ফ্রান্সের ইসলাম বিদ্বেষী কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা জানাই: সাবেক ভিপি নুর


Dhaka
Published: 2020-10-25 02:22:13 BdST | Updated: 2020-11-28 14:32:44 BdST

ফ্রান্সে মুসলমানদের নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লামকে নিয়ে ব্যঙ্গাত্মক ও কটুক্তিমূলক কার্টুন প্রদর্শন করার প্রতিবাদ জানিয়েছেন সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর।

তিনি তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, পৃথিবীর কোন ধর্মই মানুষকে সংঘাত-সহিংসতা,উগ্রবাদ বা অসততার শিক্ষা দেয় না। সকল ধর্মই শান্তি- সম্প্রীতি,মানব কল্যাণের কথা বলে। ইসলাম কখনোই সংঘাত-সহিংসতা, উগ্রবাদকে সমর্থন করে না।

নুর লিখেছেন, "ইসলাম পৃথিবীর অন্যতম শান্তির ধর্ম।  বাকস্বাধীনতার নামে ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ানো কখনোই মেনে নেওয়া যায় না। ধর্মনিরপেক্ষ ফ্রান্সে বাকস্বাধীনতার নামে ইসলাম ধর্মের প্রবর্তক, মুসলিম বিশ্বের আবেগ-অনুভূতি প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সঃ)এর বিতর্কিত কার্টুন প্রদর্শনীর নামে ইসলাম বিদ্বেষী কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই"।

ফ্রান্সে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-কে কটাক্ষ করে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনীর প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) একদল শিক্ষার্থী। আজ রবিবার (২৫ অক্টোবর) বিকেলে ৪টায় ক্যাম্পাসের টিএসসিস্থ রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে এ কর্মসূচি পালন করা হবে বলে জানা গেছে। এ নিয়ে ফেসবুকে একটি ইভেন্টও খোলা হয়েছে।

মুহাম্মদ মোফাজ্জল সাদাত নামে ওই ইভেন্টটির আয়োজক জানায়, ফ্রান্স নিজেদের সেক্যুলার রাষ্ট্র হিসেবে দাবি করে নিজেদের। অথচ তারা রাষ্ট্রীয় মদদে মহানবী (সা.)-কে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করছে। এরমক ঘৃণ্য কর্মকাণ্ডের প্রতিবাদে আমাদের এই কর্মসূচি।

জানা যায়, গত ১৬ অক্টোবর ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসের শহরতলী এলাকায় এক স্কুলশিক্ষককে গলা কেটে হত্যা করা হয়। হত্যাকারী সম্পর্কে পুলিশ জানায়, হামলাকারীর বয়স ১৮ বছর। তিনি চেচেন জাতিগোষ্ঠীর এবং জন্ম রাশিয়ার মস্কোতে। নিহত ওই শিক্ষক রাষ্ট্রবিজ্ঞান পড়াতেন। ‘মতপ্রকাশের স্বাধীনতা’ ক্লাসে তিনি শিক্ষার্থীদের মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর কার্টুন দেখিয়ে ছিলেন। তার পর তাকে হত্যা করা হয়।

এ ঘটনার পর ফ্রান্সের পুলিশ দেশটির অন্তত ৫০টি মসজিদ ও মুসলিম অধ্যুষিত এলাকায় ভয়াবহ অভিযান চালায়। সাড়ে পাঁচ বছর আগে হজরত মুহাম্মদ (সা.) বিতর্কিত কার্টুন ছাপানোর পর ফ্রান্সের ব্যঙ্গাত্মক ম্যাগাজিন শার্লি এবদোতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটে। আবারও সেটি ছাপিয়েছে ম্যাগাজিনটি। এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠলেও এর পক্ষে শক্ত অবস্থান নিয়েছেন ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাকরোঁ।

প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, হজরত মুহাম্মদের (সা.) বিতর্কিত কার্টুন ছাপানো নিয়ে নিন্দা জানাবেন না। একই সঙ্গে বিচ্ছিন্নতাবাদী ও এসব হামলার সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার ঘোষণা দেন তিনি।

এরই মধ্যে ফ্রান্সের সরকারি বিভিন্ন সংস্থার দেয়ালে শার্লি এবদোর সেই বিতর্কিত ১২টি কার্টুন প্রদর্শন করা হচ্ছে। দেশটির সরকার এবং কয়েকটি গণমাধ্যমের এমন সিদ্ধান্তের তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন (ওআইসি)।