সংস্কার আন্দোলন শুরু হলে তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতৃত্ব দেন এবং কোটা আন্দোলনের নেতাদের সাথে থেকে বিভিন্ন আন্দোলন সংগ্রামের নেতৃত্ব দেন। পরবর্তী সময়ে কোটা সংস্কার আন্দোলনে গড়ে উঠা প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক হন।

সুহেল জানান, কেন্দ্রীয় কমিটির দায়িত্বে থাকাকালীন এসব আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দিতে গিয়ে এ পর্যন্ত ৬ বার হামলার শিকার হয়েছেন। কোটা সংস্কার আন্দোলন চলাকালীন সময়ে দুই মাসে কারাবরণ করেছেন। সর্বশেষ ডাকসু হামলার সময় তাকে ডাকসু ভবনের ছাদ থেকে ফেলে দেয়া হয়। সেসময় তিনি গুরুতর আহত হন।

এ এ পি এম সুহেল সম্পর্কে ছাত্র অধিকার পরিষদের নেতারা জানিয়েছেন, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ থেকে শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও সংগঠনের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত থাকায় বহিস্কৃত এপিএম সুহেলকে বহিষ্কার করা হয়েছে। অতীতে তাদের কিছু সার্বজনীন আন্দোলনে সুহেলের উপস্থিতি পরিলক্ষিত হলেও, তিনি তাদের সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত নন।