ছাত্রলীগের ২৯তম কাউন্সিল নিয়ে ধোয়াশা কাটেনি


টাইমস অনলাইনঃ
Published: 2018-03-08 20:14:36 BdST | Updated: 2018-12-16 04:04:55 BdST

ছাত্রলীগের ২৯তম কাউন্সিল নিয়ে নানারকম গুঞ্জণ চলছে। কেউ বলছে যথা সময়ে অর্থাৎ ৩১ মার্চ সম্মেলন হবে আবার কেউ বলছে হবে না। তবে গণভবনের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে  বৃহস্পতিবার দুপুরে দেখা করতে যায় ছাত্রলীগের মেয়াদোর্ত্তীণ কমিটির সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ এবং সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন।

তারা দুজনই অনুরোধ করে করে ছাত্রলীগের নেত্রী শেখ হাসিনাকে বলেন, এ মুহুর্তে সম্মেলন করার মতো যথেষ্ট প্রস্তুতি নেই তাদের। প্রতি উত্তরে শেখ হাসিনা বলেছেন, ঠিক আছে। সর্বোচ্চ ১৫ থেকে ২১ দিন সময় বাড়িয়ে নিতে পারো। তারপরও সিদ্ধান্ত এখনো চূড়ান্ত হয়নি। কারণ এর মধ্যে কোনো পরীক্ষায় ফেল করলে আগের তারিখেই (৩১ মার্চ) কেন্দ্রীয় সম্মেলন হয়ে যাবে।

গণভবন থেকে ফিরে এসে উৎফুল্ল নেতারা 

তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানার জন্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে দেখা করার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফলে দুপুরে গণভবন থেকে না খেয়েই সোহাগ ও জাকির দ্রুত ছুটে যান সাধারণ সম্পাদকের কাছে।

তখন ওবায়দুল কাদের বলেছেন, সম্মেলন হবে। তবে নেত্রী যদি কোনো সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করেন তবেই পরিবর্তন হতে পারে। যেহেতু তিনি আনুষ্ঠানিকভাবে আমাকে (ওবায়দুল কাদের) কিছু জানাননি, তাই ৩১ মার্চকেই সম্মেলনের তারিখ হিসাবে ধরে নিয়েছি।

এখান থেকে মধুতে ফিরে এসেই এই দুই নেতা সকল হলের নেতা কর্মীদের ডেকে জানান ৩১ মার্চ কাউন্সিল হচ্ছে না বৃহস্পতিবার বিকেলে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন এই তথ্য সাংবাদিকদের নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, সম্মেলন যথা সময়ে হবে। তবে মার্চে সম্মেলন হচ্ছে না।

মধুতে ওবায়দুল কাদের (ফাইল ফটো)

কিন্তু তার কিছুক্ষণ আগেই ৮ মার্চ সকাল ১১:৩০ মিনিটে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দের সাথে এক বৈঠকে একথা বলেন তিনি। সেখানেও তিনি বলে গেছেন, আসছে ৩১ মার্চ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সম্মেলনের প্রস্তুতি নিতে আবারো নির্দেশ দিলেন আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

এর আগের দিন বুধবার সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন বলেন, আগামী ৩১ মার্চে সম্মেলন করার জন্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে নির্দেশনা্ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। এই নেতা জানান, আজ বিকালে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জনসমাবেশ মঞ্চে শেখ হাসিনা দলের সাধারণ সম্পাদককে এই নির্দেশ দেন।

চলতি মাসের ৩১ মার্চ ও ১ এপ্রিল ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। ১২ জানুয়ারি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ ও সাধারণ সম্পাদক এস এম জাকির হোসাইন গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাতে সম্মেলনের তারিখ ঠিক করা হয় বলে জানা যায়।

এর আগে ৬ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ছাত্রলীগকে মার্চ মাসেই সম্মেলন করা প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছা বলে জানিয়েছিলেন।

সায়েম ও গোলাম রাব্বানী 

এদিকে সম্মেলনের দাবি করে যারা সংবাদ সম্মেলনের ঘোষণা দিয়েছিলেন তাদের একজন ছাত্রলীগের শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। তিনি তার ফেসবুকে লিখেছেন, বঙ্গবন্ধুর মতো তাঁর আদর্শ ধারণ করা কর্মীরাও গোপন রাজনীতি পছন্দ করেনা। শ্রদ্ধেয় শীর্ষ নেতৃত্বের প্রতি সবিনয় অনুরোধ থাকবে, সংবাদ সম্মেলন বা প্রেস রিলিজের মাধ্যমে নেত্রীর ম্যাসেজটি লাখোলাখো নেতাকর্মীর কাছে পরিষ্কার করতে। সেটা জানার আমাদের অধিকার সবার আছে। এই ইস্যুতে ধোয়াঁশা সৃষ্টি করে আমাদের আবাগের শেষ ঠিকানাকে প্রশ্নবিদ্ধ করবেননা।

তিনি আরও লিখেছেন, নেত্রীর যেকোনো সিদ্ধান্ত বিনাবাক্যে প্রশ্নাতীতভাবে শিরোধার্য! প্রয়োজনে সারাদেশে লাখো নেতা-কর্মীর পক্ষ থেকে আমরা আপার সাথে দেখা করবো। আপনারা ম্যাসেজ ক্লিয়ার করুন, দয়া করে ছাত্রলীগ পরিবারের মাঝে অন্তঃকলহ সৃষ্টির দ্বার উন্মোচন করবেননা, উদ্ভূত যেকোনো পরিস্থিতির দায় কিন্তু আপনাদেরই নিতে হবে!

তাদের আরেকজন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সায়েম খান লিখেছেন, ''মাননীয় নেত্রীর বরাত দিয়ে একটা বার্তা মাঠে চালু হয়েছে। সেটা হল ৩১ মার্চ ছাত্রলীগের সম্মেলন হচ্ছে না। ছাত্রলীগের সম্মেলন যথা সময়ে হবে। নেত্রীর এই আদেশের আনুষ্ঠানিক কোন উৎস নাই। তারপরও এটা যদি নেত্রীর বার্তা হয়ে থাকে তাহলে তা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীর কাছে মাথার মুকুটসম। সম্মেলন হওয়া না হওয়ার ভেদ-বিভেদ ভুলে নির্দিষ্টভাবে একত্রিত হয়ে কাজ করতে হবে। যথা সময় মানে কখন সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে সেটা নিয়ে আনুষ্ঠানিক বার্তা দিয়ে ধোয়াশা কাটিয়ে এক প্লাটফর্মে আসতে পারলে ছাত্রলীগের জন্য ভাল হবে''।

বিডিবিএস 

সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।